বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩১
কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ০৬ জুন ২০২৩, ০৫:৩১ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

খন্দকায় ক্লান্ত যাত্রা

বান্দরবানের পাহাড়ি পথ। ছবি : টি এইচ মাহির
বান্দরবানের পাহাড়ি পথ। ছবি : টি এইচ মাহির

এক দিন আগে আবার দাদুবাড়ি বান্দরবান এসেছি। বান্দরবানের ফাইতংয়ে। আজ সকাল সকাল ঠিক করলাম কোথাও হাঁটতে বের হব। যাই হোক, ফুফাতো ভাইয়ের সাথে আলোচনা করলাম। আমার ফুফাতো ভাই বলল মুরংপাড়ায় যাবে। যেই ভাবা সেই কাজ। সাথে যাবে আমার আরও দুই ভাই। মোট চারজন। সকাল সাড়ে ৯টা নাগাদ গ্রাম থেকে বেরিয়ে হাঁটা শুরু করলাম। পথে দু’তিনটে ইটভাটা পড়ল। গ্রাম ছেড়ে আমরা যত‌ই হাঁটছি তত জনশূন্য হয়ে পড়ছে আমাদের দুপাশে। বালুময় রাস্তা আর দুপাশে পাহাড়। যত‌ই এগুচ্ছি মনে হচ্ছে জঙ্গলে ঢুকে পড়েছি। কখনো পাহাড়ি ছড়া (ঝরনা থেকে আসা পানি) আবার কখনো পাথর, বালুমাখা রাস্তা।

অনেকক্ষণ হাঁটার পর একটা বাড়ির দেখা পেলাম। চাকমা বাড়ি। কিন্তু মনে হলো জনমানব শূন্য। বাড়ির উঠোনে গাছের ডালে ঝুলিয়ে রাখা আছে ঈগলের ডানা। যাই হোক আমরা কিছুক্ষণ থেমে আবার চলতে শুরু করলাম । এবার পথে পথে পাথর স্তূপ করে রাখা। এসব পাথর বিক্রি করার জন্য রেখেছে। গাড়ি এসে নিয়ে যাবে, ফুফাতো ভাই জানাল। পথে কয়েকটা পাহাড়ের মাটি দেখলাম পাথরে ঠাঁসা।

হাঁটতে হাঁটতে ক্লান্ত হয়ে পড়ছি। বারবার ফুফাতো ভাইকে জিজ্ঞেস করছি আর কতক্ষণ আছে মুরংপাড়ায় পৌঁছানোর। এদিকে আবার আমরা পানিও সঙ্গে করে নিয়ে আসিনি।

এভাবে হাঁটতে হাঁটতে আধ ঘণ্টা পর আমরা মুরংপাড়ার মসজিদ দেখতে পেলাম। সাধারণত মুরংরা অন্য ধর্মের হলেও এই পাড়ায় যারা থাকে তারা মুসলিম। মুরংপাড়ায় পৌঁছে আমরা কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিলাম। মসজিদটা দেখতে গেলাম। ভেতরে দরজা খুলে দেখি পোকামাকড়ের আবাস। যাই হোক, পানি খেয়ে আবার র‌ওনা দিলাম। হাতে ঘড়ি না থাকায় কয়টা বাজল তাও বলতে পারি না। তাই দ্রুত র‌ওনা দিলাম। ফুফাতো ভাই বলল, এবার শর্টকাট রাস্তা দিয়ে যা‌ওয়া যাক। আমিও সায় দিলাম।

