জয়পুরহাট প্রতিনিধি
প্রকাশ : ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৪৬ এএম
অনলাইন সংস্করণ

ভালো দাম পেয়ে শজনে চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের

জয়পুরহাটের নতুনহাট থেকে শজনে কিনে আক্কেলপুর ট্রাক স্ট্যান্ডে নেওয়া হচ্ছে। ছবি : কালবেলা
জয়পুরহাটের নতুনহাট থেকে শজনে কিনে আক্কেলপুর ট্রাক স্ট্যান্ডে নেওয়া হচ্ছে। ছবি : কালবেলা

শজনে গাছ রোপণ করে বাড়তি আয় বেড়েছে জয়পুরহাটের কৃষক পরিবারে। দিন দিন শজনে চাষ বেড়েই চলেছে। চলতি মৌসুমে বাজারে শজনের ভালো দাম পেয়ে খুশি কৃষকরা।

জানা যায়, অন্যান্য ফসলের মতো চাষকৃত জমিতে শজনে চাষ করা হয় না। জমির ধারে, বাড়ির খুলিতে, সড়কের পাশে, পতিত জমিতে সাধারণত শজনে গাছ লাগানো হয়। আর এসব গাছ থেকে শজনে বিক্রি করে বাড়তি আয়ের মুখ দেখছেন জয়পুরহাটের কৃষকরা। আগাম বাজারে আসা শজনে ১৮০-২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বর্তমানে পাইকারি বাজারমূল্য প্রতি কেজি ৪০-৪৫ টাকা।

সদর উপজেলার ধুলাতর গ্রামের কুষক মুকুল হোসেন জানান, তার বাড়ির পাশে দুটি শজনে গাছ আছে। প্রথম দিকে ৭০ টাকা কেজি দরে ২৫ কেজি শজনে বিক্রি করেছেন। এখন দাম কমে ৪০ টাকা কেজি। দুটি গাছ থেকে প্রায় ৩ হাজার টাকার শজনে বিক্রি করেছেন।

ধারকি আকন্দ পাড়ার বেলাল হোসেন জানান, তার একটি গাছে ৩০ কেজি শজনের ফলন হয়েছিল। ২০ কেজি ৯০ টাকা দরে বিক্রি করেন। বাকি ১০ কেজির মতো নিজেরা খেয়েছে এবং কিছু প্রতিবেশীদেরও দিয়েছেন।

বেলাল হোসেন জানান, রাইখঞ্জন নামের বারোমাসি শজনে খেতে খুব সুস্বাদু। এ শজনে গাছ খুব কম আছে। আর এর দাম বেশ ভালো। সাধারণত গ্রামের মেয়েরা শজনে গাছ লাগিয়ে পরিচর্যা করেন বলেও জানান তিনি।

তাদের ভাষ্য শজনের ডাল চারা হিসেবে মাটিতে ভালোভাবে পুঁতে রাখলে গাছ উঠে। ডাল লাগানোর পর গরু ছাগল নষ্ট না করলেই হলো। আর কোনো বাড়তি পরিচর্যার দরকার হয় না। শজনে গাছ ঝড়ে ভেঙে যাওয়া ছাড়া সাধারণত নষ্ট হয় না। দাম কমবেশি যা হোক বাজারে চাহিদা রয়েছে ব্যাপক।

সদর উপজেলার সাহাপুর গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আশরাফুল আলম শজনের পাইকারি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তিনি জানান, প্রথম প্রথম দাম বেশি ছিল। এখন তারা ৪০ টাকা কেজি দামে কিনে ঢাকা নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ট্রাকযোগে নিয়ে বিক্রি করেন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জয়পুরহাটের পাঁচ উপজেলার প্রতিটি গ্রামে পুষ্টিকর খাদ্য হিসেবে পরিচিত শজনের চাষ হয়ে থাকে। জেলায় প্রায় হাজার হেক্টর জমির শজনে গাছ থেকে সাড়ে ১০ হাজার টন শজনে উৎপন্ন হয়ে থাকে। জেলার মানুষের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় বিক্রি হয় এ শজনে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা জহুরুল ইসলাম বলেন, পুষ্টিকর খাদ্য শজনে চাষে আগ্রহ বাড়ছে। এবার দামও বেশ ভালো।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপজেলা নির্বাচন / দ্বিতীয় ধাপে চেয়ারম্যান হলেন যারা

বুদ্ধ পূর্ণিমা আজ

সাঁকো নির্মাণ নিয়ে বিরোধ, যুবককে কুপিয়ে হত্যা

স্মার্ট বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা নিয়ে সভা আজ

বুধবার ঢাকার যেসব এলাকায় যাবেন না

ইতিহাসের এই দিনে স্মরণীয় যত ঘটনা

২২ মে : নামাজের সময়সূচি

অবসরের পরেও চেয়ারে তিনি, ৩ দিনে ৩৪ কোটি টাকার ঘুষ

নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় শিক্ষার্থী নিহত

বিনা টিকিটে ১২ বছর রেল ভ্রমণ, অতঃপর...

১০

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে নারী শ্রমিককে যৌন হয়রানি

১১

ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের প্রথম জার্নাল প্রকাশিত

১২

প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটিতে ‘সেমিস্টার ডে ২০২৪’ উদ্‌যাপন

১৩

ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি শ্রাবণের ওপর হামলার অভিযোগ

১৪

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিলেন ফখরুল

১৫

যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ধরাশায়ী হলো বাংলাদেশ

১৬

রাজধানীতে বিটিআরসির অভিযান, সরঞ্জামাদি জব্দ

১৭

৫৪ মণ ওজনের গরু প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দিতে চান হামিদা

১৮

নরসিংদীতে বিদ্যুৎস্পর্শে ঝলসে গেছে দুই শিক্ষার্থী

১৯

হবিগঞ্জে খড়ের গাদা থেকে পড়ে কৃষকের মৃত্যু

২০
X