শেরপুর প্রতিনিধি
প্রকাশ : ২১ মে ২০২৪, ১০:১৭ পিএম
আপডেট : ২১ মে ২০২৪, ১০:৩০ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

নকলায় চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী অ্যাডভোকেট মাহবুবুল

অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম সোহাগ। ছবি : সংগৃহীত
অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম সোহাগ। ছবি : সংগৃহীত

শেরপুর জেলার নকলা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হয়েছে। এতে নকলা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম সোহাগ প্রতীক নিয়ে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (২১ মে) রাতে নকলা উপজেলা পরিষদের নির্বাচনী ফল ঘোষণা কেন্দ্র থেকে বিভিন্ন কেন্দ্রের ফল মাইকে ঘোষণা করা হয়। সেই হিসাবে প্রায় দুই হাজার ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে আছেন তিনি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মো. মোকশেদুল হক শিবলু।

জানা যায়, অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম সোহাগ পেয়েছেন ২০ হাজার ৬৫৪টি ভোট এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মা. মোকশেদুল হক শিবলু পেয়েছেন ১৯ হাজার ২১৩টি ভোট।

এদিন সকাল ৮টা থেকে শুরু হয় ভোটগ্রহণ। ভোট চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। সকাল থেকে ভোটার উপস্থিতি একটু কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে ভোটার উপস্থিতি।

এদিকে নির্বাচনকে উৎসবমুখর, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনী এবং স্ট্রাইকিং ফোর্স নিয়োজিত ছিল। এ ছাড়াও প্রতিটা ইউনিয়নে নিয়োজিত ছিলেন একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট। তবে জালভোট দেওয়ার চেষ্টা করায় একজনকে তিন দিনের জেল, একজনকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা ও একজনকে কিছু সময়ের জন্য আটকের ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম সোহাগ বলেন, আমি ১৯৯৬ সালে যুবলীগের থানা কমিটির সদস্য হিসেবে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে প্রবেশ করি। ২০১৫ সালে নকলা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হই। বর্তমানে আমি সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। আমার দীর্ঘ সময়ের রাজনীতিতে কোনো অনিয়ম, অবিচার বা আর্থিক কেলেঙ্কারি আমাকে স্পর্শ করতে পারেনি। আমি ২০১৮ সালে নকলা উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে প্রথমবারের মতো নৌকা প্রতীকে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছিলাম। সেই এক বছর আমি সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে পরিষদ পরিচালনা করেছি। সেই সঙ্গে আমি শেরপুর জেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলাম। ২০১৯ সালে আমি দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে দলের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন করে জিতিয়ে আনতে কাজ করেছি। জননেত্রী শেখ হাসিনা এবার নির্বাচন উন্মুক্ত করে দিয়েছেন, তাই আমি নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। আমি এরইমধ্যে বড় একটি নির্বাচনী ইসতেহার দিয়েছি। এখন আমার প্রথম কাজ হলো আমার দেওয়া অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করা।

উল্লেখ্য, নকলা উপজেলায় ১ লাখ ৭৯ হাজার ৬০৬ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। আর এই নির্বাচনে মোট ১৪ জন প্রার্থী বিভিন্ন পদে প্রতিযোগিতা করেছেন। তাদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

খুলে দেওয়া হলো তাহিরপুরের পর্যটন স্পট

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান

এসিআইয়ে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ, কর্মস্থল ঢাকা

আ.লীগ মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করে : এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী

ছাত্রলীগ নেত্রীর অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল

খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনায় মোহাম্মদপুরে দোয়া মাহফিল 

খালেদা জিয়া এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে : ফখরুল

মতিউরের দুর্নীতি তদন্তে দুদকের ৩ সদস্যের টিম গঠন

থানচি ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

হোটেলে নারী পুলিশের সঙ্গে ধরা, ডেপুটি সুপার হলেন কনস্টেবল

১০

বিশ্বকাপে আফগানদের জয় আর অঘটন নয়, সাধনার ফল!

১১

হাসপাতালে যাওয়ার পথে ট্রাকচাপায় বৃদ্ধের মৃত্যু

১২

স্নাতক পাসে ব্র্যাক ব্যাংকে চাকরি

১৩

বিএনপি স্বাধীনতাবিরোধীদের তোষণ না করলে দেশ আরও এগিয়ে যেত : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

১৪

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ ও ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ২ পরীক্ষা স্থগিত

১৫

বুয়েটে কেন্দ্রীয় মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

১৬

অর্জনে পরিপূর্ণ আওয়ামী লীগের ৭৫ বছর

১৭

প্রধানমন্ত্রীর জন্য আনারস পাঠালেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী

১৮

‘আওয়ামী লীগের সফল এবং গৌরবময় পথচলার ৭৫ বছর’

১৯

বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে হত্যা

২০
X