বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি
প্রকাশ : ১৯ মে ২০২৪, ০৪:২৪ এএম
আপডেট : ১৯ মে ২০২৪, ০৮:৫০ এএম
অনলাইন সংস্করণ

আপেল বাগান দেখতে প্রতিদিন শত শত মানুষের ভিড়

বীরগঞ্জের আপেল বাগান। ছবি : কালবেলা
বীরগঞ্জের আপেল বাগান। ছবি : কালবেলা

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে একটি বাগান কেন্দ্র করে এলাকাবাসী ও দর্শনার্থীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা গেছে। কারণ অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, এই অঞ্চলে প্রথমবারের মতো চাষ হচ্ছে আপেল। তাই প্রতিদিন দর্শনার্থীরা আপেল বাগান দেখতে এবং এই ফলের স্বাদ গ্রহণ করতেই ভিড় জমাচ্ছেন।

আর এই ব্যতিক্রমী বাগান করে এলাকায় ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন কৃষিবিদ ইমরুল আহসান। তিনি বীরগঞ্জ পৌর এলাকার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা। বর্তমানে তিনি দিনাজপুর হর্টিকালচার সেন্টারের সহকারী উদ্যান উন্নয়ন কর্মকর্তা ও নিজের গবেষণা প্রতিষ্ঠান তাসনিয়া অ্যাগ্রো রিসার্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সেন্টারের পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন।

উপজেলার সুজালপুর ইউনিয়নের বর্ষা গ্রামে অবস্থিত তাসনিয়া অ্যাগ্রো রিসার্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সেন্টারে তিনি কয়েক বছর হতে বিভিন্ন প্রজাতির বিদেশি আপেল চাষ ও গবেষণা করছেন। তার চাষ করা বিদেশি আপেলের নিবিড় পরিচর্যা ও গবেষণায় এ বছর ২৫টি গাছের মধ্যে ১২টি গাছে থোকায় থোকায় এসেছে। গত বছরে ২টি গাছে ৫০টির মতো ফল আসে। কিন্তু এ বছর তার বাগানে ১৫ শতাধিক ফল ধরেছে, সেই সঙ্গে ফলনও হয়েছে বাম্পার।

আপেল চাষ ও গবেষণায় তার প্রতিষ্ঠানে এই অঞ্চলের জন্য উপযোগী ৩টি জাত উৎপাদন করে সফল হয়েছেন। তার মধ্যে রয়েছে সামার রাম্বু, হরিমন ৯৯, আন্না, কাশমেরি। এই জাতগুলো ব্যাপকভাবে ফলন হয়েছে। ২০২১ সালের জুন মাসে আপেলের চারাগুলো রোপণ করেন। বর্তমানে গাছগুলোর বয়স ৩ বছর। প্রতিটি গাছের উচ্চতা ৮ থেকে ১০ ফুট।

তিনি জানান, দেশের অনুকূল আবহাওয়ায় আপেল চাষের জন্য তিনটি জাতে বেশকিছু হরমোনাল ট্রিটমেন্ট লাগে যেটা অনেকেই জানেন না, যার কারণে প্রচুর ফুল আসে কিন্তু ফল ধরে না, তাই আপেল ফল টেকানোর জন্য প্লানমাফিক সঠিক পুষ্টি উপাদান ও বেশকিছু হরমোনাল ট্রিটমেন্ট লাগে যার সঠিক মাত্রায় প্রয়োগ করতে পারলে এই অঞ্চলে আপেল উৎপাদন সম্ভব। প্রতিদিন অনেক মানুষ আপেল চাষ করার জন্য পরামর্শ নিচ্ছেন। তবে কেউ যদি আপেল চাষ করতে চায় তাহলে আমার পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

আপেল বাগান দেখতে আসা দর্শনার্থী সাদেকুল ইসলাম জানান, আপেল আমাদের দেশে চাষ করা সম্ভব তা আমার আগে জানা ছিল না, তাই সপরিবারে স্বচক্ষে দেখতে আসলাম সত্যিই আমি মুগ্ধ হয়ে গেছি। আমিও তার কাছে কয়েকটি জাতের আপেল চারা ক্রয় করে তার পরামর্শ নিয়ে আপেল চাষ করব।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ঈদ জামাতের জন্য প্রস্তুত শোলাকিয়া

বাজারের প্রধান আকর্ষণ কালো পাহাড়

ভাই হারালেন ডিপজল 

সংবর্ধিত হলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শুসেন চন্দ্র শীল

সিলেটে পশুর হাটে কমছে না দাম, ক্রেতাদের অপেক্ষা

জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করবেন রাষ্ট্রপতি

ধাওয়া দিয়ে মাঝ নদীতে লঞ্চ থামালেন ম্যাজিস্ট্রেট

গাজীপুরে মহাসড়কে যাত্রীদের ঢল, ভোগান্তি চরমে

সিলেটে ১১ ট্রাক চিনি জব্দ

কোপায় ব্রাজিলের খেলা দেখবেন না রোনালদিনহো

১০

বসত ঘর থেকে হ্যাপি গোল্ড ও কিং ফিসার মদ উদ্ধার

১১

মেয়াদ শেষেও বিমার টাকা দিচ্ছে না প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্স!

১২

কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে কোরবানির গরু

১৩

টঙ দোকানের আয়ে চলছে রতন বেগমের জীবনযুদ্ধ

১৪

উত্তরের মহাসড়কে গাড়ির পেছনে গাড়ি, নেই যানজট

১৫

তাসরিফের চোখে টিউমার ধরা পড়েছে

১৬

যত্রতত্র কোরবানি করে জায়গা নষ্ট না করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

১৭

বিয়ের পর হানিমুনে না গিয়ে হজে গেলেন দম্পতি

১৮

‘হেলমেট নাই, তেল নাই’

১৯

রাস্তায় বাঁধ দিয়ে মাছের ঘের, হুমকিতে শতাধিক পাকা সড়ক

২০
X