ড. মইনুল ইসলাম
প্রকাশ : ০৯ জুলাই ২০২৪, ০৫:১৩ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

বিপদের সম্মুখীন বাংলাদেশের অর্থনীতি?

ড. মইনুল ইসলাম
ড. মইনুল ইসলাম। ছবি : সৌজন্য
ড. মইনুল ইসলাম। ছবি : সৌজন্য

দুই বছর ধরে বাংলাদেশের অর্থনীতি যে কয়েকটি বড় সংকটে রয়েছে সেগুলো হলো : বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের বিপজ্জনক পতনের ধারা, অভ্যন্তরীণ অর্থনীতিতে বেলাগাম মূল্যস্ফীতির প্রকোপ, প্রবাসী বাংলাদেশীদের রেমিট্যান্স প্রেরণে গেড়ে বসা হুন্ডি ব্যবসার ক্রমবর্ধমান প্রভাবে ফর্মাল চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রবাহে স্থবিরতা, ডলার সংকটের কারণে আমদানি এল/সি খুলতে জটিলতা, বৈদেশিক মুদ্রা বাজারে হু হু করে ডলারের দাম বেড়ে ২০২১ সালের ৮৭ টাকা থেকে ২০২৪ সালের মে মাসে ১২৭ টাকায় উল্লম্ফন, বাংলাদেশি টাকার বৈদেশিক মানের প্রায় ৪৭ শতাংশ অবচয়ন, আমদানিতে ওভারইনভয়েসিং ও রফতানিতে আন্ডারইনভয়েসিং পদ্ধতিতে দেশ থেকে বিদেশে ব্যাপক পুঁজি পাচার, হুন্ডি পদ্ধতিতে দেশ থেকে বিদেশে ক্রমবর্ধমান ব্যাংকঋণ পাচার, খেলাপি ব্যাংকঋণ সমস্যার বিপজ্জনক অবনতি, রফতানি আয় দেশে ফেরত না এনে সেগুলো দিয়ে বিদেশে ঘরবাড়ি-ব্যবসাপাতি ক্রয়, দুর্নীতি, পুঁজি লুন্ঠন ও পুঁজি পাচার সম্পর্কে সরকারের অব্যাহত নিষ্ক্রিয়তা, দেশের ব্যালেন্স অব পেমেন্টসের কারেন্ট একাউন্টে ঘাটতি পরিস্থিতি, ব্যালেন্স অব পেমেন্টসের ফাইনেন্সিয়াল একাউন্টে ঘাটতি পরিস্থিতি এবং ২০২৩-২৪ অর্থবছরে বৈদেশিক প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়া।

আরেকটু বিস্তৃতভাবে কয়েকটি সংকটের বর্তমান ভয়াবহতা দেখুন

১) আইএমএফ এর নিয়ম অনুযায়ী ২০২৪ সালের মে মাসের শেষে বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার ‘গ্রস রিজার্ভ’ ১৯ বিলিয়ন ডলারে এবং নিট রিজার্ভ (ব্যয়যোগ্য) ১৩ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে। অথচ, ২০২১ সালের আগস্টে সরকারের দাবি অনুযায়ী গ্রস রিজার্ভ বেড়ে ৪৮.০৬ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছে গিয়েছিল। (আইএমএফ সরকারের এই দাবি মানেনি)। দৈনিক বণিক বার্তা গত ১৯ মে ২০২৪ তারিখে হেডলাইন করেছে যে দুই বছরে আমদানি ব্যয় ৪০ বিলিয়ন ডলার কমিয়েও রিজার্ভের পতন থামানো যায়নি।

২) ২০২১ সালের আগস্টে দেশে এক ডলারের দাম ছিল ৮৭ টাকা। গত দু’বছরে ডলারের দাম হু হু করে বেড়ে ২০২৪ সালের মে মাসে বাংলাদেশ ব্যাংক ‘ক্রলিং পেগ’ নীতি ঘোষণার পর দাঁড়িয়েছে ১২৭ টাকায়। এর মানে, এই দুই বছরে টাকার বৈদেশিক মান কমপক্ষে ৪৭ শতাংশ অবচয়নের শিকার হয়েছে। টাকার এহেন অবচয়নের কারণে ২০২৩-২৪ অর্থবছরে বাংলাদেশের জনগণের মাথাপিছু জিএনআই ডলারের অংকে গত বছরের ২৭৬৫ ডলার থেকে সামান্য বেড়ে ২৭৮৪ ডলারে পৌঁছেছে, অথচ টাকার অংকে মাথাপিছু জিএনআই বেড়েছে ১২ শতাংশ।

