কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৬:৩৩ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

১৪ অক্টোবর সোহরাওয়ার্দীতে মহাসমাবেশ করবে খেলাফত মজলিস

ডিআরইউ-তে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের। ছবি : কালবেলা
ডিআরইউ-তে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের। ছবি : কালবেলা

নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দেওয়াসহ ৮ দফা দাবিতে আগামী ১৪ অক্টোবর রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে খেলাফত মজলিস।

আজ শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন দলের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘আগামী ১৪ অক্টোবর সকালে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। আমরা মনে করি চলমান আর্থ-সামজিক ও রাজনৈতিক সংকট সমাধানে খেলাফত মজলিস ঘোষিত ৮ দফা দাবি বাস্তবায়ন দেশ-জাতির মুক্তির জন্য অপরিহার্য। বিশেষ করে দলনিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের ব্যবস্থা করার মধ্য দিয়ে একটি জনপ্রতিনিধিত্বশীল ও জবাবদিহিমূলক সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এ লক্ষ্যে আগামী ১৪ অক্টোবর ২০২৩ শনিবার সকাল ১০টায় ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মহাসমাবেশ শান্তিপূর্ণভাবে সফল করতে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি। একই সাথে জাতির বিবেক সাংবাদিক ও মিডিয়া কর্মীদের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।’

লিখিত বক্তব্যে আহমদ আবদুল কাদের বলেন, ‘আমরা দেশ ও জাতির এক সংকটময় মুহূর্তে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। বর্তমানে দেশের আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক সংকট ক্রমশ ঘণীভূত হচ্ছে। সীমাহীন দুর্নীতি, লুটপাট, অব্যবস্থাপনা ও বিদেশে অর্থ পাচারের কারণে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা খাদের কিনারে এসে দাঁড়িয়েছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে জনগণের নাভিশ্বাস উঠেছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ তলানিতে এসে ঠেকেছে। বিদেশি ঋণের বোঝা দিন দিন বেড়েই চলছে। শিক্ষা ও শিক্ষাঙ্গনের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক। অপসংস্কৃতির আগ্রাসনে আমাদের সাংস্কৃতিক অস্তিত্ব হুমকির মুখে। বেকার সমস্যা, মাদকাসক্তি, যুব সমাজের মাঝে হতাশা আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে। মানুষের জান মাল ও ইজ্জতের ন্যূনতম গ্যারান্টি নেই।’

তিনি বলেন, ‘কর্তৃত্ববাদী সরকারের দমন-পীড়নে রাজনৈতিক পরিস্থিতি ক্রমশ অস্থিতিশীল হচ্ছে। হত্যা-নির্যাতন, জেল-জুলুম, হামলা-মামলার মাধ্যমে বিরোধী রাজনৈতিক কার্যক্রমকে নিয়ন্ত্রিত বলয়ের মধ্যে আবদ্ধ করে ফেলা হয়েছে। বহু আলেম-ওলামাকে গ্রেপ্তার করে মামলা দিয়ে কারাগারে নিক্ষেপ করা হয়েছে। নাম পরিবর্তন করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে ঘষামাজা করলেও পুরোনো নিপীড়নমূলক ধারাগুলো এখনো রয়ে গেছে। এখনো এই আইনের অপপ্রয়োগের মাধ্যমে সাধারণ মানুষ, সাংবাদিক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে হরণ করা হচ্ছে। এমতাবস্থায় আগামী জাতীয় নির্বাচন স্বচ্ছ, অংশগ্রহণমূলকভাবে অনুষ্ঠিত হওয়া সম্ভব নয়। দেশের চলমান এই আর্থ-সামাজিক, শিক্ষা ও রাজনৈতিক সংকট নিরসনের লক্ষ্যে বিগত ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত গণসমাবেশে খেলাফত মজলিসের পক্ষ থেকে ৮ দফা জাতীয় দাবি পেশ করা হয়।’

