নূর হোসেন মামুন, চট্টগ্রাম
প্রকাশ : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৩:১৯ এএম
আপডেট : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৭:৫১ এএম
অনলাইন সংস্করণ

এবার বাড়ছে সব ধরনের ছোলা ও ডালের দাম

ছোলা ও ডাল। ছবি : সংগৃহীত
ছোলা ও ডাল। ছবি : সংগৃহীত

আর কিছুদিন পর শুরু হচ্ছে রমজান। এ সময় ঘরে-বাইরে ইফতারির অন্যতম জনপ্রিয় অনুষঙ্গ হিসেবে পেঁয়াজুর চাহিদা বেড়ে যায়। আর এই পেঁয়াজু বানানোর অন্যতম উপকরণ হলো খেসারির ডাল। রমজানের আগে এক মাসের ব্যবধানেই এই ডালের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা পর্যন্ত। শুধু খেসারির ডালই নয়, রোজা যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই চড়া হচ্ছে সব ধরনের ছোলা ও ডালের বাজার। বছরের অন্য সময়ের তুলনায় রমজান উপলক্ষে ছোলা ও সব ধরনের ডাল আমদানি হয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। তারপরও লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না এসব পণ্যের দাম। গত এক মাসের ব্যবধানে ছোলার দাম কেজিতে বেড়েছে ২৫ থেকে ৫০ টাকা। আর সব ধরনের ডালের দাম বেড়েছে ১৫ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত। আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশে ডালের চাহিদার বড় অংশই আমদানি করা হয়। ডলার সংকটের কারণে আমদানি বিল পরিশোধে ব্যয় বেড়েছে। এর প্রভাব পড়েছে ডালের দামে।

কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এসব পণ্যের দামে লাগাম টানতে এখনই প্রশাসনের কড়া নজরদারি দরকার। তা না হলে রমজানজুড়ে ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট ভোক্তাদের ভোগাবে।

খাতুনগঞ্জের ডাল জাতীয় ভোগ্যপণ্য ব্যবসায়ী মেসার্স আমান এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আমান উল্লাহ বলেন, গত ৭ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনের দুই সপ্তাহ আগে থেকেই ডালজাতীয় প্রায় সব পণ্যের দাম ঊর্ধ্বমুখী হতে শুরু করে। নির্বাচনের পর এসব পণ্যের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছে, যা আগের সব রেকর্ডকে ছাড়িয়ে গেছে। ডলার সংকটের কারণে ব্যাংকগুলো সাধারণ ব্যবসায়ীদের ভোগ্যপণ্য আমদানির ঋণপত্র খুলছে না। ফলে ভোগ্যপণ্য আমদানির বিষয়টি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। এ কারণে চাহিদা স্বাভাবিক থাকলেও আমদানিকারকদের বাড়তি মুনাফা করার প্রবণতায় এসব পণ্যের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছে।

বেড়েছে আমদানি : রমজান উপলক্ষে এবার গত বছরের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি আমদানি হয়েছে ছোলা। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর উদ্ভিদ সঙ্গনিরোধ কেন্দ্রের উপপরিচালক ড. মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, মিয়ানমার, অস্ট্রেলিয়া ও কানাডা থেকে গত ডিসেম্বরে এই পণ্যটি এসেছে ৫ হাজার ৬৪০ টন। জানুয়ারিতে এসেছে ৬৬ হাজার ৩০ টন। আর চলতি ফেব্রুয়ারি মাসেই এখন পর্যন্ত এসেছে ১৭ হাজার ৩৯৫ টন। ২০২২-২৩ অর্থবছরে ছোলা আসে ২ লাখ ৩ ২৮৩ টন।

গত কয়েক বছরের তুলনায় দু-তিন গুণ বেড়েছে ডাল আমদানি। এর মধ্যে মসুর ডাল, মুগডাল, মাষকলাই ও মটর ডালের আমদানি বেড়েছে। গত ডিসেম্বরে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে আমদানি করা হয় ১৯ হাজার ৬১০ টন মসুর ডাল। চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসেই আমদানি হয়েছে ১ লাখ ১৪ হাজার ৮৪০ টন মসুর ডাল। এর মধ্যে গত জানুয়ারি মাসেই এসেছে ৪৯ হাজার ১৪৭ টন। আর চলতি ফেব্রুয়ারিতে এখন পর্যন্ত এসেছে ১৭ হাজার ৯৯ টন। এর আগে ২০২২-২৩ অর্থবছরে এসেছে ৪ লাখ ৯৫ হাজার ৫৬৯ টন মসুর ডাল।

ভোজনরসিক বাঙালিদের খাবারের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ মটর ডাল। কানাডা ও রাশিয়া থেকে চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসেই ডালটি আমদানি হয়েছে ১ হাজার ৮৮০ টন। এর আগে ২০২২-২৩ অর্থবছরে এসেছে ৫০২ টন। শুধু চলতি ফেব্রুয়ারি মাসেই এসেছে ২৪ হাজার ২১০ টন।

খাবারের স্বাদে ভিন্নতা আনে মাষকলাই ডাল। রমজানে এ পণ্যটির চাহিদাও বাড়ে। চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসেই ডালটি আমদানি হয়েছে ১ হাজার ৬২৫ টন। এর আগে ২০২২-২৩ অর্থবছরে এসেছে ৫ হাজার ৫৮১ টন।

