এনায়েত শাওন
প্রকাশ : ০১ আগস্ট ২০২৩, ০২:২৮ এএম
আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২৩, ০৭:৪৯ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ
হুঁশিয়ারি উপেক্ষা

আ.লীগের অনুষ্ঠানে ব্যানার বিড়ম্বনা

আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের প্রতিটি সমাবেশ কিংবা আলোচনা সভা, সবখানেই ব্যানারে ব্যানারে ছেয়ে যায় অনুষ্ঠানস্থল। মিছিল সহকারে সমাবেশস্থলে এসে ব্যানার গুটিয়ে ফেলার নির্দেশনা দেওয়া হলেও কেউ শোনে না কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ বা মহানগর কিংবা সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের কথা। প্রতিটি সমাবেশ ও আলোচনা সভাতেই ব্যানার নামিয়ে ফেলতে অনুরোধ ও হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করায় বিড়ম্বনায় পড়তে হয় দলের শীর্ষ নেতাদের।

এসব সমাবেশ ও আলোচনা সভায় আসা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ড শাখা এবং সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পদপ্রত্যাশীদের বারবার অনুরোধ এমনকি বহিষ্কারের হুমকি দিলেও ব্যানারধারীরা নির্দেশ মানে না। সমাবেশে অসহায়ত্ব প্রকাশ করতেও দেখা যায় নেতাদের। সভা ও সমাবেশে বিরক্তি প্রকাশ করলেও নেওয়া হয় না কোনো সাংগঠনিক ব্যবস্থা, নেই কোনো সচেতনতামূলক কর্মসূচি।

সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সমাবেশগুলোতে বিভিন্ন শাখাগুলোর নেতাকর্মীরা মিছিলসহকারে ব্যানার নিয়ে আসেন। সমাবেশস্থলে উপস্থিত হওয়ার পর মঞ্চের সবচেয়ে কাছেও ব্যানার উঁচিয়ে অবস্থান করেন। মঞ্চ থেকে দলের নেতারা অনুরোধ ও হুমকিতে ব্যানার একবার গুটিয়ে ফেললেও কিছুক্ষণ পর আবারও ব্যানার প্রদর্শন করতে দেখা গেছে।

গত শুক্রবার আওয়ামী লীগের তিন সহযোগী সংগঠন যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের শান্তি সমাবেশেও একই বিড়ম্বনায় পড়েন কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতারা। অন্তত দশজন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা উপর্যুপরি নিষেধ, অনুরোধ ও অসহায়ত্ব প্রকাশ করলেও কেউ শোনেনি তাদের কথা। একপর্যায়ে নেতারা ব্যানার গুটিয়ে ফেলা নিয়ে অনুরোধ করা বন্ধ করে দেন। এ ধরনের চিত্র এখন নিত্যনৈমিত্তিক বিষয়। সেই শান্তি সমাবেশে বক্তব্যের শুরুতে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এক সদস্য বলেন, সবাই বসেন, ব্যানার নামান। সব ব্যানার নামবে এক্ষুনি। তবু কাউকে ব্যানার গুটিয়ে ফেলতে দেখা যায়নি। বরং নতুন করে অনেক শাখা ব্যানার উঁচিয়ে ধরে রাখতে দেখা গেছে। বক্তব্য প্রদানকালে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুর রহমান বলেন, আমি একটা অনুরোধ করি, এই পল্টনে আরেকটা সমাবেশ হচ্ছে, কিন্তু আপনাদের ব্যানারের কারণে এই জনসমুদ্র যদি ঢেকে যায়, কালকের ছবিতে যদি এই সভা ম্লান হয়ে যায় তবে আপনাদের এই ব্যানারের কী মূল্য আছে? এ প্রসঙ্গে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল কালবেলাকে বলেন, কষ্ট করে মিছিল নিয়ে আসে, আবেগের বিষয় জড়িত, এ জন্য তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। তবে দলের বর্ধিত সভায় এ বিষয়ে দলের নেতাকর্মীদের সচেতন করা হবে।

অন্য দলীয় কর্মসূচিতেও দলের শীর্ষ নেতাদের একই ধরনের হুমকি ও অনুরোধ করতে দেখা গেছে। এমনকি দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও বিভিন্ন সমাবেশের ব্যানার উঁচিয়ে রাখা নিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করেছেন। জানুয়ারিতে এক অনুষ্ঠানে ব্যানার না নামালে বক্তব্য না দিয়ে চলে যাওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন তিনি। গত ১২ জুলাই ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের শান্তি সমাবেশেও তিনি ব্যানার নিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করেন।

জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সুস্পষ্ট নির্দেশনা দেওয়া উচিত। সচেতন করার জন্য কার্যক্রম গ্রহণ করা উচিত।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

একটি হুইল চেয়ারের আকুতি প্রতিবন্ধী সিয়ামের

ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে চবিতে ফুলের দাম বেড়েছে ৩ গুন

সীমান্তে শেষবারের মতো বোনের লাশ দেখলো স্বজনেরা

‘উদ্যোক্তা তৈরির মাধ্যমে কর্মসংস্থান তৈরি করতে চাই’-প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

‘ডাল ভাত খেয়েও যুদ্ধ করতে পারি’

ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

কোম্পানি রিটার্নের মেয়াদ ২ মাস বাড়ানোর দাবি এফবিসিসিআইর

ন্যায্যতা সম্পর্কিত সংসদীয় ককাস / উন্নয়নমূলক পদক্ষেপে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার আহ্বান 

এমপিদের থোক বরাদ্দের আগে জবাবদিহিতা নিশ্চিতের দাবি টিআইবির

চাকরি গেল জাবির আলোচিত সেই শিক্ষকের

১০

পঞ্চগড়ে বন্যহাতির আক্রমণে যুবক নিহত

১১

অনলাইনে ভিডিও দেখে গামছা বিক্রেতার ছেলের মেডিকেলে চান্স

১২

বাড়ছে বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম

১৩

‘দুই-তিনটা লাশ ফেলে দেব’- ছাত্রলীগ নেতার হুমকি

১৪

বোরকা পরে বোনের পরীক্ষা দিতে এসে আটক ভাই

১৫

ভক্তদের বিরাট-আনুশকার সুখবর

১৬

নতুন এমপিওভুক্ত মাদ্রাসায় রমরমা ‘ব্যাকডেট’ নিয়োগ বাণিজ্য

১৭

রাসেল ঝড়ে রংপুরকে হারাল কুমিল্লা

১৮

উত্তর বলে দেয় নাবিলা, খাতায় লিখে রহিমা

১৯

বৈজ্ঞানিক সেমিনারে বিশেষজ্ঞরা / শিরায় রক্ত জমাট মৃত্যুঝুঁকি বাড়াচ্ছে

২০
X