৩) কঠোরভাবে আমদানি নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে গত দুই বছর ধরে বাংলাদেশ ব্যাংক রিজার্ভের পতনকে থামাতে চেষ্টা করেও সফল হতে পারেনি, কারণ হুন্ডি ব্যবসা চাঙা হওয়ায় ফর্মাল চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ানো যাচ্ছে না। প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রেরিত রেমিট্যান্স গত ২০২০-২১ অর্থবছরের ২৪.৭৭ বিলিয়ন ডলার থেকে ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২১.৬১ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছিল। বর্তমান অর্থবছরের শেষে ফর্মাল চ্যানেলে রেমিট্যান্স হয়তো আবার ২৩ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে।

৪) কঠোরভাবে আমদানি নিয়ন্ত্রণের ফলে আমদানিকারকরা এলসি খুলতে গিয়ে এখনো হিমশিম খাচ্ছেন। অনেক আমদানিকারক বিভিন্ন ব্যাংকের কাছ থেকে ১৩০ টাকায় ডলার কিনে এলসি খুলছেন বলে পত্র-পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হয়েছে, যা দেশের মূল্যস্ফীতিতে ঘৃতাহুতির শামিল। অবশ্য, রফতানি আয়ের প্রবাহে প্রবৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় কিছুটা স্বস্তি মিলছে।

৫) আমদানির ওভারইনভয়েসিং, রফতানির আন্ডারইনভয়েসিং, রফতানি আয় দেশে ফেরত না আনা এবং হুন্ডি পদ্ধতিতে ব্যাংকঋণ বিদেশে পাচার--এই চারটি প্রধান অর্থ-পাচার প্রক্রিয়ায় দেশ থেকে প্রতি বছর প্রায় ১৫-১৬ বিলিয়ন ডলার বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে। সংখ্যায় এসব পুঁজিপাচারকারী কয়েক হাজারের বেশি হবে না। দুর্নীতিবাজ সিভিল আমলা, প্রকৌশলী, গার্মেন্টস ফ্যাক্টরির মালিক, বিত্তবান ব্যবসায়ী কিংবা মার্জিনখোর রাজনীতিবিদ হিসেবে বাংলাদেশের সমাজের উচ্চ-মধ্যবিত্ত, উচ্চ-বিত্তশালী ও ‘এলিট’ অংশে তাদের অবস্থান। তারা দেশের ব্যাংকিং সিস্টেমকে অপব্যবহার করে ব্যাংকঋণ নিয়ে তা বছরের পর বছর ফেরত না দিয়ে বিদেশে পাচার করে চলেছে। তারা ব্যাংকগুলোর ‘ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপি’ হিসেবে ঋণ-লুটপাটকারীর ভূমিকা পালন করছে। তারা রাজনীতিক পরিচয়ে হাজার হাজার কোটি টাকা লুন্ঠন করে বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণকারী। তারা ৫৩ বছরের স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশের ‘এক নম্বর সমস্যা’ দুর্নীতি ও পুঁজিলুণ্ঠনের মাধ্যমে অর্থ-বিত্তের মালিক হয়ে তাদের অবৈধ অর্থ বিদেশে পাচার করে কানাডার টরোন্টোর ‘বেগম পাড়া’ এবং মালয়েশিয়ার সেকেন্ড হোম বানাচ্ছে।

৬) আমাদের মূল্যস্ফীতির হার সরকারের দাবি মোতাবেকই এখনো ৯.৬ শতাংশে রয়ে গেছে! সাধারণ ক্রেতাদের অভিজ্ঞতা সাক্ষ্য দেবে যে প্রকৃতপক্ষে মূল্যস্ফীতির হার আরো অনেক বেশি। ভারত ও শ্রীলংকা মূল্যস্ফীতিকে ৫ শতাংশের নিচে নামিয়ে আনতে সফল হলেও আমাদের ব্যর্থতা এক্ষেত্রে ন্যক্কারজনক।

