রবিউল আওয়াল পারভেজ, শিক্ষার্থী
প্রকাশ : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০২:৩০ এএম
আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৮:৫৩ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ
চারদিক

ধর্ষণের প্রতিকার হবে কীভাবে

প্রতীকী ছবি
প্রতীকী ছবি

গণমাধ্যমগুলোতে দৃষ্টিপাত করলে প্রায় চোখের সামনে ভেসে ওঠে ধর্ষণের খবর। আমরা নারীর ক্ষমতায়নের কথা বলি, নারীর অধিকারের কথা বলি। তবে যে দেশে নারীর সুরক্ষা আমরা এখনো নিশ্চিত করতে পারিনি সেখানে নারীর ক্ষমতায়, নারীর অধিকার ইত্যাকার বিষয়গুলো কতটুকু বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়েছে বা ভবিষ্যতে হবে তা প্রশ্নসাপেক্ষ।

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সারা দেশে ২০২৩ সালে ৫৭৩ নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ধর্ষণচেষ্টার শিকার হয় ১০৯ জন। এ ছাড়া ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হয় কমপক্ষে ৪৮৪ শিশু। ধর্ষণের শিকার হয়ে অনেক নারী করেছে আত্মহত্যা আবার অনেককে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। এই তো গেল পরিসংখ্যানের কথা, তবে দেশব্যাপী আরও বহুসংখ্যক নারী ও শিশুর ধর্ষিত হয়েও লোকলজ্জা, ভয়সহ নানা কারণে তা প্রকাশ করেনি। বোধকরি, এ সংখ্যাটি পরিসংখ্যানে বেরিয়ে আসা সংখ্যার চেয়ে ছোট হবে না। কেন এই ধর্ষণ? কেনইবা এমন ঘৃণ্য অপরাধ করে তারা? নেপথ্যে কি শুধুই বিকৃত যৌন লালসা?

বিখ্যাত ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট নিকোলাস গ্রোথ মার্কিন জার্নাল অব সাইকিয়াট্রিতে বলেন, ক্ষমতা প্রদর্শন, ক্রোধ ও যৌনতা বেশিরভাগ ধর্ষণের মূল কারণ। আমাদের সমাজে অনেক পুরুষ নিজেদের এমনই জাহির করতে গিয়ে মূলত পৈশাচিক কাজে লিপ্ত হয়। আবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ধর্ষণের তিনটি কারণ উল্লেখ করে। তার মধ্যে একটি পুরুষরা যৌন সুবিধা পাবেই, এমন মনোভাব লালন করা। সমাজই মূলত এমন ভাবনার উৎস। যে হারে ধর্ষণ বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে বোঝাই যায়, বিকৃত যৌন চাহিদা এবং এমন কর্তৃত্বমূলক চিন্তা-চেতনা সমাজে রয়েছেই; সেইসঙ্গে তা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। এ ছাড়া ধর্ষণের বিচারকার্যে দীর্ঘসূত্রতাসহ নানা জটিলতা এমন ঘৃণ্য কাজকে আরও উসকে দিচ্ছে।

অসুস্থ বিনোদনও ধর্ষণের নিয়ামক হিসেবে কাজ করে থাকে। বিআইএসআর ট্রাস্টের এক গবেষণায় ১১৯ জন ধর্ষণের শিকার হওয়া নারী বা তাদের পরিবারের সদস্য এবং বিশেষজ্ঞ ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়। গবেষণা ফলাফলে তারা ধর্ষণের কারণ হিসেবে নিম্নলিখিত বিষয়গুলো উল্লেখ করেছেন—

কথিত প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ বা ক্ষোভ থেকে অপরাধীর প্রতিশোধপরায়ণতা (৪০ শতাংশ), অপরাধীর মাদকাসক্তি (৩০ শতাংশ), অপরাধীর মনস্তাত্ত্বিক সমস্যা (২৮ শতাংশ), ক্ষমতা প্রদর্শন (২১ শতাংশ), পরকীয়া (২০ শতাংশ), রাজনৈতিক কারণ (১৬ শতাংশ), পূর্বশত্রুতা ও সম্পত্তি-সংক্রান্ত দ্বন্দ্ব এবং অন্যান্য। স্পষ্টতই বোঝা যাচ্ছে, বর্তমান সময়ে ধর্ষণ আমাদের অন্যতম প্রধান একটি জাতীয় সমস্যা। তাহলে এর প্রতিকার কী? এর প্রতিকারে আমাদের দেশ ও সমাজে বেশ কিছু সংস্কার আনয়ন দরকার। এটি স্বল্পসময়ে সম্ভব নয়, এটি দীর্ঘ সময়সাপেক্ষ বিষয়।

