কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ২০ মে ২০২৪, ১১:৩২ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে আরবদের মুনাফেকি ও সুপার হিরোদের অবদান

আয়াতুল্লাহ খামেনি, আনোয়ার ইব্রাহিম ও রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান। ছবি : সংগৃহীত
আয়াতুল্লাহ খামেনি, আনোয়ার ইব্রাহিম ও রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান। ছবি : সংগৃহীত

নীড় হারা পাখিদের মতো ফিলিস্তিনি মানুষের কোনো ঘর নেই। দশকের পর দশক ইসরায়েলের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছে তারা। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত ফল আসছে না। এক্ষেত্রে কিছু আবর রাষ্ট্রের বিশ্বাসঘাতকতা অনেকাংশ দায়ী। ফিলিস্তিনিদের কাছে একদিকে কিছু আরব রাষ্ট্রের নেতারা বিশ্বাসঘাতক অন্যদিকে কিছু মুসলিম দেশের নেতারা সুপার হিরো। সুপার হিরোদের তালিকায় রয়েছেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহীম এবং পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট ইমরান খানসহ আরও অনেকেই।

ফিলিস্তিনে যখন ইসরায়েল অভিযান চালাচ্ছে, কারও কথায় পাত্তা না দিয়ে নির্বিচার শহরগুলো ধ্বংস করছে, তখন আরব দেশগুলো অর্থপূর্ণভাবে এগিয়ে আসছে না। তারা নিজেদের সংকীর্ণ স্বার্থ মাথায় রেখে প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে, কোনোভাবেই তারা নৈতিক অবস্থান থেকে প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে না। তার প্রমাণ হলো- ইসরায়েল এত অপরাধ করার পরও আরব দেশগুলো তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করছে না।

আরব দেশগুলোর এই আরচণের দুটি কারণ রয়েছে। প্রধান কারণ, আরব নেতারা ইসরায়েলের সামরিক ক্ষমতাকে ভয় পান; বিশেষ করে ইসরায়েল কার্যত একটি পারমাণবিক শক্তিধর দেশ হওয়ায় তাদের ভয়টা বেশি।

দ্বিতীয় কারণ হলো, এই শাসকেরা কোনোভাবেই পশ্চিমা শক্তিগুলোকে খেপিয়ে তুলতে চান না। এই শাসকেরা ভালো করেই বুঝতে পারেন, ইসরায়েল পশ্চিমাদের একটি সাম্রাজ্যবাদী সহচর। তাঁরা সবদিক হিসাব–নিকাশ করে এই সিদ্ধান্তে এসেছেন, যেহেতু তাঁরা মার্কিন শক্তির বিরুদ্ধে দাঁড়াতে পারবেন না, পশ্চিমাদের তালে তাল মেলালে অনেক আর্থিক লাভ হয়, সেহেতু পশ্চিমাদের কথার বাইরে না গিয়ে চলাই সবদিক থেকে নিরাপদ।

তবে এই স্রোতের বিপরীতে গিয়ে ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান, মালেশিয়ার প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহীমের মতো নেতারা। গাজা যুদ্ধকে কেন্দ্র করে তুরস্ক ইসরায়েলের ওপর সর্বাত্মক বাণিজ্য অবরোধ আরোপ করেছে। এরদোয়ান সরকার সাফ জানিয়ে দিয়েছে, ইসরায়েল গাজায় ত্রাণ পৌঁছানোর অনুমতি না দেওয়া পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা অব্যাহত থাকবে।

এই নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ইসরায়েল তুরস্কের ওপর পাল্টা নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। তুরস্কের নিষেধাজ্ঞা জারির পর কয়েক দিন যেতে যেতে না যেতেই ইসরায়েলের মন্ত্রিসভা রাফায় গাজার বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনিদের ওপর স্থল অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয়। এরপর ওআইসি ইসরায়েলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার আহ্বান জানায়। কিন্তু তা কার্যকর করতে সৌদি আরবসহ মুসলিম দেশগুলোর উদ্যোগ এখনো দেখা যাচ্ছে না।