উপরে উলিস্নখিত সমস্যাগুলো বর্তমান শাসক মহলের ভুলের কারণেই সৃষ্ট। বিশেষত সাবেক অর্থমন্ত্রীর অদক্ষতা ও নিষ্ক্রিয়তার কারণে বেশিরভাগ সমস্যা গুরুতর আকার ধারণ করেছে। অবশ্য, আমাদের বর্তমান শাসনব্যবস্থাকে ‘একনায়কত্ব’ বলাই সমীচীন। আবার এটাকে জনাকয়েক ধনকুবের ব্যবসায়ীর ‘অলিগার্কি’ অভিহিত করলেও ভুল হবে না। উলিস্নখিত সমস্যাগুলো সমাধানের অযোগ্য কোন বিষয় নয়, কিন্তু সমস্যাগুলো অর্থনীতিকে মারাত্মকভাবে ভোগাচ্ছে। বিগত দিনগুলোতে সরকার খেলাপি ব্যাংকঋণ, পুঁজি পাচার, হুন্ডি পদ্ধতিতে রেমিট্যান্স প্রেরণ, দুর্নীতি দমন এবং স্বল্প-প্রয়োজনীয় মেগা-প্রকল্প গ্রহণের হিড়িকের ব্যাপারে যে ভুল অবস্থান গ্রহণ করে চলেছিল সেখান থেকে অবিলম্বে সরে আসতে হবে। উদাহরণ হিসেবে বলছি, ব্যাংকের প্রায় সাড়ে আঠার লক্ষ কোটি টাকা ঋণের মধ্যে ইতোমধ্যেই পাঁচ লক্ষ কোটি টাকারও বেশি খেলাপিঋণে পরিণত হলেও রাঘব বোয়াল ‘ইচ্ছাকৃত খেলাপিদের’ বিরম্নদ্ধে কার্যকরভাবে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ না করে নানারকম অযৌক্তিক ছাড় দিয়ে খেলাপিঋণ লুকিয়ে ফেলার সুবন্দোবস্ত করে চলেছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী, যার ফলে দেশের সুপরিচিত বড় বড় ঋণখেলাপি প্রায় সবাই এখন ঋণখেলাপির তালিকা থেকে নিজেদের নাম লুকিয়ে ফেলতে সমর্থ হয়েছে। গত পাঁচ বছরে খেলাপিঋণ পুনরুদ্ধারে বিন্দুমাত্র কোন সফলতা অর্জিত হয়নি। বরং, এই সমস্যা মোকাবিলার পরিবর্তে ব্যাংক মার্জার চাপিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে খেলাপিঋণের কারণে নিমজ্জমান ব্যাংকগুলোকে উদ্ধারের প্রয়াস নেয়া হয়েছে।

২০১৮ সাল থেকে বাংলাদেশ জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কাউন্সিল নির্ধারিত ‘স্বল্পোন্নত দেশের’ ক্যাটেগরি থেকে ‘উন্নয়নশীল দেশের’ ক্যাটেগরিতে উত্তরণের প্রক্রিয়া শুরু করেছে। ঐ প্রক্রিয়ার সফল পরিসমাপ্তির পর ২০২৬ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে পরিগণিত হবে। গত দু’দশক ধরে বাংলাদেশের জিডিপি’র প্রবৃদ্ধির হার ৫.৫ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৮.১৩ শতাংশে পৌঁছে গিয়েছিল। করোনা ভাইরাস মহামারির আঘাতে ২০১৯-২০ অর্থ-বছরে প্রবৃদ্ধির হার ৩.৮ শতাংশে নেমে গেলেও বাংলাদেশের মাথাপিছু জিএনআই ২০১৯ অর্থবছরের ১৯০৯ ডলার থেকে বেড়ে ২০২৩ সালের ৩০ জুন তারিখে ২৭৬৫ ডলারে এবং ২০২৪ সালের মে মাসে ২৭৮৪ ডলারে পৌঁছেছে বলে সরকার দাবি করছে।