ধর্ষণ নিয়ে আমাদের সমাজের বদ্ধমূল ধারণা হলো এটি ভুক্তভোগী ও তার পরিবারের জন্য সম্মানহানিকর। ফলে অনেকে ধর্ষণের শিকার হয়েও মুখ খোলেন না। প্রথমত এ ধারণার পরিবর্তন করতে হবে। দার্শনিক মিশেল ফুকো বলেন, ধর্ষণকে যৌনতা থেকে আলাদা করে একটি ভায়োলেন্ট অপরাধ হিসেবে গণ্য করতে হবে। সমাজে এ দর্শন প্রতিষ্ঠা করতে পারলে ভিকটিমসহ সমাজের সর্বস্তরের মানুষ ধর্ষণকে লজ্জাকর, সম্মানহানিকর ইত্যাদি ভাবনা থেকে বিরত রাখতে পারবে। ধর্ষণসহ অনেক অপরাধীরই বিচারকার্যে দীর্ঘসূত্রতাসহ নানা জটিলতা রয়েছে। এ জায়গায় সংস্কার আনয়ন করা দরকার। যাতে করে ধর্ষণে উদ্ধত হওয়ার আগে একজন ব্যক্তির শাস্তির বিষয়টি মাথায় আসে। সরকারকে দেশব্যাপী যেসব ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা রয়েছে সেগুলোকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাধ্যমে সুরক্ষিত রাখতে হবে। সেইসঙ্গে মেয়েদের আত্মরক্ষার প্রশিক্ষণ দেওয়ার পাশাপাশি নানা সচেতনতামূলক পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে এবং তার বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। এ সমস্যাটিকে সমূলে উৎপাটনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করতে হবে পরিবারকে। কারণ আইন করে অপরাধ কিছুটা নিয়ন্ত্রণ করা যায়; একেবারে নিঃশেষ করা যায় না। সেটি করতে প্রয়োজন মানুষের চিন্তাগত পরিবর্তনের।

সম্প্রতি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। ধর্ষণকারীরা যে দল, মতেরই হোক তারা ঘৃণ্য অপরাধী এটিই তাদের সবচেয়ে বড় পরিচয়। আমরা সবাই ওই ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

রবিউল আওয়াল পারভেজ, শিক্ষার্থী

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা, জবি

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ইউটিউব দেখে বিমান বানিয়ে তাক লাগালেন আলমগীর

ডিএসসিসিতে নিয়োগ, এইচএসসি পাসেই আবেদন 

মিশিগানে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল বাংলাদেশি বাবা-মেয়ের

মডেল মৌকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’

দুর্ভিক্ষ থেকে মাত্র এক ধাপ দূরে গাজার ৬ লাখ মানুষ : জাতিসংঘ

অজানা রোগে ৪ দিনে ৮ গরুর মৃত্যু

এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস, কারাগারে দুই শিক্ষক

ফরাসি অভিনেতার বাড়িতে মিলল ৭২টি বন্দুক

সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্যদের শপথ বিকেলে

১০

নিলাম ছাড়াই সরকারি ব্যারাকের ঘর ভেঙে নিলেন ইউপি সদস্য

১১

ঢাকা আইনজীবী সমিতির ভোটগ্রহণ শুরু 

১২

মৌলভীবাজারে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত

১৩

নিয়োগ দিচ্ছে মেঘনা গ্রুপ

১৪

তামিম নাকি সাকিব, ফাইনালে খেলবে কে

১৫

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে ৭টি পদে নেবে ১৮১ জন 

১৬

ব্রিজ থেকে নদীতে পড়ল বাস, নিহত ৩১

১৭

লিপ ইয়ার নিয়ে যেসব তথ্য জানলে অবাক হবেন

১৮

আমের মুকুলে মিষ্টি সুবাস

১৯

ঢাকার যেসব এলাকায় আজ ১৫ ঘণ্টা গ্যাস থাকছে না 

২০
X