শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০
কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ০১ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৩২ এএম
আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩৭ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ
সেই দিনটি

হাসান হাফিজুর রহমান

মৃত্যুবার্ষিকী
হাসান হাফিজুর রহমান

হাসান হাফিজুর রহমান খ্যাতিমান বাঙালি সাংবাদিক, সাহিত্যিক ও সমালোচক। তিনি ১৯৩২ সালের ১৪ জুন জামালপুর শহরে মাতুলালয়ে জন্মগ্রহণ করেন। পৈতৃক নিবাস জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার কুলকান্দি গ্রামে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৫১ সালে বিএ এবং ১৯৫৫ সালে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন।

হাসান হাফিজুর রহমানের পেশাগত জীবন খুবই বৈচিত্র্যময়। ১৯৫২ সালে সাপ্তাহিক বেগম পত্রিকায় সহকারী সম্পাদক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। পরে সওগাত, ইত্তেহাদ, পাকিস্তান এবং স্বাধীনতার পর দৈনিক বাংলা পত্রিকায় কাজ করেন। ১৯৭২ সালের জানুয়ারি মাসে দৈনিক বাংলার সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি নির্বাচিত হন। এর মধ্যে ১৯৫৭ থেকে ১৯৬৪ পর্যন্ত দুবার তিনি জগন্নাথ কলেজে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিষয়ে অধ্যাপনা করেন। ১৯৭৩ সালে মস্কোয় বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রেস কাউন্সিলর নিযুক্ত হন এবং সোভিয়েত লেখক সঙ্ঘের আমন্ত্রণে আলমা আতায় অনুষ্ঠিত আফ্রো-এশীয় লেখক সম্মেলনে যোগদান করেন। ১৯৭৪ সালের ডিসেম্বরে দেশে প্রত্যাবর্তন করে সরকারের সংস্থাপন শাখায় যোগদান করেন এবং ১৯৭৮ সালে তথ্য ও বেতার মন্ত্রণালয়ের অধীন ‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস প্রকল্প’-এর পরিচালক নিযুক্ত হন।

হাসান হাফিজুর রহমানের সাহিত্যচর্চার শুরু ছাত্রজীবন থেকে। ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন এবং এ বছরই তার বিখ্যাত কবিতা ‘অমর একুশে’ রচিত হয়। ১৯৫৩ সালে তার সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় ভাষা আন্দোলনের ওপর প্রথম সংকলন গ্রন্থ একুশে ফেব্রুয়ারি। এ বছর ড্রামা সার্কেলের সভাপতি নির্বাচিত হন এবং মননশীল প্রবন্ধ ‘কবিতার বিষয়বস্তু’ ও ‘আধুনিক কবিতার লক্ষণ’ রচনা করেন। ১৯৫২ সালে কুমিল্লায় অনুষ্ঠিত পূর্ব পাকিস্তান সাংস্কৃতিক সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন এবং পাকিস্তান সাহিত্য সংসদ গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তিনি সাহিত্যপত্র সমকাল সম্পাদনায় সিকান্দার আবু জাফরের সহযোগী ছিলেন। ১৯৬৪ সালে সংস্কৃতি সংসদের সভাপতি নির্বাচিত হন। পাকিস্তানি শাসকচক্র কর্তৃক বাংলা বর্ণমালা ও বানান সংস্কার এবং পাকিস্তানের আদর্শ পরিপন্থি বলে রেডিও-টেলিভিশনে রবীন্দ্রসংগীত প্রচার বন্ধের ঘৃণ্য চক্রান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে অংশগ্রহণ করেন। হাসান হাফিজুর রহমান ব্যক্তিগত জীবনে ছিলেন একজন কমিউনিস্ট। বাঙালি জাতীয়তাবাদ ও বাঙালি সংস্কৃতির প্রতি ছিল তার আজীবন অনুরাগ। তিনি একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। পাকিস্তান আমলে তাদের নিয়ন্ত্রিত পত্রিকায় সাংবাদিকতা করলেও গণচেতনা ও গণদাবির প্রতি সর্বদা শ্রদ্ধাশীল ছিলেন। তার সাহিত্যকর্মে জনজীবনের প্রত্যাশা, যন্ত্রণা, প্রতিবাদ এবং মানুষের সংগ্রামী চেতনার প্রকাশ ঘটেছে। সমাজ ও জীবনের অঙ্গীকারে তার সাহিত্য হয়ে উঠেছে বাস্তবমুখী। বিভাগোত্তর পূর্ব বাংলায় আধুনিক কাব্যান্দোলনের যে উন্মেষ ঘটে, তার অন্যতম স্থপতি ছিলেন তিনি।

সাহিত্যে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ হাসান হাফিজুর রহমান পাকিস্তান লেখক সঙ্ঘ পুরস্কার ও আদমজী পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, সুফি মোতাহার হোসেন স্মৃতি পুরস্কার, অলক্ত সাহিত্য পুরস্কার, সওগাত সাহিত্য পুরস্কার ও নাসিরউদ্দীন স্বর্ণপদক এবং একুশে পদক (মরণোত্তর, ১৯৮৪) লাভ করেন। ১৯৮৩ সালের ১ এপ্রিল মারা যান খ্যাতিমান ব্যক্তিত্ব।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয় তালিকায় বুয়েটের অবস্থান কত?

আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

মুন্সীগঞ্জে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ২

আড্ডা দিচ্ছিলেন ছাত্রলীগ কর্মীরা, অতর্কিত হামলায় আহত ৪

চৈত্রসংক্রান্তি আজ

১৩ এপ্রিল : নামাজের সময়সূচি

দুদিন বন্ধের পর আজ থেকে মেট্রোরেল চালু 

মার্কিন ঘাঁটিতেও হামলার হুমকি ইরানের

বিমান থেকে সংকেত দেখেই দ্বীপ থেকে তিন নাবিককে উদ্ধার

বাস ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে দুই মাদ্রাসাছাত্র নিহত

১০

সৌদি আরবে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রাণ গেল বাংলাদেশির

১১

এবারই প্রথম স্বস্তিতে মানুষ ট্রেন ভ্রমণ করছেন : রেলমন্ত্রী

১২

খুলনায় ইজিবাইকের ধাক্কায় প্রাণ গেল শিশুর

১৩

দিনদুপুরে তরুণীকে নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল

১৪

ঈদে পর্যটকে মুখরিত মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত

১৫

‘বাঙালিত্বের সঙ্গে ধর্মের কোনো সংঘর্ষ নেই’

১৬

খুলনায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে আ.লীগের তিন নেতা গুরুতর আহত

১৭

সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়াল বান্দরবান প্রশাসন

১৮

ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা চরমে, মার্কিন রণতরীর অবস্থান পরিবর্তন

১৯

দুঃসংবাদ দিল আবহাওয়া অফিস

২০
*/ ?>
X