তুরস্ক প্রথমবারের মতো একটি দেশের ওপর এত ব্যাপক অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্ত নিয়ে তা বাস্তবায়ন করেছে। দেশটির সব বন্দর ও বাণিজ্য এলাকা ইসরায়েলের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এরপর এরদোয়ান তুর্কি আকাশসীমা, দারদানেলিস এবং বসফরাস প্রণালিও বন্ধ করে দিতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এই পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করলে ইসরায়েলের জন্য একটি ঐতিহাসিক প্রশ্নের সূচনা এবং ‘অস্তিত্বগত সংকট’ সৃষ্টি হবে। শুধু তাই নয়, এরদোয়ান আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ফিলিস্তিনের পক্ষে অবদান রাখার পাশাপাশি হাজার হাজার হামাস যোদ্ধাকে তুরস্কে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন।

ফিলিস্তিদের জন্য লড়াই করছে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম শক্তিশালী দেশ ইরানও। দেশটি অস্ত্র, অর্থ দিয়ে ফিলিস্তিনিদের সাহায্য করার পাশাপাশি লেবাননের হিজবুল্লাহ, ইয়েমেনের হুথি এবং ইরাকের কাতায়েব হিজবুল্লাহকে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জড়িয়েছে।

বসে নেই মালয়েশিয়াও। দেশটির প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহিম ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস নেতাদের সঙ্গে সরাসরি দেখা করে সমর্থন জানিয়েছেন। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহিম কাতারে হামাসের রাজনৈতিক নেতা ইসমাইল হানিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করেন। স্থানীয় কয়েকটি মিডিয়া ওই ছবি প্রকাশ করলে ফেসবুক পোস্টগুলো সরিয়ে ফেলে। এতে ফিলিস্তিনিদের সোচ্চার সমর্থক মালয়েশিয়া সরকার এর তীব্র সমালোচনা করে।

মেটার কাছে পাঠানা এক চিঠিতে মালয়েশিয়া প্রধানমন্ত্রীর ছবিগুলো সরানোর ব্যাখ্যা দাবি করে এবং হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে যে, তাদের প্লাটফর্মে ফিলিস্তিনপন্থি কনটেন্ট ব্লক করা হলে তাদের মালয়েশিয়ায় শাস্তি পেতে হবে। এই হুঁশিয়ারির পর মেটার মুখপাত্র স্বীকার করেছেন, দুটি পোস্ট সরানো ছিল ভুল। সেগুলো আবার ফিরিয়ে আনা হয়েছে। এছাড়া কাতার এবং পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও ফিলিস্তিনিদের পক্ষে বেশ সোচ্চার।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

বগুড়ায় জোড়া খুন : প্রধান আসামির পিস্তলসহ গুলি জব্দ

বগুড়ায় দুদকের মামলায় শ্রমিক লীগ নেতা হেলাল কারাগারে

‘ছাত্রলীগ নিয়ে বলার সাহস নেই, ইজ্জত থাকবে না’

শিল্পকলায় বাকশিল্পাঙ্গনের আয়োজনে ‘মঙ্গল সন্ধ্যা’ অনুষ্ঠিত

গরম নিয়ে আবহাওয়া অফিসের নতুন বার্তা

ইউরো ২০২৪ / ডাচদের হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই শেষ ষোলোতে অস্ট্রিয়া

সিলেটে ৮ লাখ টাকার চিনিসহ ট্রাক জব্দ

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি, বাড়ছে নানা রোগবালাই

জাবির সাবেক উপাচার্য মারা গেছেন

চিকিৎসকদের অবহেলায় সাপে কাটা রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ

১০

খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনায় যুবদলের দোয়া মাহফিল

১১

ট্রাক্টরচাপায় প্রাণ গেল দুজনের

১২

চাঁদা চাওয়ায় কাস্টমসের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর মামলা

১৩

এবার সিরাজগঞ্জে মিলল রাসেল ভাইপারের বাচ্চা, এলাকায় আতঙ্ক

১৪

এআইইউবি ও ফিলিস্তিনের শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

১৫

সিলেটে তরুণীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

১৬

১৫ লাখ টাকার একটি খাসি, কেড়ে নিল লাকীর হাসি

১৭

বিশ্বকে মহাবিপদ থেকে বাঁচাতে যে সতর্কবার্তা দিল তুরস্ক

১৮

হত্যা নাকি মৃত্যু, দেড় মাস পর কিশোরের লাশ উত্তোলন

১৯

কীসের বিনিময়ে মুক্তি পেলেন জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ?

২০
X