শাহ আলম খান
প্রকাশ : ১৩ জুন ২০২৩, ১২:০০ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ

ব্যবসায় ৩৬ সরকারি সেবার খরচ বাড়ল

ব্যবসায় ৩৬ সরকারি সেবার খরচ বাড়ল

দেশে ব্যবসা করার ক্ষেত্রে ৩৬ ধরনের সরকারি সেবা নেওয়ার খরচ আগের তুলনায় দুইগুণ থেকে পাঁচগুণ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। তিনটি সেবার ওপর আগে কোনো টাকা দেওয়ার প্রয়োজন হতো না, এখন সেগুলোও সরকারের ধার্যকৃত ফি হারের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। অবশ্য ফি হার আগের মতোই অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে ২২ ধরনের সেবার ওপর। আর একটি বিশেষ ধরনের সেবার ওপর থেকে ফি দেওয়ার প্রথা বিলুপ্ত করা হয়েছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মগুলোর পরিদপ্তর (আরজেএসসি) তাদের ৬৬ ধরনের সেবা দেওয়ার বিপরীতে আরোপিত ফি হার সম্প্রতি হালনাগাদকরণ পদক্ষেপে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

জানা গেছে, সেবা দেওয়ার বিনিময়ে নির্ধারিত ফি হার হালনাগাদকরণ সংক্রান্ত পদক্ষেপটি মাঠপর্যায়ে কার্যকরে এরই মধ্যে গত ৮ জুন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বাজেট অধিশাখা থেকে প্রজ্ঞাপনও জারি করা হয়। উপসচিব সুব্রত কুমার দে স্বাক্ষরিত ওই প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মগুলোর পরিদপ্তরের বিভিন্ন সেবার বিপরীতে বিদ্যমান ফি হালনাগাদকরণ এবং যেসব সেবার বিপরীতে কোনো ফি নির্ধারণ করা নেই, সেসব সেবার ফি নতুন করে সংযোজন, বাতিল কিংবা অপরিবর্তিত রেখে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হলো।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, এ উদ্যোগের ফলে আরজেএসসির সেবাভুক্ত দেশি-বিদেশি পাবলিক ও প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি, অংশীদারি ফার্ম, ট্রেড অর্গানাইজেশন, সামাজিক সংগঠন এবং এক ব্যক্তিক কোম্পানিগুলোর সেবা প্রাপ্তির খরচ অনুরূপ হারে বাড়বে। অন্যদিকে অতিরিক্ত খরচের চাপে নতুন উদ্যোক্তাদের ব্যবসা শুরু করা কঠিন হবে। এতে আনুষ্ঠানিক খাতের সম্প্রসারণ বাধাগ্রস্ত হবে।

জানতে চাইলে এ বিষয়ে আরজেএসসির রেজিস্ট্রার শেখ শোয়েবুল আলম কালবেলাকে বলেন, ‘ফি নির্ধারণ কিংবা হালনাগাদ সংক্রান্ত যে কোনো পদক্ষেপ সরকারি সিদ্ধান্তেই বাস্তবায়ন হয়। এখানেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তা ছাড়া আরজেএসসির অধিকাংশ সেবার ফি প্রায় এক দশক আগে নির্ধারণ করা হয়েছে। এ সময়ে প্রতিষ্ঠানের সেবার ব্যাপ্তি ও পরিচালন ব্যয় অনেক বেড়েছে। নিবন্ধিত প্রায় ৩ লাখ কোম্পানির নথিপত্র সংরক্ষণের প্রয়োজনীয় অফিস স্পেস, অনলাইন সার্ভার ব্যবস্থাপনা, বাড়তি জনবলসহ গ্রাহকের সেবার বিপরীতে আনুষঙ্গিক খরচও বেড়েছে। যে কারণে নতুন করে সেবার ফি নির্ধারণের সিদ্ধান্ত হয়েছে। মূলত সে কারণেই কিছু সেবার ফি হার বাড়ানো হয়েছে। অনেকগুলো অপরিবর্তিতই রাখা হয়েছে। আবার একাধিক ক্ষেত্রে ফি

দেওয়ার প্রথাও তুলে দেওয়া হয়েছে। এ ফি হার হালনাগাদ করার কারণে ব্যবসার খরচ খুব একটা বাড়বে না বলেও তিনি দাবি করেন।

