সাইদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম
প্রকাশ : ০৪ মার্চ ২০২৪, ০২:৫৪ এএম
আপডেট : ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৮:৩৯ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ

সাবেক নেতাদের মদদেই বেপরোয়া চবি ছাত্রলীগ

ক্যাম্পাসে অস্থিরতা
সাবেক নেতাদের মদদেই বেপরোয়া চবি ছাত্রলীগ

দিন যত গড়াচ্ছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ক্যাম্পাসে ততই বাড়ছে উত্তাপ। আতঙ্ক বাড়ছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যেও। সাধারণ শিক্ষার্থীরা বলছেন, সাবেক নেতাদের অস্তিত্ব ক্যাম্পাসে টিকিয়ে রাখতেই ছাত্রলীগে বারবার অস্থিরতা সৃষ্টি হচ্ছে। গ্রুপিংয়ে জড়িয়ে পড়ছেন চবির বর্তমান শিক্ষার্থী এবং ছাত্রলীগের তরুণ নেতাকর্মীরা। সম্প্রতি চবি ছাত্রলীগে বারবার সংঘর্ষের কারণ খুঁজতে গিয়ে এমন তথ্যই বেরিয়ে এসেছে। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগের অস্থিরতার পেছনে কিছু শিক্ষককে দায়ী করেছেন সাবেক নেতারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চবি ছাত্রলীগের বিভিন্ন উপগ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষগুলো বাধছে শাখা ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীদের মদদেই। সাবেকরা ক্যাম্পাস ছেড়ে গেলেও তাদের কর্তৃত্ব ও আধিপত্য রয়ে গেছে গ্রুপগুলোতে। এমনকি চবি ছাত্রলীগের এই গ্রুপগুলোর নেতাকর্মীদের নিয়োগ বাণিজ্য, টেন্ডার বাণিজ্য ও বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন থেকে চাঁদার একটা অংশ যায় এই ‘বড় ভাই’দের কাছে। তাদের মধ্যে অন্যতম কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক বহিষ্কৃত সহ-সম্পাদক সাইফুল আলম লিমন। তিনি চবি ছাত্রলীগের উপগ্রুপ সিক্সটি নাইনের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। এখনো তার প্রভাব রয়ে গেছে গ্রুপটিতে। বলা হয়, তার দিকনির্দেশনাতেই গ্রুপটি চলছে বছরের পর বছর। বর্তমানে লিমন চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগে পদ পেতে চেষ্টা করছেন। তবে তার নামে রয়েছে জোড়া খুনের মামলা।

সাইফুল আলম লিমন কালবেলাকে বলেন, ‘ভুলত্রুটি সবার আছে। কিন্তু চবি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর সাবেকদের কোনো ধরনের ভূমিকা আছে বলে আমার মনে হয় না। যদি কারও কোনো স্বার্থ না থাকে, তাহলে কোনো সাবেক নেতা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে কথা বলবেন না।’ তিনি বলেন, ‘চবির রাজনীতি যেহেতু করে আসছি, সেই হিসেবে অনেকের সঙ্গে যোগাযোগ তো আছেই। রাজনীতির কারণে সবার সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে যেতে হবে।’

আরেকজনের নাম এম এ খালেদ। যিনি চবি শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান উত্তর জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি চবি ছাত্রলীগের উপগ্রুপ ভার্সিটি এক্সপ্রেসের (ভিএক্স) সাবেক নেতা। এখনো তিনি দলটিকে দেখভাল করছেন, নানা সুবিধা দিচ্ছেন। ভিএক্স গ্রুপের মধ্যেও রয়েছে আরও দুটি ভাগ। এর একটিতে রয়েছে শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মো. রেজাউল করিমের প্রভাব। তিনি এই গ্রুপের সাবেক নেতা। তবে নেতৃত্ব ছাড়লেও এখনো পর্যন্ত তার নির্দেশেই গ্রুপটির একটি অংশ পরিচালিত হচ্ছে। বর্তমানে তিনি চট্টগ্রামের মহেশখালী উপজেলা যুবলীগে পদের জন্য দৌড়ঝাঁপ করছেন।

ভিএক্সের আরেকটি অংশে প্রভাব রয়েছে চবি ছাত্রলীগের সাবেক উপ-দপ্তর সম্পাদক মিজানুর রহমান বিপুলের। ক্যাম্পাস ছেড়ে নিজের এলাকা ব্রাহ্মণবাড়িতে বর্তমানে তিনি ঠিকাদারি হিসেবে কাজ করলেও তার বড় একটি প্রভাব রয়ে গেছে গ্রুপটিতে। তবে বর্তমানে তিনি রাজনীতিতে অতটা সক্রিয় নন।

এদিকে চবি ছাত্রলীগের উপগ্রুপ সিক্সটি নাইনের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন টিপুরও রয়ে গেছে বড় একটি প্রভাব। অনেকের দাবি, ছাত্রলীগের গত কমিটিতে স্বচ্ছ রাজনীতি করা একজন নেতা এই ইকবাল হোসেন টিপু। যার কারণে তার অধীনে রয়ে গেছেন গ্রুপটির অনেকেই।

