কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ১৪ জুন ২০২৪, ১০:১২ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

আরও ক্ষেপেছে ইরান, আমেরিকার সামনে মহাবিপদ

ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি। ছবি : সংগৃহীত
ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি। ছবি : সংগৃহীত

আঞ্চলিক পরাশক্তি ইরান যেন কোনোভাবেই পরমাণু অস্ত্রের অধিকারী হতে না পারে সেজন্য নিজেদের সবটুকু সামর্থ্য ব্যয় করছে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা। কিন্তু পশ্চিমাদের চাপ যত বাড়ছে ততই ভয়ংকর হয়ে উঠছে ইরান।

ইরান পরমাণু অস্ত্রের অধিকারী হলে সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়বে ইসরায়েল। ফলে মধ্যপ্রাচ্যের স্থিতিশীলতা রক্ষায় ইরানকে আরও বেশি চাপ দিচ্ছে ওয়াশিংটন। অন্যদিকে বেশি চাপে পাগলা ঘোড়ার মতো ক্ষেপে উঠেছে ইরানও।

ফলে সামনের দিনগুলোতে ইসরায়েল ও আমেরিকার নিরাপত্তা আরও হুমকির মুখে পড়তে যাচ্ছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়, জাতিসংঘের পরমাণুবিষয়ক প্রতিষ্ঠান আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা তথা আইএইএ জানিয়েছে ইরান তাদের পারমাণবিক সক্ষমতা আরও বাড়াচ্ছে। ইরানের পক্ষ থেকে যথেষ্ট সহযোগিতা না পাওয়ার সমালোচনা করে সংস্থাটির গভর্নর বোর্ড প্রস্তাব পাস করার এক সপ্তাহ পর এমন কথা বলল আইএইএ।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে পাঠানো এক বিবৃতিতে আইএইএ জানায়, সংস্থাটি তার সদস্যদের বলেছে যে নাতাঞ্জ ও ফোরদৌতে পারমাণবিক কেন্দ্রগুলোতে আরও বেশি ক্যাসকেড মজুত করছে তেহরান।

বিষয়টি তেহরানের কাছ থেকেই আইএইএ জানতে পেরেছে। তবে ইরানের এমন তৎপরতাকে মাঝারি ধরনের বলে উল্লেখ করেছে একটি কূটনৈতিক সূত্র। ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণে ব্যবহৃত সেন্ট্রিফিউজসহ বিভিন্ন যন্ত্রপাতিকে একসঙ্গে ক্যাসকেড বলা হয়ে থাকে।

গত সপ্তাহে ৩৫ সদস্যবিশিষ্ট আইএইএ-গভর্নর বোর্ডে ইরানের কাছ থেকে যথেষ্ট সহযোগিতা না পাওয়ার সমালোচনা করে প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও জার্মানি উত্থাপিত প্রস্তাবটির বিরোধিতা করেছে চীন এবং রাশিয়া।

২০২২ সালের নভেম্বরের পর এটি এ ধরনের প্রথম প্রস্তাব। প্রস্তাবটি তড়িঘড়ি করে দেওয়া হয়েছে এবং এটি বিবেচনাপ্রসূত নয় উল্লেখ করে এর সমালোচনা করেছে ইরান।

প্রস্তাবটির ধরন প্রতীকী হলেও এর লক্ষ্য হলো ইরানের ওপর কূটনৈতিক চাপ জোরদার করা। এর মধ্য দিয়ে বিষয়টি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে তোলার সুযোগ তৈরি হবে। এর আগে একই ধরনের প্রস্তাব পাস হওয়ার পর তেহরান নিজেদের পারমাণবিক স্থাপনা থেকে নজরদারি ক্যামেরা এবং অন্যান্য সরঞ্জাম সরিয়ে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কার্যক্রম বাড়িয়ে দিয়েছিল।

আইএইএ বলেছে, তেহরানের পারমাণবিক কর্মসূচি উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। দেশটির এখন কয়েক ধরনের আণবিক বোমা তৈরি করার মতো যথেষ্ট উপকরণ আছে।

এমনকি ২০১৫ সালে বিশ্বের শক্তিধর দেশগুলোর সঙ্গে স্বাক্ষরিত চুক্তির আওতায় করা অঙ্গীকারগুলো থেকে ধীরে ধীরে সরে আসছে ইরান।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

কারফিউর প্রভাবে সুনশান কুয়াকাটা সৈকত

মানিকগঞ্জে পিকনিকের নৌকা ডুবির ঘটনায় নিহত ১, নিখোঁজ ২

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন / সরে দাঁড়ালেন বাইডেন, প্রার্থিতার পথে এগিয়ে কমলা হ্যারিস

ড. ইউনূসের আবেদন খারিজ, মামলা চলবে

জনমনে স্বস্তি না ফেরা পর্যন্ত কারফিউ চলবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রেমিককে যা বললেন ক্যানসার আক্রান্ত হিনা 

সব আরোহী মারা গেলেও বেঁচে ফিরলেন পাইলট!

অনির্দিষ্টকালের জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা

কসবায় অ্যাম্বুলেন্স-সিএনজি সংঘর্ষে নিহত ২

চার্জশিট পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

১০

মোবাইল ইন্টারনেট চালুর বিষয়ে জানাল গ্রামীণফোন

১১

‘ভিক্ষা লাগবে না একটা পত্রিকা দেন, দেশের খবর জানি’ 

১২

প্যারিস অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যা থাকছে

১৩

যেভাবে দেখবেন অলিম্পিকে আর্জেন্টিনার ম্যাচ

১৪

শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত হলে খুলবে ঢাবি

১৫

স্থানীয় সরকারের ২২৩ পদে নির্বাচন স্থগিত

১৬

ভালো নেই মুরগি ব্যবসায়ীরা

১৭

গাজীপুরে খুলে দেওয়া হয়েছে পোশাক কারখানা

১৮

পর্যটকশূন্য কাপ্তাই পর্যটনকেন্দ্রগুলো

১৯

ফিফার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ

২০
X