কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ১৫ মে ২০২৪, ১০:৪০ পিএম
আপডেট : ১৫ মে ২০২৪, ১১:০৬ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

বড় দায়রা শরীফের উত্তরাধিকার নিয়ে দ্বন্দ্ব

বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) সংবাদ সম্মেলনে উত্তরাধীকার দাবি করা ফারজানা হক লিমা। ছবি : কালবেলা
বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) সংবাদ সম্মেলনে উত্তরাধীকার দাবি করা ফারজানা হক লিমা। ছবি : কালবেলা

রাজধানীর আজিমপুর বড় দায়রা শরীফের উত্তরাধিকার দাবিদার ফারজানা হক লিমা নামে এক নারীকে মারধর করে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ওই নারী দুই সন্তানকে নিয়ে সম্পত্তির অধিকার ফিরে পেতে এখন দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।

বুধবার (১৫ মে) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলন করে ফারজানা হক এই অভিযোগ করেন। বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) ওই সংবাদ সম্মেলন হয়।

ওই সময়ে তার দুই সন্তান সৈয়দ শাহ ফারহাদ উল্লাহ ইয়াসিন (১৫) ও সৈয়দা তানজিয়া বেগম ত্রশী (২১) উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে ফারজানা হক বলেন, আজিমপুর বড় দায়রা শরীফের মোতয়াল্লী তার শ্বশুর মৃত সৈয়দ শাহ ফজলুল্লাহ’র চার ছেলে ও দুই মেয়ে। তার মধ্যে ফারজানার স্বামী মৃত সৈয়দ শাহ বারাতুল্লাহ রজতুলা ওরফে তানভির। তানভীরের চার ভাইয়ের মধ্যে তিন ভাইয়ের কোনো সন্তান নেই। শুধু তানভীর-ফারজানা দম্পতির এক পুত্র সন্তান শাহ ফারহাদ রয়েছে। যা কোনোভাবেই মানতে পারছেন না ওই নারীর ভাসুর ও ননদরা। এজন্য সম্পত্তি থেকে বিতাড়িত করতে নানামুখী ষড়যন্ত্র শুরু করেছেন তারা।

ফারজানা বলেন, আমার স্বামী তানভীর মারা যাওয়ার পর দুই এতিম সন্তানসহ আমার ওপর নির্যাতন শুরু করে ভাসুর ও ননদেরা। আমি বিচারের জন্য মামলা দায়েরসহ বিভিন্ন দফতরে আবেদন করে। পরে ডিএমপি কমিশনার লালবাগ বিভাগের তৎকালীন ডিসিকে বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেন। ডিসি ওই এলাকার সহকারী কমিশনারকে দিয়ে তদন্ত করে আমার অভিযোগের সত্যতা পান। এরপর বাড়িসহ অন্যান্য বিষয়ে আমাদের প্রাপ্য বুঝিয়ে দেন।

গত ১০ মাস সেভাবেই চলছিলো উল্লেখ করে ওই নারী বলেন, কিন্তু ওই পুলিশ কর্মকর্তারা বদলী হয়ে গেলে ফের আমাদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন শুরু হয়। ২৯ এপ্রিল ভাসুর-ননদ ও তাদের ভাড়া করা সন্ত্রাসীরা তাকে মারধর করে বাড়ি ছাড়া করেন। ওই সময়ে লালবাগ থানার এসআই রাজীব উপস্থিত ছিলেন। আদালতে মামলা চলমান থাকার পরও তারা এতিম দুই সন্তানসহ আমাকে ঘর থেকে বের করে দিয়েছে। স্বামীর অবর্তমানে যে বাড়ি ভাড়ার টাকা দিয়ে সংসার চালাতাম, পুলিশের সহযোগিতায় সেই ভাড়া বন্ধ করে দিয়েছে আসামীরা। এখন স্কুল-ইউনিভার্সিটি পড়ুয়া দুই সন্তান নিয়ে আমি দ্বারে দ্বারে ঘুরছি।

ফারজানা হক তার প্রাপ্য দাবি করে বলেন, আসামীরা আমাকে মিথ্যা মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকিও দিচ্ছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

নির্মাণাধীন ভবনের পিলার পড়ে স্কুলছাত্র নিহত

ঘূর্ণিঝড় রিমাল / বাউফলে ঘরচাপায় বৃদ্ধের মৃত্যু

নাটোরে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

প্রধানমন্ত্রী না ঘুমিয়ে মানুষের কথা ভাবেন : প্রতিমন্ত্রী

স্ত্রী হত্যার অভিযোগে স্বামী আটক

আসামির বিয়ে, পুলিশের খবর নেই

মিল্টনের আশ্রমে প্রশাসক নিয়োগ দিয়েছে সমাজসেবা অধিদপ্তর

মাথা গোঁজার সম্বল হারিয়ে দুশ্চিন্তায় দুর্গতরা

পছন্দের প্রার্থীকে জেতাতে ঘরে ঘরে টাকা বিতরণ

পুলিশ-আওয়ামী লীগ নেতাদের ছত্রছায়ায় সাভারে কারখানা দখল

১০

চুয়েটে দুর্যোগসহনীয় শহর নির্মাণবিষয়ক কর্মশালা

১১

আশুলিয়ায় ৩৯৫ বোতল ফেনসিডিলসহ আটক ২

১২

খাদ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতীয় হাইকমিশনারের বৈঠক

১৩

জাল নোট শনাক্তকরণ ও প্রচলন প্রতিরোধে আইএফআইসি ব্যাংকের কর্মশালা

১৪

কৃষকদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করল সাউথইস্ট ব্যাংক

১৫

উচ্চশিক্ষার সকল তথ্য যথাযথভাবে সংরক্ষণের আহ্বান ইউজিসি’র

১৬

ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে লন্ডভন্ড হাতিয়া

১৭

পটুয়াখালীতে কুকুরের কামড়ে আহত অর্ধশতাধিক 

১৮

ঘূর্ণিঝড়ে বিদ্যুৎহীন পৌনে ৩ কোটি গ্রাহক

১৯

কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের মঙ্গলবারের পরীক্ষা স্থগিত

২০
X