খেলাফত মজলিসের ৮ দফা দাবি হচ্ছে-

১. দল নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের ব্যবস্থা করা: রাজনৈতিক সংকট উত্তরণে নির্বাচনের তিন মাস পূর্বে জাতীয় সংসদ ভেঙে দিয়ে দল নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন বা অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করে জাতীয় নির্বাচন দিতে হবে এবং নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে।

২. নির্বাচনে সবার জন্যে সমান সুযোগ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা: নির্বাচনে সবার জন্যে সমান সুযোগ ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ এবং পেশিশক্তি ও অর্থশক্তি মুক্ত নির্বাচনী পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।

৩. দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার বন্ধ রাখা: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার বন্ধ রাখতে হবে। নির্বাচনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পক্ষসমূহকে আস্থায় না নিয়ে নির্বাচন কমিশন বা সরকারের একক সিদ্ধান্তে ইভিএম ব্যবহার করা যাবে না ।

৪. গ্রেপ্তারকৃত আলেম উলামা ও রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহার করা: গ্রেপ্তারকৃত আলেম উলামা ও বিরোধী রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে এবং তাদের উপর দায়েরকৃত সমস্ত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।

৫. রাজনৈতিক সভা-সমাবেশের অবাধ সুযোগ নিশ্চিতকরণ: বিরোধী রাজনৈতিক দলসমূহকে সভা-সমাবেশ করার অবাধ সুযোগ দিতে হবে। বিরোধী দলসমুহের কর্মসূচিতে বাধাদান, হয়রানী, গ্রেপ্তার, মামলা, হামলা বন্ধ করতে হবে।

৬. পণ্যমূল্য কমিয়ে জনদুর্ভোগ লাঘব ও দুর্নীতি নির্মূল করা: জ্বালানি তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎ এবং খাদ্যদ্রব্য-সহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য কমিয়ে ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে এনে জনগণের দুর্ভোগ লাঘব করতে হবে এবং সাথে সাথে অর্থ পাচার রোধ ও বিদেশে পাচারকৃত অর্থ ফেরৎ আনা-সহ সর্বক্ষেত্রে দুর্নীতি নির্মূল করার কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

৭. বেকার সমস্যা সমাধান ও যোগ্যতার ভিত্তিতে সরকারি চাকরিতে নিয়োগ দান: দেশের বেকারত্ব দূর করার জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি-সহ সর্বাত্মক ব্যবস্থা অবলম্বনের পদক্ষেপ নিতে হবে এবং সকল প্রকার বৈষম্য দূর করে সব ধরনের সরকারি চাকরিতে যোগ্যতার ভিত্তিতে নিয়োগ দানের ব্যবস্থা করতে হবে।

৮. ধর্মীয় শিক্ষা সংকোচন নীতি বন্ধ ও বিতর্কিত পাঠ্যক্রম বাতিল করা: সাধারণ শিক্ষায় ধর্মীয় শিক্ষা সংকোচন নীতি বন্ধ করতে হবে এবং সকল বোর্ড পরীক্ষায় ধর্মীয় বিষয়কে আবশ্যকীয় বিষয় হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। শিক্ষার সর্বস্তরে ধর্মশিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করতে হবে। বর্তমান শিক্ষানীতির আলোকে প্রণীত স্কুল-মাদ্রাসার পাঠ্যপুস্তক থেকে ইসলামী চিন্তা-বিশ্বাসের সাথে সাংঘর্ষিক যাবতীয় বিষয় বাদ দিতে হবে। সমতা সৃষ্টির নামে সাধারণ পাঠ্য বইয়ের মাধ্যমে মাদ্রাসায় ইসলামী শিক্ষার মান ও পরিবেশ কোনোক্রমেই ক্ষুন্ন হতে দেওয়া যাবে না।

