বগুড়া ব্যুরো
প্রকাশ : ২২ মে ২০২৪, ০৪:৩৪ এএম
আপডেট : ২২ মে ২০২৪, ০৭:১৪ এএম
অনলাইন সংস্করণ

বিনা টিকিটে ১২ বছর রেল ভ্রমণ, অতঃপর...

বগুড়া রেলওয়ের স্টেশনের সুপারিন্টেন্ডেন্টের কাছে বকেয়া টিকিটের মূল্য পরিশোধ করেন বেলাল উদ্দিন। ছবি : কালবেলা
বগুড়া রেলওয়ের স্টেশনের সুপারিন্টেন্ডেন্টের কাছে বকেয়া টিকিটের মূল্য পরিশোধ করেন বেলাল উদ্দিন। ছবি : কালবেলা

বগুড়ার সোনাতলা থেকে বগুড়া শহরে ১২ বছর ধরে বিনা টিকিটে রেল ভ্রমণ করেছেন এলজিইডির সাবেক উপসহকারী প্রকৌশলী বেলাল উদ্দিন (৬৪)। প্রায় ৫৪ বছর পর জীবনের শেষ বয়সে এসে অনুশোচনা থেকে টিকিটের মূল্য পরিশোধ করেছেন এই কর্মকর্তা।

মঙ্গলবার (২১ মে) দুপুরে বগুড়া রেলওয়ের স্টেশনের সুপারিন্টেন্ডেন্ট সাজেদুর রহমান সাজুর কাছে গিয়ে এ বকেয়া অর্থ পরিশোধ করেন তিনি। বাংলাদেশ রেলওয়ে বিভাগের কাছে টিকিটের মূল্য বাবদ বকেয়া সাত হাজার টাকা পরিশোধ করেছেন এই বৃদ্ধ।

বেলাল উদ্দিনের বাড়ি বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার সুজায়েত পাড়া গ্রামে। তবে বর্তমানে তিনি বগুড়া শহরের জহুরুলনগরে বসতবাড়ি করেছেন। বেলাল উদ্দিন বগুড়ার বিভিন্ন উপজেলায় এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী হিসেবে চাকরি করেছেন। সর্বশেষ তিনি কাহালু উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয়ে কর্মরত ছিলেন। সেখান থেকে ২০২০ সালে অবসরগ্রহণ করেন।

১০ বছর বয়সে সোনাতলা উপজেলা থেকে ট্রেনে চড়ে বগুড়া শহরে যান বেলাল উদ্দিন। এরপর থেকে বহু দিন ট্রেন ভ্রমণ করেছেন এই পথে। বগুড়া শহরে পড়ালেখা ও আত্মীয়স্বজনের বাড়ি হওয়ায় করতে হয়েছে ট্রেনে যাতায়াত। এই ভ্রমণগুলোর অধিকাংশ ছিল বিনা টিকিটে। যার সঠিক সংখ্যাও মনে নেই বেলাল উদ্দিনের। ওই সময় এটাকে স্বাভাবিক হিসেবেই মনে করতেন তিনি।

তবে বেলাল উদ্দিন বলেন, ডিপ্লোমা শেষে ১৯৮৩ সালে চাকরি শুরু করি। এর আগের ওই ১২ বছরে যদি সপ্তাহে দুবার যাতায়াত করে থাকি, সেই হিসেবে ৫২ সপ্তাহকে ১২ দিয়ে গুণ করেছি। আবার সেটাকে ২ দিয়ে গুণ করায় যা আসে সেটাকে ওই সময়ের ট্রেনের টিকিট মূল্য ৫ টাকা দিয়ে গুণ করে ৬ হাজার টাকার কিছু বেশি পরিমাণ পাওয়া গেছে। কিন্তু আমি সব মিলিয়ে ৭ হাজার টাকা পরিশোধ করেছি।

তিনি বলেন, একজন মুমিন বান্দা হিসেবে আমি বিবেকের কাছে দংশিত হই। মূলত আখিরাতের ভয় থেকেই আমি এই টাকাটা পরিশোধ করেছি। কারণ মৃত্যুর পর অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে। টাকা জমা দিতে পেরে আমার খুব ভালো লাগছে। আর এ কাজে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন আমার স্ত্রী।

এ বিষয়ে বগুড়া রেলওয়ের স্টেশন মাস্টার সাজেদুর রহমান সাজু বলেন, বিষয়টি ভালো লাগার। তার জমা দেওয়া টাকা সরকারি কোষাগারে জমা হবে। ট্রেন আমাদের জাতীয় সম্পদ। অনেকেই বিনা টিকিটে ট্রেনে ভ্রমণ করে থাকেন। এটা কোনোভাবেই উচিত না। মাঝেমধ্যে অনেকে বিবেকের তাড়নায় এ রকম টাকা পরিশোধ করে যান। এর সংখ্যা অবশ্য কম। এর আগে এক ভদ্রমহিলা ১০ টাকা জমা করেছেন।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

দেশে দেশে ঘুরে চুক্তি করে লাভ হবে না : খসরু 

রথযাত্রার দিন এইচএসসি পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তনের দাবি বিএসপির

মৌলভীবাজারে বন্যা, খাদ্য সংকটে বিপাকে মানুষ

সিলেটে বন্যা / পানিবন্দি ১০ লাখ মানুষ, আশ্রয়কেন্দ্রে পৌঁছায়নি পর্যাপ্ত ত্রাণ

স্ত্রীকে হত্যা করে মসজিদের সিঁড়ির নিচে লুকানো মুয়াজ্জিন আটক

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ 

শামিকে বিয়ে করছেন সানিয়া? কী বললেন টেনিস সুন্দরীর বাবা

বন্যা ও ভারি বর্ষণে শাবিপ্রবির ক্লাস-পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত

নোয়াখালীতে অপহরণের ১৩ দিন পর স্কুলছাত্রী উদ্ধার

বিশ্বনাথে বন্যা / উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আশ্রয় পায়নি অর্ধশত বানভাসী

১০

নয়াদিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীকে লালগালিচা অভ্যর্থনা

১১

কালবেলায় সংবাদ প্রকাশের পর বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের হল থেকে দুজন আটক

১২

হাঁড়িভাঙা আম দেখলেই মায়া লাগে : কৃষিমন্ত্রী

১৩

পাবনায় ‘ঢালারচর এক্সপ্রেস’ ট্রেনে কাটা পড়ে বৃদ্ধার মৃত্যু

১৪

ন্যাটোর পরবর্তী প্রধান হচ্ছেন মার্ক রুটে

১৫

বারবার কারা নির্যাতনেই মাখনের মৃত্যু, অভিযোগ রিজভীর

১৬

আকস্মিক বন্যায় ৭ লাখ ৭২ হাজারের বেশি শিশু ক্ষতিগ্রস্ত 

১৭

দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরির অপেক্ষায় দুই শতাধিক যানবাহন

১৮

আমেরিকা প্রবাসী মামার জন্য ছাগল কেনেন ইফাত

১৯

ইসরায়েলি গণমাধ্যমের বিশ্লেষণ / হামাসের সঙ্গে যুদ্ধে কি ইসরায়েল হেরে যাচ্ছে?

২০
X