কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ২৮ মে ২০২৪, ০৯:০৩ পিএম
আপডেট : ২৮ মে ২০২৪, ০৯:৪৩ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

ইসলামী আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের যৌথসভা। ছবি : কালবেলা
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের যৌথসভা। ছবি : কালবেলা

এবার নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী শুক্রবার (৩১ মে) বাদ জুমা ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের উদ্যোগে ফিলিস্তিনে ইসরায়েল আক্রমণ ও হত্যাযজ্ঞ বন্ধ, স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা এবং বায়তুল মুকাদ্দাস মুক্ত করার দাবিতে বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে গণমিছিল হবে।

মঙ্গলবার (২৮ মে) দলটির এক যৌথসভায় এ ঘোষণা দেওয়া হয়। ঢাকায় পুরানা পল্টনে আইএবি মিলনায়তনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ও সহযোগী সংগঠনের যৌথ প্রস্তুতি এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এরইমধ্যে কর্মসূচি সফলে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে দলটি।

যৌথসভায় সভাপতির বক্তব্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেন, ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠায় এবং ইসরায়েলের বিরুদ্ধে মুসলিম দেশগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। দখলদার ইসরায়েল ফিলিস্তিনে বর্বর হামলা করে হাজার হাজার বেসামরিক নারী-পুরুষ-শিশু গণহত্যা করছে। পুরো গাজাকে একটি জেলখানায় পরিণত করে সেখানে ইতিহাসের জঘন্যতম নির্মমতা চালাচ্ছে। গত ৭-৮ মাসে প্রায় ৪০ হাজার ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে। আর এসবই হচ্ছে আমেরিকার মদদে।

তিনি বলেন, ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা তাদের ন্যায্য দাবি। মুসলমানদের প্রথম কেবলা বায়তুল মুকাদ্দাস অবরুদ্ধ করে রেখেছে। মুসলমানদের কেবলা মুসলমানদের কাছে ফিরিয়ে দিতে হবে। ইসরায়েলের বর্বরতা বন্ধে প্রয়োজনে সকল প্রকার সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে এবং ইসরায়েলি পণ্য বর্জন করে অর্থনীতির ওপর আঘাত করতে হবে। মুসলমান দেশগুলো ইচ্ছা করলে ফিলিস্তিনকে সময়ের ব্যবধানে মুক্ত করা সম্ভব। তিনি আরব দেশগুলোসহ মুসলিম দেশগুলোকে ফিলিস্তিন স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

ইসলামী আন্দোলনের মহাসচিব বলেন, ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে বৃহত্তম ও রাজনৈতিকভাবে সবচেয়ে প্রভাবশালী দেশ স্পেন ও আয়ারল্যান্ড। ২৭ জাতির ইইউর সদস্য সুইডেন, সাইপ্রাস, হাঙ্গেরি, চেক প্রজাতন্ত্র, পোল্যান্ড, স্লোভাকিয়া, রোমানিয়া ও বুলগেরিয়া এরই মধ্যে ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিয়েছে। মুসলিম দেশগুলোকেও অনুরূপ স্বীকৃতি এবং দাবি আদায়ে কার্যকর ভূমিকা পালনে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

যৌথসভায় উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, সহকারি মহাসচিব মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ, মাওলানা মুহাম্মদ ইমতিয়াজ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম আতিকুর রহমান, প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, দপ্তর সম্পাদক মাওলানা লোকমান হোসাইন জাফরী, মাওলানা নেছার উদ্দিন, মাওলানা এ বি এম জাকারিয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, আল্লামা মকবুল হোসাইন, মাওলানা খলিলুর রহমান, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাকী, অধ্যাপক নাসির উদ্দিন খান, মাওলানা আরিফুল ইসলাম ও আব্দুল আঊয়াল মজুমদার।

সহযোগী সংগঠনের নেতারা মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী যুবআন্দোলনের সহসভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আতিকুর রহমান মুজাহিদ, সেক্রেটারি মুফতি মানসুর আহমদ সাকী, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের সহসভাপতি হাফেজ মাওলানা ছিদ্দিকুর রহমান, এইচ এম রফিকুল ইসলাম, হাজি শাহাদাত হোসেন, হাজি শাহীন আহমদ, ইসলামী ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ইউসুফ মানসুর, ইমরান নূর, জাতীয় শিক্ষক ফোরাম, মুক্তিযোদ্ধা পরিষদের নেতারা, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সেক্রেটারি ডা. শহিদুল ইসলাম, কে এম শরীয়াতুল্লাহ, ঢাকা মহানগর উত্তর জয়েন্ট সেক্রেটারি মুফতি ফরিদুল ইসলাম।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

বগুড়ায় দুদকের মামলায় শ্রমিক লীগ নেতা হেলাল কারাগারে

‘ছাত্রলীগ নিয়ে বলার সাহস নেই, ইজ্জত থাকবে না’

শিল্পকলায় বাকশিল্পাঙ্গনের আয়োজনে ‘মঙ্গল সন্ধ্যা’ অনুষ্ঠিত

গরম নিয়ে আবহাওয়া অফিসের নতুন বার্তা

ইউরো ২০২৪ / ডাচদের হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই শেষ ষোলোতে অস্ট্রিয়া

সিলেটে ৮ লাখ টাকার চিনিসহ ট্রাক জব্দ

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি, বাড়ছে নানা রোগবালাই

জাবির সাবেক উপাচার্য মারা গেছেন

চিকিৎসকদের অবহেলায় সাপে কাটা রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ

খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনায় যুবদলের দোয়া মাহফিল

১০

ট্রাক্টরচাপায় প্রাণ গেল দুজনের

১১

চাঁদা চাওয়ায় কাস্টমসের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর মামলা

১২

এবার সিরাজগঞ্জে মিলল রাসেল ভাইপারের বাচ্চা, এলাকায় আতঙ্ক

১৩

এআইইউবি ও ফিলিস্তিনের শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

১৪

সিলেটে তরুণীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

১৫

১৫ লাখ টাকার একটি খাসি, কেড়ে নিল লাকীর হাসি

১৬

বিশ্বকে মহাবিপদ থেকে বাঁচাতে যে সতর্কবার্তা দিল তুরস্ক

১৭

হত্যা নাকি মৃত্যু, দেড় মাস পর কিশোরের লাশ উত্তোলন

১৮

কীসের বিনিময়ে মুক্তি পেলেন জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ?

১৯

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নৈশপ্রহরী হত্যা, দুজনের যাবজ্জীবন

২০
X