এসব দাবি আদায়ের লক্ষ্যে খেলাফত মজলিস গত ফেব্রুয়ারি-২০২৩ থেকে ঢাকাসহ দেশব্যাপী মহানগরী, জেলা, উপজেলায় বিক্ষোভ, মানববন্ধন, সভা-সমাবেশের কর্মসূচী পালন করছে। বিগত ১৩ জুলাই থেকে শুরু হয়ে ২৯ জুলাই-২০২৩ পর্যন্ত ঢাকা সহ সারারাদেশে ১০টি বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। গত আগস্ট জুড়ে দেশব্যাপী গণসংযোগ কর্মসূচি পালিত হয়। সেপ্টেম্বরব্যাপী সারাদেশে উপজেলা পর্যায়ে গণ-সমাবেশের কর্মসূচি চলমান রয়েছে।

খেলাফত মজলিসের আমির মাওলানা আব্দুল বাছিত আজাদের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নায়েবে আমির মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, যুগ্ম মহাসচিব মুহাম্মদ মুনতাসির আলী, ড. মোস্তাফিজুর রহমান ফয়সল, অধ্যাপক আবদুল জলিল, কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক আলহাজ্ব আবু সালেহীন, কেন্দ্রীয় প্রচার ও তথ্য সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুল হাফিজ খসরু, কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাহাব উদ্দিন আহমদ খন্দকার, মুফতি আবদুল হক আমিনী, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা আজিজুল হক, মহানগরী উত্তর সভাপতি সাইফ উদ্দিন আহমদ খন্দকার, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র মজলিস কেন্দ্রীয় সভাপতি বিলাল আহমদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য হাফেজ জিন্নাত আলী, ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, ঢাকা মহানগরী উত্তর সাধারণ সম্পাদক প্রিন্সিপাল মাওলানা আজিজুল হক, শ্রমিক মজলিস সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আমির আলী হাওলাদার, ইসলামী যুব মজলিস যুগ্ম সদস্য সচিব মাওলানা সোহাইল আহমদ প্রমুখ।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

‘গ্রামাঞ্চলে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত হলে অভ্যন্তরীণ মাইগ্রেশন প্রবণতা হ্রাস পাবে’

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও গল্ফহাউসের সমঝোতা চুক্তি

নির্বাচন শেষে পুলিশ-প্রিসাইডিং অফিসারের ওপর আ.লীগ নেতাদের হামলা

ছাত্র অধিকার পরিষদের কাউন্সিলের তারিখ ঘোষণা

বাল্কহেডের প্রতিযোগিতায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ১৫ গ্রাম

গাজার জন্য প্রস্তুত বোমায় যা লিখলেন নিকি হ্যালি

দেশকে নৈরাজ্যের পথে ঠেলে দেয়া হয়েছে : সাইফুল হক

শত বাধার পরও দক্ষিণ কোরিয়ায় মসজিদ বানানো কে এই কিম?

বাবার দেহাংশ শনাক্ত করতে ভিসার অপেক্ষায় এমপিকন্যা ডরিন

৬ লাখ ৭০ হাজার শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ খাওয়াবে ডিএসসিসি

১০

ব্যাটারি কারখানার বিষাক্ত বর্জ্যে ৮ গরু অসুস্থ

১১

রাজশাহীতে ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত ২

১২

মৌলভীবাজারের পানিবন্দি মানুষের পাশে এমপি জিল্লুর রহমান

১৩

কোথায় গেল দলছুট অসুস্থ হাতি

১৪

রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের জন্য ৭০ কোটি ডলার দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক

১৫

অসংখ্য আজিজ-বেনজীর তৈরি করেছে আ.লীগ : মির্জা ফখরুল

১৬

ব্যালটে সিল মেরে ধরা, এজেন্টকে ৬ মাসের কারাদণ্ড

১৭

ভোটের ২০ দিন পর পাওয়া গেল ২১০০ ব্যালট

১৮

জাতিসংঘের ওপর ক্ষোভ ঝাড়লেন এরদোয়ান

১৯

সংকট নিরসনে কর্মীদের প্রতি জামায়াত আমিরের নির্দেশনা

২০
X