লাগামহীন দাম : দেশের সবচেয়ে বড় ভোগ্যপণ্যের বাজার হলো চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য খালাসের পর তা সরাসরি আসে খাতুনগঞ্জে। এরপর এসব পণ্য বিভিন্ন হাত হয়ে যায় সারা দেশে। এই কারণেই বলা চলে, সারা দেশের পণ্য বাজার নিয়ন্ত্রণ করে খাতুনগঞ্জ। খাতুনগঞ্জের বিভিন্ন আড়ত ঘুরে দেখা গেছে, ডাল জাতীয় পণ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে মুগের দাম। বর্তমানে প্রতি কেজি মুগডাল বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়, যা এক-দুমাস আগেও বিক্রি হয়েছে ১১০ টাকায়। অর্থাৎ এই সময়ের ব্যবধানে প্রতি কেজি মুগডালের দাম বেড়েছে ৫০ টাকা। একই সময়ে কেজিতে ২০ টাকা বেড়েছে মটর ডালের দামও। এক মাস আগে ৫০ টাকায় বিক্রি হওয়া প্রতি কেজি মটর ডাল এখন বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়।

বর্তমানে প্রতি কেজি মোটা মসুর (অস্ট্রেলিয়ান) ১০২ এবং চিকন মসুর (দেশি ও ভারতীয়) ১৩৪-১৩৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অথচ ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত প্রতি কেজি মোটা মসুর ৯০ এবং চিকন মসুর ১২০ টাকার মধ্যে বিক্রি হয়েছে। এক মাস আগে প্রতি কেজি ছোলা ৯০ টাকার নিচে বিক্রি হলেও এখন বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। চট্টগ্রামের খুচরা বাজারে সব ধরনের ডালের দাম বেড়ে বর্তমানে চিকন বা দেশি মসুর ডালের কেজি ১৫০ থেকে ১৫৫, মোটা মসুর ১১০, মুগডাল ১৮০, মটর ডাল ৯০ এবং ছোলা ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ক্যাবের কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন কালবেলাকে বলেন, মানুষের দুর্ভোগ লাগবে ভ্রাম্যমাণ আদালত কিংবা সমন্বিত বাজার তদারকির কার্যক্রম শুরু হলে তা অকার্যকর করতে নানা চক্রান্ত চলে। প্রশাসন অভিযান চালালেই ব্যবসায়ীদের হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠানো হয়। পরে সেই অভিযান বন্ধে চালানো হয় নানা অপতৎপরতা। গুটি কয়েক অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট করে মানুষের খাদ্য নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে। ভরা মৌসুমে একদিকে চালের ঊর্ধ্বমূল্য, অন্যদিকে শীতকালীন শাকসবজির ভালো উৎপাদনের মধ্যে এসবের মূল্য সাধারণের ক্রয়ক্ষমতাকে সদম্ভে বৃদ্ধাঙুলি দেখাচ্ছে। আইন প্রয়োগে শিথিলতা ও স্থানীয় প্রশাসনের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বারবার পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের বাজারে কারসাজি, মজুত, অতি মুনাফাসহ নানা অপকর্ম করছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

তিন মামলায় মামুনুল হকের জামিন 

বুকে ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে সাবেক আর্জেন্টাইন তারকা

ঢাকার ভবন মালিকদের হুঁশিয়ারি দিলেন মেয়র তাপস

এফডিসিতে হামলার প্রতিবাদে সাংবাদিকদের মানববন্ধন 

সেই নারী কাউন্সিলর চামেলীকে দল থেকে বহিষ্কার

তীব্র গরমে বিশ্বজুড়ে বছরে ১৮৯৭০ শ্রমিকের মৃত্যু

আপিল বিভাগে তিন বিচারপতি নিয়োগ

যুদ্ধের মধ্যেই মন্ত্রীকে আটক করলেন পুতিন

সকালে ইসতিসকার নামাজ আদায়, রাতে নামল স্বস্তির বৃষ্টি

তাপমাত্রা আরও বাড়ার শঙ্কা

১০

অফিসার নিয়োগ দেবে কাজী ফার্ম, আবেদন করুন দ্রুত

১১

হিট স্ট্রোকে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকের মৃত্যু

১২

অন্তঃসত্ত্বা নারীর চিকিৎসা করলেন না ডাক্তার, সমালোচনার ঝড়

১৩

টাইগারদের সঙ্গে সিরিজের জন্য জিম্বাবুয়ে দল ঘোষণা

১৪

থাইল্যান্ড পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

১৫

চাকরি দিচ্ছে কাজী ফার্মস, নেই বয়সসীমা

১৬

কালবেলায় প্রতিবেদন প্রকাশ / ভূমিদস্যু কামরুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ১০ আইনজীবীর আবেদন 

১৭

আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণে বাংলাদেশকে সহায়তা করতে চায় ভারত

১৮

ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনার মধ্যে / হঠাৎ ইরান সফরে উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধি দল

১৯

ল্যাবএইড হাসপাতালে চাকরির সুযোগ, ৪৫ বছরেও আবেদন

২০
*/ ?>
X