কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ০২ জুন ২০২৪, ০২:৫৯ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

ফুটপাত থেকে মাইক্রোসফটের প্রধান ডিজাইনার হওয়া তরুণীর গল্প

মাইক্রোসফটে চাকরি পাওয়া শাহিনা। ছবি : সংগৃহীত
মাইক্রোসফটে চাকরি পাওয়া শাহিনা। ছবি : সংগৃহীত

নিম্নবিত্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম তার। খেয়ে না খেয়ে দিন কেটেছে ফুটপাতে। বসবাস করেছেন বস্তিতে। জীবনযাপন করেছেন মানবেতর। অনেক সময় রাস্তায় শুয়েও থেকেছেন।

শুধু তাই নয়, অনেকবার যৌন হেনস্তারও শিকার হয়েছেন তিনি। এত কঠিন বাস্তবতার মাঝেও স্বপ্ন বুনতেন আকাশছোঁয়ার। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজেকে এতটাই বদলে ফেলেছিলেন যে, মাইক্রোসফটের মতো জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানগুলো তাকে চাকরির অফার করে বসে।

বলছিলাম ভারতের মুম্বাইয়ে জন্মগ্রহণ করা শাহিনা আতারওয়ালার কথা। তার সফলতার গল্পটা ভীষণ অনুপ্রেরণামূলক।

উত্তর প্রদেশ থেকে মুম্বাইয়ে এসে বান্দ্রা রেলওয়ে স্টেশনের কাছাকাছি দর্গা গলি বস্তিতে বসবাস শুরু করে শাহিনার পরিবার। তার বাবা ছিলেন হকার। তিনি ফেরি করে কখনো তেল আবার কখনো চুড়ি বিক্রি করতেন।

শাহিনা বলেন, ‘বস্তিতে বসবাস ছিল দুরূহ। সেখানে লিঙ্গবৈষম্য ছিল। প্রায়ই যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটত। তবে এসবই তাকে পড়াশোনায় অতি আগ্রহী করে তোলেছে। উন্নত জীবন গড়তে জ্বালানি হিসেবে কাজ করেছে।’

শাহিনা প্রথম কম্পিউটার চোখে দেখেন স্কুলে। এরপর থেকে তথ্যপ্রযুক্তির প্রতি তার কৌতূহল বেড়ে যায়। তিনি বিশ্বাস করতে শুরু করেন, কম্পিউটারই নারী-পুরুষের মাঝে সমতা আনতে পারে। যিনি এটির সামনে বসবেন, তারই ভাগ্য বদলে যাবে। তিনি অনেক সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি করতে পারবেন।’

তবে কম্পিউটার ক্লাস করার সুযোগ পেতেন না শাহিনা। কারণ, তার মেধাক্রম তেমন ছিল না। পরীক্ষায় ভালো নম্বর পেতেন না। তবুও তাকে দমিয়ে রাখা যায়নি। প্রযুক্তিতে ক্যারিয়ার গড়ার স্বপ্ন বাস্তবে রূপদান করেছেন তিনি।

স্থানীয় একটি স্কুলে কম্পিউটার ক্লাস করার জন্য বাবাকে ঋণ নিতে বাধ্য করেন শাহিনা। কিন্তু এরপরও অর্থের অভাবে মাঝপথে বন্ধ হয়ে যায় তার কম্পিউটার শেখা। অভাব এতই তীব্র হয় যে, ছোট ঘরে বেড়া দিয়ে থাকা সম্ভব না হওয়ায় চলে যেতে হয় ফুটপাতে। কিন্তু হার না মানা শাহিনা বিকল্প চিন্তা করে বসেন।

প্রতিদিন এক বেলা খাবার না খেয়ে এবং স্কুলে বাসের পরিবর্তে হেঁটে গিয়ে জমাতে শুরু করেন টাকা। সেই টাকায় আবারও ভর্তি হন কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এবং একটি কম্পিউটার কিনে বাড়িতে শুরু করেন কাজ।

স্কুলের পড়াশোনা শেষ করে মোম্বাইয়ে একটি কলেজে ভর্তি হন। সেখান থেকে বিকম পাস করেন। পাশাপাশি ডিপ্লোমা করেন ভিজুয়াল কমিনিকেশন অ্যান্ড ডিজাইন নিয়ে।

এরপর বিভিন্ন নামিদামি সংস্থা থেকে চাকরির অফার পেতে থাকেন শাহিনা। শেষ পর্যন্ত মাইক্রোসফটে চাকরি করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। বর্তমানে মাক্রোফটে প্রধান ইউএক্স ডিজাইনার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন এই মুসলিম তরুণী।

বস্তি ছেড়ে পরিবার নিয়ে বিলাসবহুল এক অ্যাপার্টমেন্টে উঠেছেন শাহিনা। তিনি বলেন, তার বাবা হকার ছিলেন, রাস্তায় শুয়ে থাকতে হতো। তবুও স্বপ্ন থেকে পিছপা হননি। সৌভাগ্য, কঠোর পরিশ্রম এবং প্রতিকূল পরিস্থিতির সঙ্গে যুদ্ধ করার মানসিকতাই তাকে জয়ী হতে সহায়তা করেছে। প্রায় ১ দশকের গ্লানি মুছে দিয়েছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

নারায়ণগঞ্জে সরকারি ৮টি-বেসরকারি অর্ধশতাধিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংসস্তূপ

প্যারিস অলিম্পিকে গুপ্তরচবৃত্তি

৬ জনের মত্যুর বিষয়ে তদন্ত করবে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশন

আপাতত বন্ধই থাকবে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে

পিছিয়ে পড়েও ভুটানের বিপক্ষে বড় জয় বাংলাদেশের

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক

বিদ্যুৎ লাইন মেরামত করতে গিয়ে প্রাণ গেল যুবকের

আমীর খসরুসহ কারাগারে ৩৯৬, রিমান্ডে ৩৩

সরকারি স্থাপনায় ভাঙচুর / সিসিটিভি ফুটেজ দেখে জড়িতদের ধরা হচ্ছে : হারুন

ঢাকা ছেড়ে পিটার হাসের আবেগঘন পোস্ট

১০

‘পশ্চিমা সাংবাদিকরা কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে অপপ্রচার চালিয়েছে’

১১

ফেসবুক, ইউটিউব ও টিকটককে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত

১২

সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের

১৩

দুষ্কৃতকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে : আইজিপি

১৪

ভিসা বন্ধের বিষয়ে কিছু জানায়নি আরব আমিরাত : প্রতিমন্ত্রী

১৫

কুমিল্লায় ৫ মামলায় গ্রেপ্তার ১৩৭

১৬

ঠাকুরগাঁওয়ে ২৫ বিএনপি নেতা গ্রেপ্তার

১৭

টাঙ্গাইলে নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার ১৫০

১৮

লক্ষ্মীপুরে ৩ দিনে বিএনপি-জামায়াতের ৪৪ জন গ্রেপ্তার

১৯

নাশকতায় জড়িতদের দ্রুত বিচারের দাবি ডিএনসিসি মেয়রের

২০
X