শুধু বড় গ্রুপগুলোতে যে সাবেকদের পৃষ্ঠপোষকতা রয়েছে তা-ই নয়, ছোট দলগুলোতেও রয়ে গেছে সাবেকদের প্রভাব। এর মধ্যে অন্যতম একাকার গ্রুপটি। শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মঈনুল ইসলাম রাসেল এর নেতৃত্ব দিলেও তিনি সবকিছুর জন্য ছুটে চলেন গ্রুপটির সাবেক নেতা শাখা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগারের বর্তমান ঊর্ধ্বতন সহকারী কাজী তানজিম হোসেনের কাছে। কাজী তানজিম হোসেনের দিকনির্দেশনাতেই চলছে গ্রুপটি। উল্লিখিত নেতাদের সবাই সাবেক সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাসির উদ্দীনের অনুসারী বলে ক্যাম্পাসে পরিচিত ছিল।

অন্যদিকে সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরীর সমর্থিত বা অনুসারী হিসেবে পরিচয় দেওয়া গ্রুপগুলো অবস্থাও একই রকম। চবি ক্যাম্পাসে মূলত চুজ ফ্রেন্ডস উইথ কেয়ার (সিএফসি) ও বিজয় নামের দুটি গ্রুপ বর্তমানে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর নাম ভাঙায়। ওই গ্রুপের সাবেক এক ছাত্রনেতাকে ঘিরে ক্যাম্পাসে নানা গুঞ্জন রয়েছে। ক্যাম্পাসে প্রচলিত আছে শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সিএফসির নেতা রেজাউল হক রুবেল তার কথাতে উঠতেন-বসতেন। এমনকি, বর্তমান নেতা সাদাফ খানও তার কাছে ধরনা দেন। তবে, এক্ষেত্রে এতদিন ব্যতিক্রম ছিল বিজয়। সাবেকদের প্রভাব ছাড়া গ্রুপটি এতদিন চলে এলেও কিছুদিন আগে সোহরাওয়ার্দী হলে থাকা বিজয়ের একাংশ গ্রুপটির নেতা, শাখা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইলিয়াসকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়। আর সেই সুযোগটি নেন দলটির সাবেক নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বি সুজন। তিনিই এখন বিজয়ের সোহরাওয়ার্দী হল অংশটিকে শেল্টার দিচ্ছেন বলে জানা গেছে। এমনকি গত কয়েকদিন আগে মোটরসাইকেল শোডাউন দিয়ে ক্যাম্পাসে সাবেক নেতা সুজনের অস্তিত্বের জানান দেয় গ্রুপটি।

অভিযোগ অস্বীকার করে চবি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রেজাউল হক রুবেল কালবেলাকে বলেন, ‘অস্ত্র নয়, বুদ্ধিবৃত্তিক রাজনীতির জন্য আমরা কাজ করি। এসব রাজনীতিতে ছাত্ররা প্রতিহিংসাপরায়ণ কিংবা সংঘর্ষে জড়িয়ে যাওয়ার পেছনে কাজ করছেন শিক্ষকরা। কিছু শিক্ষক ছাত্রদের ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে ভিসি-প্রক্টর তথা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে চাপে রাখার চেষ্টা করেন। একইভাবে চবির টেন্ডারসহ নানা ইস্যুতে ছাত্ররা নীরব থাকলেও শিক্ষকদের উসকানিতে অস্থির হয়ে পড়েন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি কোনোদিন টেন্ডার বাণিজ্যসহ কোনো অনিয়মে জড়িত ছিলাম না। অনেকেই টেন্ডারের কাজ করে, কিন্তু তারা সংঘর্ষে লিপ্ত নয়। নিরপেক্ষ হিসেবে কাজ করতে চাইলেও শিক্ষকদের স্বার্থের জন্য তরুণ নেতাকর্মীরা নানাভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে।’

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ঝালকাঠিতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

ঝালকাঠিতে বজ্রপাতে স্কুলছাত্রের মৃত্যু

নরসিংদীতে বজ্রপাতে একজনের মৃত্যু, ২ নারী আহত

উপজেলা ভোটে লড়তে ইউপি চেয়ারম্যানের পদত্যাগ 

ঘরের মাঠে বিধ্বস্ত হয়ে বিদায় বার্সার

ঈদ করতে এসে পানিতে ডুবে কিশোরের মৃত্যু

চকরিয়ায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে কৃষককে গুলি করে হত্যা

যুবলীগ কর্মীর পায়ের রগ কাটল যুবদল নেতা 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হবিগঞ্জের দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত ২০

সংবাদ প্রকাশের জেরে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা

১০

৮ মাসে সর্বজনীন পেনশন সদস্য ৫৪ হাজার

১১

‘ওরাকল ক্লাউড ওয়ার্ল্ড ট্যুর সিঙ্গাপুর’ এ স্মার্ট বাংলাদেশের রূপরেখা তুলে ধরলেন পলক

১২

সুনামগঞ্জে বজ্রপাতে ২ কৃষকের মৃত্যু

১৩

পাবনায় সাংবাদিককে পিটিয়ে পা ভেঙে দিল সন্ত্রাসীরা

১৪

ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জন্যে বিরাট সুখবর

১৫

গাজীপুরে ব্যাটারি কারখানায় বিস্ফোরণে চীনা নাগরিক নিহত

১৬

প্রেমিকাকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের দায়ে একজনের যাবজ্জীবন

১৭

লামায় উৎসবের দিনে আগুনে পুড়ল বৌদ্ধ বিহার

১৮

চট্টগ্রামে এখনও ঈদের আমেজ

১৯

রাবির জনসংযোগ দপ্তরের নতুন প্রশাসক অধ্যাপক প্রণব কুমার

২০
*/ ?>
X