বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
প্রকাশ : ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৭:৩৪ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

সরকারি কর্মকর্তাকে পেটানোর ঘটনা ৫০ হাজারে দফারফা

কনকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার। ছবি : কালবেলা
কনকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার। ছবি : কালবেলা

পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা কৃষি বিভাগের উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মো. আনছার উদ্দিনকে মারধর করার ঘটনা ৫০ হাজার টাকায় দফারফা হয়ে গেছে। এর আগে কনকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহিন হাওলাদারের বিরুদ্ধে ওই কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগ ওঠে। সোমবার (৪ ডিসেম্বর) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গণমাধ্যমের কাছে এমন অভিযোগ করেন উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা আনসার উদ্দিন।

উপজেলা প্রশাসনের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খান ও নাজিরপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইব্রাহিম ফারুকের মাধ্যমে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উপস্থিতিতে চিকিৎসা খরচ বাবদ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে বিষয়টি দফারফা করেন। এ বিষয়ে আনছার কোনো মামলা করবেন না উল্লেখ করে দফারফায় সিদ্ধান্ত হয়।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার বলেন, আমি আনসারকে মারধর করিনি তাই দফারফার কেনো প্রশ্নই আসে না। ৫০ হাজার টাকায় দফারফার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এমন কোনো বিষয় আমার জানা নেই।

এদিকে দফারফার বিষয় জানতে চাইলে ভুক্তভোগী উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মো. আনছার উদ্দিন বলেন, তারা আমাদের উপপরিচালককে (ডিডি) ফোন দিয়েছিলেন। শুনেছি জেলা প্রশাসকসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ডিডি বিষয়টা সমাধান করার দায়িত্ব দিয়েছেন। তারা বিষয়টা সমাধান করছেন। আমি তো ডিপার্টমেন্টে চাকরি করি, একা মামলা করে তার কিছুই করতে পারব না।

৫০ হাজার টাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমিও শুনেছি, আমাকে ইউএনও স্যার ফোন দিয়ে বলেছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. বশির গাজী বলেন, উপজেলা প্রশাসন বিষয়টা নিয়ে মামলা করতে চেয়েছে। ভুক্তভোগী কর্মকর্তা নিজেই মামলা করতে আগ্রহী নয়। মামলা করতে তার বিভাগীয় ডিডির অনুমতি নিতে হবে, এসব নানা কারণে তিনি মামলা করেননি।

তিনি আরও বলেন, চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার তাকে মারধরের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। টাকার বিনিময়ে দফারফার বিষয়ে আমার জানা নেই।

উল্লেখ্য, মারধরের ঘটনায় দৈনিক কালবেলা পত্রিকার অনলাইন ও প্রিন্ট সংস্করণে ‘সরকারি কর্মকর্তাকে পেটালেন ইউপি চেয়ারম্যান’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল। তখন তিনি গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, ২০২০ সালের একটি মামলা তুলে নেওয়ার জন্য কনকদিয়া ইউনিয়নের স্যার সলিমুল্লাহ স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে গত রোববার রাতে তাকে পিটিয়ে আহত করেন চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার। এ ছাড়াও মারধরের বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছিলেন ঘটনার একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

সাংবাদিক ও কবি তালাত মাহমুদ মারা গেছেন

যুক্তরাজ্যের বিরুদ্ধে আবারও ইয়েমেনিদের হুঁশিয়ারি

বাড়ির আঙিনায় ড্রেনের পানি, দুর্গন্ধ ও মশায় অতিষ্ঠ

পাহাড়ি হলুদের দাম দ্বিগুণেরও বেশি, তবু কেন এত কদর

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক ধ্রুপদী সংগীত সম্মেলন শুরু

১৩ জেলায় তীব্র ঝড় ও বজ্রসহ বৃষ্টির আশঙ্কা

ত্রিপুরা ভাষায় পাঠদান না থাকায় চট্টগ্রামে ঝরে পড়ছে শিক্ষার্থী

লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়কে বেড়েছে দুর্ঘটনা, ১৭ দিনে ঝরল ৭ প্রাণ

ওডেশায় রুশ ড্রোন হামলায় নিহত বেড়ে ১০

চার বিভাগে বজ্রসহ বৃষ্টির পূর্বাভাস

১০

৪ মার্চ : নামাজের সময়সূচি

১১

সোমবার রাজধানীর যেসব এলাকায় যাবেন না

১২

আজ ১৬ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না যেসব এলাকায়

১৩

নিয়মিত খেজুর খেলেই মিলবে উপকার

১৪

খাবার অযোগ্য চাল সরবরাহের অভিযোগ

১৫

ফোডেন জাদুতে ইউনাইটেডকে হারাল ম্যানসিটি

১৬

কোস্টগার্ডের অভিযানে ৯০ মণ জেলি পুশকৃত চিংড়ি জব্দ

১৭

শুস্ক মৌসুমে যমুনার ভাঙন, অর্ধ-শতাধিক বাড়িঘর বিলীন

১৮

রোহিঙ্গা শিবির থেকে আরসা সদস্য গ্রেপ্তার

১৯

কারামুক্ত ৬ শতাধিক নেতাকর্মীদের বরণ করল বিএনপি

২০
X