এহেন সাফল্যের ধারাবাহিকতায় বর্তমানে অর্থনীতি যে স্বস্তিকর অবস্থানে থাকার কথা তার পরিবর্তে অর্থনীতিতে সংকট জটিল আকার ধারণ করা অস্বাভাবিক হলেও এই বাস্তবতাকে অস্বীকার করার জো নেই। জিডিপি প্রবৃদ্ধি বর্তমান ২০২৩-২৪ অর্থ-বছরে ৫.৮ শতাংশে নেমে যাবে বলে বিশ্বব্যাংক ঘোষণা করেছে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ২০২৩ সালের দুর্নীতির র্যাংকিং অনুযায়ী বাংলাদেশ আফগানিস্তানের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের র্যাংকিং অনুসারে ২০২৩ সালে বিশ্বের সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল খারাপের দিক্ থেকে ১০ নম্বরে। ২০১৮ ও ২০২৪ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে আওয়ামী লীগ দুর্নীতির ব্যাপারে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণের অঙ্গীকার করলেও সরকার এই অঙ্গীকার পূরণকে ‘বাত্ কা বাতে’ পর্যবসিত করেছে। হুন্ডি ডলারের চাহিদার দিক্ বিবেচনা করলে হুন্ডি প্রক্রিয়ায় বিদেশে পুঁজি পাচারের সাথে দুর্নীতির ওতপ্রোত সম্পর্ক রয়েছে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে সত্যিকারভাবে কঠোর না হলে পুঁজি পাচার দমন অসম্ভব। পুঁজি পাচার দমন না করলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পতন থামানো যাবে না।

অর্থনীতি বিপদে পড়ার আরেকটি বড় কারণ একের পর এক মেগা-প্রজেক্ট গ্রহণের খামখেয়ালি বাতিক্ ও হিড়িক। বাংলাদেশে গত এক দশকে অনেকগুলো মেগা-প্রজেক্ট বাস্তবায়িত হয়েছে কিংবা বাস্তবায়নাধীন রয়েছে যেগুলোর কয়েকটিকে স্বল্প-প্রয়োজনীয় অথবা অপ্রয়োজনীয় বলা চলে। ভাল ‘ফিজিবিলিটি স্টাডি’ ছাড়াই এসব প্রকল্প গৃহীত হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। চলমান প্রকল্পের মধ্যে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প, ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে যশোর এবং পায়রা বন্দর পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প, ঢাকা থেকে গাজীপুর পর্যন্ত বাস্তবায়নাধীন বিআরটি প্রকল্প এবং চট্টগ্রাম থেকে দোহাজারী হয়ে কক্সবাজার পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প ‘সাদা হাতি’ প্রকল্পের নিকৃষ্ট উদাহরণ। এখন আবার রূপপুরে দ্বিতীয় পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এবং দ্বিতীয় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ প্রকল্প গ্রহণের আয়োজন শুরু হয়ে গেছে। প্রয়োজনীয় প্রকল্প গ্রহণের পরিবর্তে যদি এহেন চটকদার ও স্বল্প-প্রয়োজনীয় প্রকল্প গৃহীত হতে থাকে তাহলে কয়েক বছরের মধ্যে শ্রীলংকার মত ঋণগ্রস্ততার ফাঁদে বাংলাদেশও পড়তে পারে। ইতোমধ্যেই বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ ১০০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এহেন ‘সাদা হাতি’ প্রকল্পগুলো যে ইতোমধ্যেই দেশের বৈদেশিক ঋণ পরিশোধকে বিপজ্জনক পর্যায়ে নিয়ে গেছে সেটা ওয়াকিবহাল মহলের অজানা নয়। ২০২৩-২৪ অর্থ-বছরের বাজেটে বৈদেশিক ঋণের সুদাসল পরিশোধ খাতে যে বরাদ্দ রাখা হয়েছে তার চাইতে এ-বছর প্রায় এক বিলিয়ন ডলার বেশি খরচ হবে এই খাতে। মেগা-প্রজেক্টগুলোর ঋণ পরিশোধের ‘গ্রেস-পিরিয়ড’ শেষ হলে আগামী অর্থ-বছরগুলোতে এই খাতে বরাদ্দ আরো অনেক দ্রুতগতিতে বাড়বে ২০৩০ সাল পর্যন্ত। সরকারের কর-জিডিপির অনুপাত যেখানে ৮ শতাংশে নেমে গেছে সেখানে ঋণ পরিশোধের জন্য দ্রুতবর্ধমান বাজেট-বরাদ্দ অশনি সংকেতের শামিল।

