কুমিল্লা ব্যুরো
প্রকাশ : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০৬ পিএম
আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:১৪ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

বন্যপাখি খাঁচায় বন্দি করে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ পালন

খাঁচায় বন্দি বন্য পাখি। ছবি : কালবেলা
খাঁচায় বন্দি বন্য পাখি। ছবি : কালবেলা

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলায় বরুড়া শহীদ স্মৃতি সরকারি কলেজ মাঠে সপ্তাহব্যাপী প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও পশুপাখি প্রদর্শনীর আয়োজন করে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়। আয়োজনের প্রথম দিনে প্রদর্শনী স্টলে দেখা যায়, খাঁচায় বন্দি অবস্থায় শালিক, বালিহাঁস, ডাহুক জাতীয় কতিপয় বন্যপাখি।

বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) দেশব্যাপী প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর জেলা-উপজেলা পর্যায়ে সপ্তাহব্যাপী (১৮-২২ এপ্রিল) এ পশুপাখি প্রদর্শনীর আয়োজন করে।

বনের পাখি খাঁচায় বন্দি করে প্রদর্শনী করানোর বিষয়ে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকা বরুড়া উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. নাসরিন সুলতানা তনু বলেন, এগুলো সব পোষা পাখি। সব উপজেলাতেই শৌখিন পাখি প্রদর্শনী হচ্ছে। এগুলো কেউ বন থেকে ধরে আমাদের স্টলে আনেনি।

সরেজমিনে দেখা যায়, একটি স্টলে বিভিন্ন পাখি প্রদর্শনীর জন্য বসেছেন কে আই টেকনিশিয়ান লাইভ স্টক মোশাররফ হোসেন রাসেদ। এই স্টলে শালিক, ডাহুক ও বালিহাঁস খাঁচায় বন্দি করে রাখা হয়েছে। অন্য আরেকটি স্টলেও এমন কিছু পাখি খাঁচায় বন্দি দেখা যায়।

শালিক, ডাহুক ও বালিহাঁস খাঁচায় বন্দি করে আনা ব্যক্তির বাড়ি বরুড়া উপজেলা দক্ষিণ শীলমুড়ি ইউনিয়নের সুন্দুরদোল গ্রামের শাহ আলম মিয়া। তিনি বলেন, আমি দুই বছর ধরে এই পাখিগুলো পালন করছি। আমাদেরকে এখানে ইনভাইট করেছে পাখিগুলো নিয়ে আসার জন্য। আনলে খরচ দেবে।

কুমিল্লা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা চন্দন কুমার পোদ্দার বলেন, আমি যতটুকু জানি, বন্যপ্রাণী অনুমতি ছাড়া পালন করা যায় না। অনুমতি ছাড়া পালন করা দণ্ডনীয় অপরাধ। বন্যপ্রাণী বিষয়টি বন বিভাগের দায়িত্ব। আমরা বন্যপ্রাণী নিয়ে নয়, আমরা মূলত গৃহপালিত প্রাণী নিয়ে মেলা করি। যেমন- লাভ বার্ড, কবুতর, গরু-ছাগল, হাঁস-মুরগি ইত্যাদি।

বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের পরিচালক মো. ছানাউল্যা পাটওয়ারী বলেন, বন্যপ্রাণী কখনোই খাঁচায় ঢোকানো যাবে না, সেটি অপরাধ। ডাহুক, শালিক ও টিয়া, কখনো শৌখিন পাখি হতে পারে না। এগুলো প্রাণিসম্পদের প্রাণী না। প্রাণিসম্পদের প্রাণী হলো হাঁস-মুরগি, গরু-ছাগল ও কুকুর-বিড়াল। বন্যপ্রাণী ধরা, মারা, খাওয়া, ক্রয়-বিক্রয়, পাচার, দখলে রাখা বা শিকার করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। বন্যপ্রাণী দেশের সম্পদ, জীবন, জীবিকা ও পবিবেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আম্বানির ছেলের বিয়েতে মঞ্চ মাতাবে শাকিরা, ডুয়া লিপা ও এ আর রহমান

গভীর রাতে ঘরে ঢুকে নাতি-দাদির প্রাণ নিল ডাকাতদল

অভিজ্ঞতা ছাড়া ইবনে সিনায় নিয়োগ, পাবেন অনেক সুবিধা

ঘুর্ণিঝড় রিমাল / গৌরনদী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন স্থগিত

গাজীপুরে কাভার্ডভ্যান চাপায় পোশাক শ্রমিক নিহত

উপকূলে এখনো থামেনি ঘূর্ণিঝড় রিমালের দাপট

দেশ বাঁচাতে হলে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে : দুদু

ভারতীয় বিশ্বকাপ স্কোয়াডের আইপিএল পারফরম্যান্স কেমন

আন্তর্জাতিক সংস্থায় চাকরি, বেতন ৬৩,৯৬৪ টাকা

অবৈধ মাটির ট্রাক চলাচলে সড়ক ও ফসলি জমি হুমকির মুখে  

১০

আজই ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিচ্ছে ইউরোপের ৩ দেশ

১১

গুচ্ছে ভর্তি আবেদনের সময় বাড়ল

১২

সাভারে সাংবাদিকের ওপর হামলা, গ্রেপ্তার ২

১৩

এবার হজের খুতবা পাঠ করবেন কে এই ইমাম?

১৪

পঞ্চগড়ে জামানত হারালেন সাবেক ২ ভাইস চেয়ারম্যানসহ ৬ প্রার্থী

১৫

ভারতের কোচের পদে মোদি-অমিত শাহর আবেদন!

১৬

আ.লীগ নেতাদের ফখরুল / নিজেদের দাফন যেন সুন্দর হয়, চিন্তা করেন

১৭

গাজীপুরে ডুয়েট শিক্ষকদের কর্মবিরতি

১৮

ভুট্টা গাছের ডগা থেকে তৈরি হচ্ছে গোখাদ্য

১৯

নিয়োগ দেবে বে গ্রুপ, আবেদনের শেষ সময় ২ জুন

২০
X