কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ০৬ মে ২০২৪, ০৯:০৩ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

বুয়েটে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার দাবি নিয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের অবস্থান

ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার দাবিতে বুয়েটে র‍্যালি ও মানববন্ধন। ছবি : কালবেলা
ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার দাবিতে বুয়েটে র‍্যালি ও মানববন্ধন। ছবি : কালবেলা

যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার দাবি নিয়ে র‍্যালি ও মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বাংলাদেশ ও ফিলিস্তিনের পতাকা হাতে ইসরায়েলের হামলার সমালোচনার পাশাপাশি ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার দাবি করে শিক্ষার্থীরা।

সোমবার (৬ মে) সাধারণ শিক্ষার্থীরা এ কর্মসূচি পালন করে।

এ সময় বুয়েট শিক্ষার্থীদের হাতে থাকা ব্যানারে লেখা ছিল ‘মুক্ত করো ফিলিস্তিনকে’। সেই সঙ্গে এখনই যুদ্ধ বিরতির আহ্বান জানিয়েও প্লেকার্ড নিয়ে এই মানববন্ধনে দাঁড়ায় শিক্ষার্থীরা। মানুষ হিসেবে মানবিক দাবি নিয়ে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়াবার ঘোষণা প্রদান করে শিক্ষার্থীরা।

এ সংহতি প্রকাশের কারণ জানতে চাইলে মানববন্ধনে অবস্থান নেওয়া শিক্ষার্থীরা জানান, আমরা গত মাসজুড়ে দেখেছি ফিলিস্তিনের হাসপাতালকে লক্ষ্য করে ইসরায়েল হামলা চালিয়েছে। শুধু তাই নয়, ইসরায়েলের হামলায় নিহতদের একটি বড় অংশ শিশু ও নারী।

বাংলাদেশ তার স্বাধীনতা লাভ করার পথে এমনই এক গণহত্যা ও জাতিগত নিধনের মুখোমুখি হয়েছিল। আমাদের বাবা-মা ও দাদা-দাদিদের কাছ থেকে তার ভয়ংকর বর্ণনা আমরা শুনেছি। এখনো সেই ক্ষত চিহ্ন বয়ে নিয়ে যাচ্ছি আমরা। সেখানে ফিলিস্তিন গত প্রায় ৫ দশক ধরে এ ভয়ংকর অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এটা অমানবিক। এই অমানবিকতা দেখে নিশ্চিপ থাকার মতো নিষ্ঠুর কিছু হতে পারে না।

অপর এক শিক্ষার্থী জানান, এই অমানবিকতা দেখেই বিশ্বের অন্যান্য দেশের তরুণরাও ফিলিস্তিনের পক্ষে আওয়াজ তুলেছে। যুক্তরাষ্ট্রেও এর ব্যতিক্রম ঘটেনি। কিন্তু ফিলিস্তিনের পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের সাধারণ শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিলে তাদের ওপর নির্যাতন চালাবার কোনো যৌক্তিকতা আমরা দেখি না। একটি স্বাধীন দেশের নাগরিকের শান্তিপূর্ণ অবস্থান ও যে কোনো অমানবিক কার্যক্রমের প্রতিবাদ জানাবার অধিকার রয়েছে। সেখানে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের আক্রমণকে আমরা নিন্দা জানিয়ে তাদের সঙ্গেও সংহতি প্রকাশ করেছি। অন্ততপক্ষে তারা জানুক, বিশ্বে অপর প্রান্তের একটি দেশের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা তাদের কথা ভাবছে এবং তাদের পাশে রয়েছে।

গত বছর ৭ অক্টোবর থেকে এখন পর্যন্ত গাজায় প্রায় ৩৫ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। যেখানে নিহতের প্রায় ৬৫ শতাংশ নারী ও শিশু। এ ছাড়াও আহত হয়েছেন ৭৮ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

খাইটা বিক্রি হচ্ছে ওজনে!

ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে নেই ঈদ আনন্দ

চামড়া কেনাবেচায় সিন্ডিকেট করলে কঠোর ব্যবস্থা : ডিএমপি কমিশনার

হাট ঘুরে ক্রেতা-বিক্রেতাদের খোঁজ নিলেন মেয়র

রাতে ৬০ কিমি বেগে ঝড়ের আভাস, সতর্ক সংকেত

আগামী বিশ্বকাপের টিকিট কি পাবে পাকিস্তান-নিউজিল্যান্ড?

আমের কেজি ৩ লাখ টাকা, চাষ হচ্ছে বাংলাদেশে

সেন্টমার্টিন ইস্যু নিয়ে যা বললেন ফখরুল

পাখা ছাড়া ঘুমাতে পারে না জমিদার

ঈদ জামাতের জন্য প্রস্তুত শোলাকিয়া

১০

বাজারের প্রধান আকর্ষণ কালো পাহাড়

১১

ভাই হারালেন ডিপজল 

১২

সংবর্ধিত হলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শুসেন চন্দ্র শীল

১৩

সিলেটে পশুর হাটে কমছে না দাম, ক্রেতাদের অপেক্ষা

১৪

জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করবেন রাষ্ট্রপতি

১৫

ধাওয়া দিয়ে মাঝ নদীতে লঞ্চ থামালেন ম্যাজিস্ট্রেট

১৬

গাজীপুরে মহাসড়কে যাত্রীদের ঢল, ভোগান্তি চরমে

১৭

সিলেটে ১১ ট্রাক চিনি জব্দ

১৮

কোপায় ব্রাজিলের খেলা দেখবেন না রোনালদিনহো

১৯

বসত ঘর থেকে হ্যাপি গোল্ড ও কিং ফিসার মদ উদ্ধার

২০
X