আরজেএসসির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানান, চলতি বছর মে পর্যন্ত আরজেএসসিতে নিবন্ধিত কোম্পানির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৮২ হাজার ৫৩৮টি, যা ২০০৯ সাল পর্যন্ত ছিল ১ লাখ ৩২ হাজার ৬৫৩টি। অর্থাৎ এ সময়ে কোম্পানির সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। অথচ ২০১৩ সালের জুলাইয়ে সেবাগুলোর অধিকাংশের ফি নির্ধারণ হয়। এরপর ২০১৬ সালের মে মাসে কিছু সেবার ফি বাড়ানো হয়। এদিকে ২০২১-২২ অর্থবছর আরজেএসসি বিভিন্ন ধরনের সেবা দেওয়ার বিনিময়ে ২৯৬ কোটি ৬০ লাখ টাকার বেশি রাজস্ব আয় করেছে। আর চলতি অর্থবছর মে পর্যন্ত আয় করেছে ২৪৬ কোটি ৩৭ লাখ টাকার বেশি। ফি হার হালনাগাদ করায় আগামীতে রাজস্ব আরও বাড়বে।

ফি হার বাড়ানোর কিছু নমুনা: কোম্পানি নিবন্ধন করার আবেদন ফি ১ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। ফার্মের নামের ও প্রধান কারবারের স্থানের পরিবর্তন রেকর্ড করার ফি ২০০ থেকে ৫০০ টাকা, শাখা বন্ধ বা উদ্বোধন করার টোকা রাখা ফি ২০০ থেকে ৫০০ করা হয়েছে। ফার্মের রদবদল বা বিলুপ্তি লিপিবদ্ধ করার ফি ৫০০ থেকে বাড়িয়ে ১ হাজার টাকা করা হয়। ভুল সংশোধন ফি ২০০ থেকে ৫০০ টাকা করা হয়। সোসাইটি নিবন্ধনের ক্ষেত্রে বর্তমানে নির্ধারিত ফি হার রয়েছে ১০ হাজার টাকা। এটা হালনাগাদ সংশোধনীতে ১৫ হাজার করা হয়েছে। রেজিস্ট্রারের কাছে সংঘস্মারক নথিভুক্তকরণ ছাড়া এ আইনের আওতায় দলিল নথিভুক্তকরণে দিতে হবে ৪০০ টাকার স্থলে ৮০০ টাকা। দলিলাদি পরিদর্শনে ২০০-এর জায়গায় ৪০০ টাকা। নিবন্ধন সনদের অনুলিপি পেতে দিতে হবে ৪০০ টাকা। আগে এর ফি ধার্য ছিল ২০০ টাকা। দলিলাদির কপি পেতে বা অংশ বিশেষের জন্য প্রতি ১০০ শব্দের জন্য দিতে হবে ১০ টাকা, তবে এ ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ফি হার ২০০ টাকার পরিবর্তে করা হয়েছে ৫০০ টাকা। অন্যদিকে দলিলাদি তুলনা করার জন্য বর্তমানে প্রতি ১০০ শব্দ বা তার অংশবিশেষের জন্য দিতে হয় ১০ টাকা, তবে সর্বনিম্ন ফি হার ২০০ টাকা, যা হালনাগাদ উদ্যোগে বিলুপ্ত করা হয়েছে। সোসাইটি নামের ছাড়পত্র নিতে বর্তমানে দিতে হয় ১ হাজার টাকা। নতুন পদক্ষেপে তা বাড়িয়ে দ্বিগুণ করা হয়েছে। অর্থাৎ ২ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়। নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার পর কোনো দলিলাদি/বিবৃতি জমা দেওয়ার জন্য বিলম্ব ফি প্রতিদিনের জন্য দুই টাকা থাকলেও সর্বোচ্চ ১ হাজার টাকা নির্ধারিত রয়েছে। নতুন পদক্ষেপে সর্বোচ্চ ফি ১ হাজার টাকা বহাল রেখে প্রতিদিনের জন্য জরিমানা ৫ টাকা করা হয়েছে।

কোম্পানির নামিক শেয়ার মূলধন ১০ লাখ টাকার বেশি হলে তা নিবন্ধনের জন্য নামিক মূলধনের পরিমাণ ১০ লাখ টাকার বেশি; কিন্তু ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত, প্রতি লাখে ফি রয়েছে ৫০ টাকা। নতুন নির্দেশনায় সেটি ৮০ টাকা করা হয়েছে। আর ৫০ লাখ টাকার বেশিতে যে পরিমাণ টাকা থাকে, তার প্রতি লাখে বর্তমান নির্ধারিত ৮০ টাকার পরিবর্তে ১৩০ টাকা করা হয়েছে।

