কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ০৮ জুন ২০২৩, ০১:০১ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

ভাতা না বাড়ালে কর্মবিরতির হুঁশিয়ারি বেসরকারি প্রশিক্ষণার্থী চিকিৎসকদের

জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন
জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন

বর্তমান বাজারমূল্যের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে মাসিক ভাতা বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছেন বেসরকারি পোস্টগ্র্যাজুয়েট প্রশিক্ষণার্থী চিকিৎসকরা। তারা বলেন, বর্তমান মাসিক ভাতা ২০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৫০ হাজার টাকা নির্ধারণ করতে হবে। আগামী ১২ জুনের মধ্যে এ দাবি না মানলে ১৩ জুন থেকে সারা দেশে একযোগে কর্মবিরতিতে যাবেন প্রায় সাড়ে সাত হাজার বেসরকারি পোস্টগ্র্যাজুয়েট প্রশিক্ষণার্থী চিকিৎসকরা।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলা হয়। এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক ডা. মেজর (অব.) আবদুল ওহাব মিনার।

তিনি বলেন, আজকে সরকার দেশের মানুষকে ভালো চিকিৎসাসেবা দেওয়ার কথা বলছে। অথচ যে চিকিৎসক সেবাটা দেবেন, তার জীবনই মানবেতর, দুর্বিষহ। তারা আজকে খুবই নাজুক পরিস্থিতিতে দিনাতিপাত করছেন। সরকারের উচিত দাবিটুকু মেনে তাদের চিকিৎসাসেবায় মনোনিবেশ করতে সহযোগিতা করা।

সলিমুল্লাহ মেডিকেলের প্রশিক্ষণার্থী চিকিৎসক বেনজির বেলাল খান বলেন, সারা দেশের প্রশিক্ষণার্থী চিকিৎসকদের প্রতি মাসে মাত্র ২০ হাজার টাকা ভাতা দেওয়া হয়। কিন্তু বর্তমান দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে আমাদের কোনোভাবেই জীবন ধারণের ব্যয় মেটানো সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, সরকারের আরও বেশি কঠোর নীতিমালা রয়েছে যে এ প্রশিক্ষণকালীন আমরা বাইরে কোনো হাসপাতালে প্র্যাকটিস করতে পারব না।

খুলনা মেডিকেলের প্রশিক্ষণার্থী চিকিৎসক মাসুদুল ইসলাম আবেগতাড়িত হয়ে বলেন, আমি আজকে খুলনা থেকে ঢাকা এসেছি টাকা ধার করে, কারণ আমার কাছে টাকা নেই। আমার সংসার রয়েছে ছোট একজন সন্তান রয়েছে; সামনে ঈদ আসছে, কীভাবে সংসার চালাব অথচ আমার কাছে কোনো টাকাই নেই। সরকারের কাছে অনুরোধ, আমাদের ভাতার টাকা বাড়িয়ে আমাদের এই দুর্বিষহ জীবন থেকে বাঁচান।

ডাক্তার তুহিন হাসান বলেন, এ মানবেতর জীবনযাপন করে আমরা ভালোভাবে চিকিৎসাসেবায় মনোনিবেশ করতে পারছি না। নিজের পিছুটান থাকলে তো আসলে কোনো কিছুতেই মনোযোগ আসে না।

লিখিত বক্তব্যে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের প্রশিক্ষণার্থী হাবিবুর রহমান সোহাগ বলেন, আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে বেসরকারি পোস্টগ্র্যাজুয়েট প্রশিক্ষণার্থীদের ভাতা বাংলাদেশের চেয়ে অনেকটা বেশি। যা ভারতে দেওয়া হয় ৬৭ হাজার ৬৮৩ টাকা, পাকিস্তানে ৩৮ হাজার টাকা। অথচ চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতে ৬৭ শতাংশ টাকা অব্যবহৃত রয়ে গেছে। মন্ত্রণালয়ের এমন চরম ব্যর্থতার কারণে আমরা খুবই কষ্ট পাচ্ছি। অথচ সকল বেসরকারি পোস্টগ্র্যাজুয়েট প্রশিক্ষণার্থীর ভাতা ২০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকায় উন্নীত করলে বাড়তি খরচ হবে মাত্র ৯ কোটি টাকা।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

পাঁচ পদে নিয়োগ দেবে আইপিডিসি ফাইন্যান্স

আন্দোলনকারীদের দখলে সায়েন্সল্যাব মোড়

বাকৃবিতে রেললাইন অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা

আশঙ্কাজনক অবস্থায় জবির গুলিবিদ্ধ চার শিক্ষার্থী 

অভিজ্ঞতা ছাড়াই নিয়োগ দেবে অটোবি, পদসংখ্যা ২০

কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, জামায়াতের নিন্দা

চট্টগ্রামে কোটা আন্দোলনে দুজন নিহত

কোটার বিষয়ে আদালতকে পাশ কাটিয়ে কিছুই করবে না সরকার : আইনমন্ত্রী

মতিউর পরিবারের ১৯টি কোম্পানির শেয়ার অবরুদ্ধ 

ঢাবি প্রক্টরিয়াল কমিটির জরুরি সভা অনুষ্ঠিত

১০

কোটা সংস্কার আন্দোলনে বরিশাল ব্লকেড

১১

বেসিসের ফিনটেক স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ার হলেন নগদের ইডি এলিট

১২

আন্দোলনে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভেঙে পড়েনি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

১৩

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ

১৪

১৩ থেকে ২০তম গ্রেডে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অধীনে চাকরির সুযোগ

১৫

জবি শিক্ষার্থীদের মিছিলে গুলি, আহত ৪

১৬

জাবিতে চলমান আন্দোলনে বিভিন্ন স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থীদের সংহতি

১৭

জামালপুরে ছাত্রলীগের সমাবেশে হামলা, আহত ১

১৮

রংপুরে কোটা আন্দোলনকারী এক শিক্ষার্থী নিহত

১৯

সরকার হটাতে কোটা আন্দোলনকারীদের দলে ভেড়াতে চায় ছাত্রদল

২০
X