কিছুদূর যাওয়ার পর বুঝতে পারলাম আমার এই সিদ্ধান্ত ভুল ছিল। কেননা আমরা বাড়ি ফিরতে যে পথ দিয়ে যাচ্ছি তা সম্পূর্ণ পাহাড়ের ওপর দিয়ে। কখনো উঁচু আবার কখনো নিচু। দুপাশে ঢালু। পাহাড়ের ওপর থেকে গ্রামগুলো স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। মুরংপাড়ায় তেমন একটা ঘরবাড়ি নেই বললেই চলে। বিদ্যুৎও এখানে পৌঁছায়নি। পাহাড়ের উঁচু-নিচু রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে আমরা যেমন ক্লান্ত হয়ে পড়ছি তেমনি বুকের হৃৎপিণ্ডের কম্পন বেড়েই চলছে। বারবার ক্লান্ত হয়ে বসে পড়ছি। মুখ দিয়ে লালা ঝরছে। গাছে গাছে ফলমূলের সন্ধান করতে লাগলাম। দুএকটা বর‌ই মুখে পুরে হাঁটতে শুরু করলাম। পাহাড়ের এই উঁচু-নিচু খেলা একসময় শেষ হলো। এবার হাঁটতে হাঁটতে পেলাম ছড়া। ছড়া পার হয়ে আমরা একটা চাকমাপাড়ায় এলাম। ক্লান্ত আমি কখন বাড়িতে পৌঁছাব সেই প্রতীক্ষাই করছিলাম। চাকমাপাড়া পার হয়ে যখন ইটভাটায় প্রবেশ করলাম তখন যেন ধড়ে পানি আসল। যাই হোক, আমাদের গ্রামে এসে একটা ঠান্ডা ক্লোল্ড ড্রিংক্স দিয়ে গলা ভেজালাম। তারপর মসজিদের ওজুখানায় হাত-মুখ ধুয়ে বাড়িতে র‌ওনা দিলাম।

যারা এ রকম পাহাড়ে ভ্রমণ করবেন সবসময় পানি সঙ্গে করে নিয়ে যাবেন। কারণ পাহাড়ের উঁচু-নিচু রাস্তায় ক্লান্তির রূপ ভয়ঙ্কর।

লেখক : টি এইচ মাহির।

শিক্ষার্থী

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

মোবাইল ও ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সূচকে পেছাল বাংলাদেশ

সিলেট বিমানবন্দরের উন্নয়ন কাজের গতি বাড়ানোর নির্দেশ মন্ত্রীর

বায়তুল মোকাররম এলাকায় মিটিং নিষিদ্ধের পাঁয়তারা সুখকর হবে না : চরমোনাই পীর

৬০ লাখ কর্মীকে বিদেশ পাঠাতে চায় সরকার

অফশোর গ্যাস উত্তোলনে বিদেশি বিনিয়োগ চান প্রধানমন্ত্রী

বাকস্বাধীনতা না থাকলে ভাষা থেকেও লাভ হয় না : আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী

‘ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানিতে অতিরিক্ত খরচ ১২ বিলিয়ন ডলার’

৪৫ এর কম এবং ৬৫ এর বেশি বয়সে ব্যাংকের এমডি পদ নয়

শাবিতে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত

বইমেলায় রাশিদুল হাসান বাচ্চুর ‘ওয়াকিং অন দি পাথ অব পোয়েট্রি’

১০

শেষ সময়ে বইমেলার নিরাপত্তায় ঢিলেঢালা

১১

বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল চান সাইফুল হক 

১২

জাবির দুই শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশ বাতিলের দাবি

১৩

শিশু চুরির মামলায় দুই নারীর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

১৪

বিআরটিসি যেন আর পিছিয়ে না যায় : তাজুল ইসলাম

১৫

ঢাবির নাটমণ্ডলে মঞ্চায়িত হচ্ছে থিয়েটার বিভাগের নাটক ‘সিদ্ধান্ত’

১৬

টিআইবির ফেলোশিপ পেলেন সাংবাদিক সজিবুর রহমান

১৭

রংপুরে এরিক ও বিদিশার ওপর হামলার অভিযোগ

১৮

বইমেলার সময় বাড়ল

১৯

রিহ্যাব নির্বাচনে ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের নিরঙ্কুশ জয়

২০
X