বন্ধক ও চার্জের নিবন্ধন বহি পরিদর্শন ও এ-সংক্রান্ত তথ্যগুলো পেতে নির্ধারিত রয়েছে ২০০ টাকা। নতুন সংশোধনীতে তা ৫০০ টাকা করা হয়েছে। একইভাবে রিসিভার নিয়োগ নিবন্ধনের ফি ৪০০ টাকার জায়গায় ৫০০ টাকা করা হয়েছে। আরজেএসসির কার্যালয়ের আওতাধীন অন্যান্য জেলায় প্রতিবারের জন্য আগে কোনো কিছু দিতে হতো না। নতুন পদক্ষেপে ১৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। অন্যদিকে দেশের বাইরে কমিশনের ক্ষেত্রে প্রতিবারের জন্য কমিশন ফি সরকারি কোষাগারে জমাযোগ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ হাজার টাকা, যা আগে ছিল না। সংঘস্মারকের বিবৃতি দাখিলের জন্য ৫০০ টাকার পরিবর্তে ১ হাজার টাকা, অন্যান্য দলিলের জন্য ২০০ টাকার স্থলে ৫০০ টাকা এবং সংঘস্মারক আইনের অধীন প্রয়োজনীয় বা অনুমোদিত কোনো বিষয় রেজিস্ট্রার কর্তৃক লিপিবদ্ধ করার ফি ৩০০ টাকার পরিবর্তে ৪০০ টাকা করা হয়েছে।

আর বিদেশি কোম্পানির ক্ষেত্রে বন্ধক বা ডিভেঞ্চার প্রথমবার পত্র নিশ্চয়তা বিধানকৃত অর্থের মোট পরিমাণ অনধিক ৫ লাখ টাকা হওয়ার ক্ষেত্রে ফি বর্তমান ৩০০ টাকার স্থলে ৪০০ টাকায় উন্নীত করা হয়। আর প্রথম ৫ লাখ টাকার পর থেকে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত প্রতি ৫ লাখ টাকা বা উহার অংশবিশেষের জন্য ২০০ টাকার স্থলে ৩০০ টাকা এবং প্রথম ৫০ লাখ টাকার পর থেকে যে কোনো পরিমাণ টাকার জন্য প্রতি ৫ লাখ টাকা বা উহার অংশবিশেষের জন্য বর্তমান ১০০ টাকার পরিবর্তে ২০০ টাকা এবং বন্ধক বা চার্জ নিবন্ধন বহি পরিদর্শনের ফি ২০০ টাকার জায়গায় ৫০০ টাকা ও রিসিভার নিয়োগের ফি ৪০০ টাকার পরিবর্তে ৫০০ টাকায় নির্ধারণ করা হয়েছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

নসিমন-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ২

২৮ ফেব্রুয়ারি : কী ঘটেছিল ইতিহাসের এই দিনে

বুধবার রাজধানীর যেসব এলাকায় যাবেন না

২৮ ফেব্রুয়ারি : নামাজের সময়সূচি

কর্ণফুলী নদীতে ৩ দিন বন্ধ থাকবে ফেরি চলাচল

মিয়ানমার সীমান্ত এখন শান্ত, ফের গোলাগুলি শুরুর আশঙ্কায় আতঙ্ক

বোনাস দাবিতে সার কারখানা শ্রমিকদের মানববন্ধন

সিলেটে পরিবহন শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু আজ

হাসপাতালে রেখে তরুণ-তরুণী উধাও, ছোটমণি নিবাসে ঠাঁই হলো নবজাতকটির

চট্টগ্রামে শাস্তির মুখে ৮ ল্যাব-হাসপাতাল

১০

এবার বাড়ছে সব ধরনের ছোলা ও ডালের দাম

১১

বিধবা মেয়েকে নিয়ে ঢাকায় যাওয়ার পথে চলন্ত ট্রেনে বাবার মৃত্যু

১২

দুই সন্তানের জননীকে নিয়ে ‘উধাও’ ইউপি সদস্য

১৩

স্বামী কারাগারে, সন্তান ফেলে উধাও গৃহবধূ

১৪

বেসরকারি ৩ ক্লিনিককে দেড় লাখ টাকা জরিমানা

১৫

আগুনে পুড়ে দাদি-নাতির মৃত্যু

১৬

আমতলী পৌরসভা নির্বাচন / আচরণবিধি ভঙ্গ করে মিছিল, মেয়র প্রার্থীর সমর্থককে সাজা

১৭

স্কুলের সামনে ছাত্রীদের ইভটিজিং, অতঃপর...

১৮

নারায়ণগঞ্জে ৬ স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা, জরিমানা

১৯

সিলেটে উদ্ধার হওয়া মর্টার শেল নিষ্ক্রিয় করল সেনাবাহিনী

২০
X