ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
প্রকাশ : ১০ জুন ২০২৩, ০২:৪৩ পিএম
আপডেট : ১০ জুন ২০২৩, ০৩:৫৯ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

বয়সসীমা বৃদ্ধির দাবিতে সার্টিফিকেট ছিঁড়লেন চাকরিপ্রার্থীরা

সরকারি চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বৃদ্ধি দাবিতে সমাবেশ করেছে চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ প্রত্যাশী সমন্বয় পরিষদ।
সরকারি চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বৃদ্ধি দাবিতে সমাবেশ করেছে চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ প্রত্যাশী সমন্বয় পরিষদ।

চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বৃদ্ধি, অবসরে বয়সসীমা বৃদ্ধি, চাকরিতে আবেদন ফি সর্বোচ্চ ২০০ টাকা নির্ধারণ এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতি বিজড়িত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুষদে বঙ্গবন্ধুর নামে বঙ্গবন্ধু ল’ কমপ্লেক্স স্থাপনের দাবিতে এক সমাবেশ করেছে চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ প্রত্যাশী সমন্বয় পরিষদ।

শনিবার (১০ জুন) রাজধানীর শাহবাগে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সার্টিফিকেট ছিঁড়ে প্রতিবাদ জানায় বেকার চাকরিপ্রার্থীরা।

সমাবেশে চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ প্রত্যাশী সমন্বয় পরিষদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সানারুল হক সনি বলেন, সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বৃদ্ধির জন্য আমরা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছি। কিন্তু আমাদের আন্দোলনের ফলপ্রসূ রেজাল্ট আসছে না। সরকারি চাকরিতে অবসরের বয়সসীমা দুই বছর বাড়ানো হলেও চাকরিতে প্রবেশের কোনো বয়সসীমা বাড়ানো হয়নি। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সমন্বয় করে যদি সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বৃদ্ধি করা হয় তাহলে গড় আয়ুর বৃদ্ধির সঙ্গে সমন্বয় করে কেন সরকারি চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বৃদ্ধি করা হবে না। একটি রাষ্ট্রে কেন কয়েক ধরনের নিয়ম থাকবে। আমাদের সংবিধানও বলা হয়েছে সবার জন্য সমান অধিকার থাকবে। কিন্তু এখানে আমাদের সমান অধিকার কোথায়।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে যখন দ্রব্যমূল্য ঊর্ধ্বগতি, লোডশেডিংয়ের কথা বলা হয় তখন অনেকে বলেন আপনারা উন্নত বিশ্বের দিকে তাকান। কিন্তু যখন বয়স বৃদ্ধির কথা বলা হয় তখন তারা অন্ধ হয়ে যান। কাঠের চশমা পড়েন।

আপনারা কাঠের চশমা পড়ে থাকবেন না। যুবসমাজ আপনাদের ওই কাঠের চশমা খুলে নিবে। আপনারা আমাদের দাবি মেনে নিন। আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথ ছাড়ব না।

আন্দোলনকারী চাকরিপ্রার্থী উর্মী সিদ্দিকা বলেন, আমাদের এ সময়ে পড়ার টেবিলে বসার কথা ছিল। কিন্তু আমরা বাঁচার লড়াই করছি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী যখন ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসেন, তখন তার বয়স ছিল ৪৯ বছর বয়স। কিন্তু আমাদের এখনো ৪৯ বছর হয়নি। তিনি যদি এত বছর বয়স নিয়ে সুষ্ঠুভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারেন তাহলে আমরা কী সামান্য চাকরির দায়িত্ব পালন করতে পারব না কেনো? আমরা তো রাষ্ট্রের দায়িত্ব নিতে আসিনি। কিছুদিন আগে রাষ্ট্রপতি দায়িত্ব নিয়েছেন। তিনি যদি ৭৩ বছর বয়সে রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব নিতে পারেন তাহলে আমরা কেন দায়িত্ব পালন করতে পারব না।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ২৪ বছরে একজন শিক্ষার্থী অনার্স শেষ করতে পারে। কিন্তু আমি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আমি তো শেষ করতে পারিনি। আমরা সেশনজটের কারণে আমার ২৭ বছর লেগেছে‌। আবার করোনার কারণে দুই বছর নষ্ট হয়েছে। আমি কীভাবে চাকরির প্রস্তুতি নিব।

মুক্তা সুলতানার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, কিছুদিন আগে সার্টিফিকেট পুড়িয়ে একজনকে চাকরি দেওয়া হলো আন্দোলন দমিয়ে দেওয়ার জন্য। কিন্তু আমরা দমে যাব না। আমরা অধিকার আদায়ে এখানে এসেছি। মুক্তা সুলতানা কোনো চাকরি চায়নি। আপনি একজন মুক্তা সুলতানার কথা শুনেছেন। আমাদের গল্পও শুনতে হবে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

শাবিতে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত

বইমেলায় রাশিদুল হাসান বাচ্চুর ‘ওয়াকিং অন দি পাথ অব পোয়েট্রি’

শেষ সময়ে বইমেলার নিরাপত্তায় ঢিলেঢালা

বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল চান সাইফুল হক 

জাবির দুই শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশ বাতিলের দাবি

শিশু চুরির মামলায় দুই নারীর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

বিআরটিসি যেন আর পিছিয়ে না যায় : তাজুল ইসলাম

ঢাবির নাটমণ্ডলে মঞ্চায়িত হচ্ছে থিয়েটার বিভাগের নাটক ‘সিদ্ধান্ত’

টিআইবির ফেলোশিপ পেলেন সাংবাদিক সজিবুর রহমান

রংপুরে এরিক ও বিদিশার ওপর হামলার অভিযোগ

১০

বইমেলার সময় বাড়ল

১১

রিহ্যাব নির্বাচনে ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের নিরঙ্কুশ জয়

১২

৬ মাস বিশ্ববাজারে পেট্রোল বিক্রি করবে না রাশিয়া

১৩

ফরিদপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আহত ২০

১৪

গাধা বেচবে চিড়িয়াখানা

১৫

রাজধানীতে ৬ স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা

১৬

হকিতে মেরিনার্স-আবাহনীর সহজ জয়

১৭

ভিনদেশের মোহ কেটেছে জামালের! 

১৮

পানগাঁও আইসিটিকে মুখ থুবড়ে পড়তে দেওয়া যাবে না : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

১৯

বিপিএম পদকে ভূষিত হলেন মো. শাহ আলম

২০
X