বাজেটকে সামনে রেখে আরেকটি বিষয়কে গুরুত্ব সহকারে উল্লেখ করতেই হবে, সেটা হলো ক্রমহ্রাসমান কর-জিডিপি অনুপাত। কর-জিডিপি অনুপাত কমতে কমতে ৮ শতাংশের কাছাকাছি এসে গেছে, যা দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বনিম্ন। কর-জিডিপি’র অনুপাত কমতে থাকায় বাজেটের ব্যয়-সংকুলানের জন্য সরকারী ঋণের বোঝা বাড়ছে। প্রত্যক্ষ করের অবদান কর-রাজস্বের এক-তৃতীয়াংশ, বাকি দুই-তৃতীয়াংশ আসে পরোক্ষ কর থেকে। এর মানে, দেশে করের মূল বোঝা বহন করে চলেছে সাধারণ জনগণ। সমাজের উচ্চবিত্ত গোষ্ঠি এদেশে দুর্নীতির মাধ্যমে কর ফাঁকি দেওয়ায় এতখানি পারঙ্গম রয়ে গেছে যে তারা ‘ন্যায্য করের বোঝা’ থেকে রেহাই পেয়েই চলেছে।

ড. মইনুল ইসলাম : সাবেক সভাপতি, বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি, একুশে পদকপ্রাপ্ত অর্থনীতিবিদ ও অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর, অর্থনীতি বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

[ নিবন্ধ, সাক্ষাৎকার, প্রতিক্রিয়া প্রভৃতিতে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। দৈনিক কালবেলার সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে নিবন্ধ ও সাক্ষাৎকারে প্রকাশিত মত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে। প্রকাশিত লেখাটির ব্যাখ্যা বা বিশ্লেষণ, তথ্য-উপাত্ত, রাজনৈতিক, আইনগতসহ যাবতীয় বিষয়ের দায়ভার লেখকের, দৈনিক কালবেলা কর্তৃপক্ষের নয়। ]
কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

বরিশালে পদবঞ্চিত যুবদল নেতাকর্মীদের আনন্দ মিছিল

মোটরসাইকেল চাপায় শিশু নিহত

তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের দাবিতে গণঅবস্থান

পিরোজপুরে ছেলের হাতে মা খুন

বগুড়ায় প্রাইভেটকার-ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২

মাদকের ২ হাজার টাকার জন্য শিশু অপহরণ, গ্রেপ্তার ৪

কর্ণফুলী পেপার মিলসে আগুন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফুটবল খেলা নিয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষ

মেসির সাথে আলোচিত সেই ছবি নিয়ে যা বললেন ইয়ামাল

উয়েফার নতুন ক্লাব র‌্যাঙ্কিং প্রকাশ, শীর্ষে কোন ক্লাব?

১০

সকাল ৯টার মধ্যে ঝড় শুরু হতে পারে রাজধানীসহ যেসব অঞ্চলে

১১

কোটা ইস্যুতে শাহবাগে এবার পাল্টা কর্মসূচি

১২

নেস্তোর লরেঞ্জো, আর্জেন্টাইনদের প্রিয় শত্রু

১৩

রাশিয়ায় যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত, সব আরোহী নিহত

১৪

হঠাৎ চাকরি ছাড়লেন ৬ বিসিএস ক্যাডার

১৫

চ্যানেল২৪’র অনুসন্ধান / ৪৬তম বিসিএসের প্রিলির প্রশ্নও ফাঁস হয়েছিল

১৬

গর্ভবতী ও নবজাতক মায়েদের জন্য টগুমগু

১৭

এবার জিআই পণ্যের স্বীকৃতি পেল গোপালগঞ্জের গয়না

১৮

কোটা সংস্কার আন্দোলন / রাজশাহীতে ৪ ঘণ্টা পর সারাদেশের রেল যোগাযোগ সচল

১৯

ফুটবল টুর্নামেন্টে সংঘর্ষ, আহত ২

২০
X