কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ২১ মে ২০২৪, ১০:৫৬ পিএম
আপডেট : ২১ মে ২০২৪, ১০:৫৮ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

‘উন্নত দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতি দিলেও বাস্তবায়নে ব্যর্থ’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পুরোনো ছবি
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পুরোনো ছবি

উন্নত দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবায়নে ব্যর্থ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার (২১ মে) সফররত অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেনি ওংয়ের সঙ্গে গণভবনে এক বৈঠকে এ মন্তব্য করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার এম নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

প্রধানমন্ত্রী অস্ট্রেলিয়ার মন্ত্রীকে বলেন, আমরা অলস বসে থাকিনি (উন্নত দেশের অপেক্ষায়), আমরা আমাদের জনগণকে বাঁচানোর জন্য আমাদের নিজস্ব ক্লাইমেট ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করেছি। আমরা আমাদের পক্ষ থেকে চেষ্টা করছি। বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে রয়েছে, কারণ এখানে প্রায়ই ঘূর্ণিঝড় ও বন্যা আঘাত হানে।

বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গা এবং ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি আগ্রাসন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলাদেশ যে কোনো ধরনের যুদ্ধ বা সংঘাতের বিরুদ্ধে। আমরা প্রতিটি সংঘাত নিরসনে আলোচনা ও সংলাপ চাই। রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সহায়তার জন্য অনুরোধ করলেও প্রত্যাবাসন প্রচেষ্টায় উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি হয়নি বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ ২০১৭ সাল থেকে কক্সবাজার জেলায় প্রায় ১৩ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে। যাদের বেশিরভাগই মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দ্বারা পরিচালিত হত্যা, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগ থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। মিয়ানমার এখনো তাদের নাগরিকদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে রাজি হয়নি।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ছোট আয়তনের বাংলাদেশ একটি ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। এ জন্য আমরা কর্মসংস্থান সৃষ্টির ওপর গুরুত্বারোপ করেছি। সরকার কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য শিল্প-কারখানা স্থাপনের জন্য সারা দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে। অস্ট্রেলিয়ার উদ্যোক্তারা সেখানে বিনিয়োগ করতে পারে এবং দেশের বিনিয়োগবান্ধব সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করে মুনাফা অর্জন করতে পারে।

কৃষি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ গত ১৫ বছরে খাদ্যশস্য উৎপাদনে সফল হয়েছে। আমরা আমাদের উৎপাদন বহুগুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি, তবে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে আমাদের জমি হ্রাস পাওয়ায় আমাদের উৎপাদন আরও বাড়াতে হবে। উন্নত কৃষিপ্রযুক্তি বিনিময়ে অস্ট্রেলিয়ার সহায়তা কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, সরকারের সময়োপযোগী ও বাস্তবমুখী পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশ দারিদ্র্যের হার ৪০ শতাংশ থেকে ১৭ দশমিক ৭ শতাংশে এবং চরম দারিদ্র্যের মাত্রা ২৫ শতাংশ থেকে ৫ দশমিক ৭ শতাংশে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে প্রায় ৯০ হাজার বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মানুষ অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস করছে এবং তারা দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখছে। অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে তাদের দেশে আরও বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর প্রবেশাধিকারের জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার অনুরোধ জানান বঙ্গবন্ধুকন্যা।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং অ্যাম্বাসাডর-অ্যাট-লার্জ এম জিয়াউদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন ৫ জন

ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা

সেলস ম্যানেজার নিচ্ছে ওয়ালটন, থাকছে নানা সুবিধা

বাঙালির সব অর্জনেই আ.লীগ জড়িত : প্রধানমন্ত্রী

টানা ৮ বছর বসন্তে পালিত হবে হজ, এরপর শীতেও

খালেদা জিয়ার কিছু হলে দায় সরকারের : জাগপা

সিলেটে বিপুল পরিমাণ আতশবাজি উদ্ধার

আ.লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা

অষ্টম শ্রেণি পাসে মিনিস্টার গ্রুপে নিয়োগ, পদসংখ্যা ২০

খুলল সিলেটের পর্যটনকেন্দ্র, আছে শর্ত

১০

আফগানদের যেভাবে হারালে সেমিতে খেলবে শান্তরা

১১

বাসের ধাক্কায় নারীসহ নিহত ২

১২

খোঁজ মিলল বিলাসী ভেড়ার, দাম ৮০ লাখ

১৩

ছেলেকে বাঁচাতে যাওয়ায় বাবাকে পানিতে চুবিয়ে হত্যা

১৪

ইসরায়েলের স্পর্শকাতর লক্ষ্যবস্তুর ফুটেজ প্রকাশ করল লেবাননের যোদ্ধারা

১৫

খুলে দেওয়া হলো তাহিরপুরের পর্যটন স্পট

১৬

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান

১৭

এসিআইয়ে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ, কর্মস্থল ঢাকা

১৮

আ.লীগ মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করে : এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী

১৯

ছাত্রলীগ নেতা-নেত্রীর অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল

২০
X