কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ০১ আগস্ট ২০২৩, ০২:২২ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ

গয়েশ্বর তো রুই মাছ দিয়ে ভালো করেই খাইছেন - ওবায়দুল কাদের

গয়েশ্বর তো রুই মাছ দিয়ে ভালো করেই খাইছেন - ওবায়দুল কাদের

বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে খাওয়া-দাওয়ার ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এ নিয়ে চলছে পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তি। গতকাল সোমবার এ নিয়ে কথা বলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও।

খাওয়ানোর পর সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেড়ে দেওয়ায় দোষের কিছু দেখছেন না সেতুমন্ত্রী কাদের। সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে তিনি বলেন, গোয়েন্দাদের কাজই এ রকম। গয়েশ্বর কেন খেলেন উল্টো সেই প্রশ্ন তোলেন তিনি। তিন দিন না খেয়ে কাটিয়েছেন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, উনি কেন খাইলেন, এটা জিজ্ঞেস করেন। এত ক্ষুধা রাজনৈতিক নেতার? কীসের রাজনীতিক? তিন দিনও খাইনি আমরা একসঙ্গে।

গত শনিবার ঢাকার নয়াবাজারে অবস্থান কর্মসূচি পালনে নেতৃত্ব দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর। পুলিশ ও আওয়ামী লীগ সমর্থকদের বাধায় সেখানে দাঁড়াতে না পেরে পরে ধোলাইখালে তারা সড়কে নামলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে আহত গয়েশ্বরকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ। ৪ ঘণ্টা পর তাকে নয়াপল্টনে দিয়ে আসে পুলিশ। এরই মধ্যে ডিবি কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশিদের সঙ্গে গয়েশ্বরের মধ্যাহ্নভোজের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। আপ্যায়িত হওয়ার এসব ছবি-ভিডিও প্রকাশকে ‘নোংরা নাটক’, ‘নিম্নমানের মশকরা’ আখ্যায়িত করে রোববার ক্ষোভ ঝাড়েন গয়েশ্বর।

একটি দৈনিক ‘ভিডিও পলিটিক্স, সেকাল-একাল’ শিরোনামে গতকাল একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সেখানে ওবায়দুল কাদের ও শেখ ফজলুল করিম সেলিমের পুরোনো ছবি এবং গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আমান উল্লাহ আমানের গত শনিবারের ছবি পাশাপাশি ছাপানো হয়। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে সেতুমন্ত্রী বলেন, তো হয়েছে কী? যা সত্য সেটা আসছে, অসুবিধা কী? কেউ সাজিয়ে দিয়েছে কি না, সেটা ভিন্ন খবর। উনি (গয়েশ্বর) তো রুই মাছ দিয়ে ভালো করেই খাইছেন।

গোয়েন্দা প্রধানের দপ্তরে খাওয়া-দাওয়া করিয়ে ভিডিও করে তা ছড়িয়ে দেওয়া রাজনৈতিক শিষ্টাচারের মধ্যে পড়ে কি না, এ প্রশ্নে সেতুমন্ত্রী বলেন, এটা কি (ভিডিও ছড়ানো) রাজনৈতিক লোকরা করছে? আরে গোয়েন্দার কাজই তো। গোয়েন্দা গোয়েন্দাই। সে তো তথ্য নিয়ে বের করার জন্য বসে আছে। (মতবিনিময় সভায় নিজের দুই পাশে বসা দুই নেতাকে দেখিয়ে বলেন) বিপ্লব বড়ুয়া আর আরাফাত গিয়ে তো করেনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আন্দোলনে হয়তো উনার ক্ষুধা লাগছে। ক্ষুধা লাগছে, উনি খেয়েছেন। আমানরে (আমান উল্লাহ আমান) সৌজন্য দেখিয়েছেন, একজন রাজনৈতিক কর্মী তার কাছে নেত্রী কিছু ফল পাঠিয়েছেন, এটি পাঠাতেই পারেন। সে একটু অসুস্থ হইছে, ফল পাঠানো নিয়ম, রাজনীতিতে সৌজন্য তো বিদায় নেবে না।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

টিআইবির ফেলোশিপ পেলেন সাংবাদিক সজিবুর রহমান

রংপুরে এরিক ও বিদিশার ওপর হামলার অভিযোগ

বইমেলার সময় বাড়ল

রিহ্যাব নির্বাচনে ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের নিরঙ্কুশ জয়

৬ মাস বিশ্ববাজারে পেট্রোল বিক্রি করবে না রাশিয়া

ফরিদপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আহত ২০

গাধা বেচবে চিড়িয়াখানা

রাজধানীতে ৬ স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা

হকিতে মেরিনার্স-আবাহনীর সহজ জয়

ভিনদেশের মোহ কেটেছে জামালের! 

১০

পানগাঁও আইসিটিকে মুখ থুবড়ে পড়তে দেওয়া যাবে না : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

১১

বিপিএম পদকে ভূষিত হলেন মো. শাহ আলম

১২

পুলিশের ৪০০ সদস্যকে পদক পরিয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

১৩

প্রথমবারের মতো ওয়াটার রকেট উৎক্ষেপণ ঢাবি আইটি সোসাইটির

১৪

ট্রাকচাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

১৫

খেজুর ভেজানো পানি খেয়ে বেঁচে আছে গাজার শিশুরা

১৬

টাইগারদের ব্যাটিং ও বোলিং কোচ হলেন যারা

১৭

বিপিএম পদকে ভূষিত হলেন মো. মাজহারুল ইসলাম

১৮

বিপিএম পদক পেলেন তওফিক মাহবুব চৌধুরী

১৯

ছিনতাই মামলায় ছাত্রলীগ নেতা কারাগারে

২০
X