বশির হোসেন, খুলনা প্রতিনিধি
প্রকাশ : ২৮ মে ২০২৪, ১১:০১ পিএম
আপডেট : ২৮ মে ২০২৪, ১১:০৬ পিএম
অনলাইন সংস্করণ
ঘূর্ণিঝড় রিমাল

শ্রমে ঘামে এবার অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই

খুলনা উপকূলে সেচ্ছাশ্রমে মেরামত করা হচ্ছে একটি বাঁধ। ছবি : কালবেলা
খুলনা উপকূলে সেচ্ছাশ্রমে মেরামত করা হচ্ছে একটি বাঁধ। ছবি : কালবেলা

খুলনার দাকোপ উপজেলার তিলডাঙ্গা ইউনিয়নের বটবুনিয়া বাজার। ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রলয়ংকারী তাণ্ডবে প্রাচীন এই বাজার সংলগ্ন দুটি স্থানে বাধ ধসে আশপাশের ৭টি গ্রাম এখন পানির নিচে। সোমবার সারাদিন এবং মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত এলাকাবাসী স্বেচ্ছাশ্রমে অস্তিত্ব রক্ষার চেষ্টা হিসেবে নিজেরাই বাঁধ মেরামতের কাজ করে যাচ্ছেন।

ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সঞ্জয় সরদার। দিনরাত নিজেই লড়ে যাচ্ছেন এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে। কখনো মাটি কাটছেন আবার কখনো মাথায় করে সেই মাটি নিয়ে ফেলছেন বাঁধের ওপর। শারীরিক কষ্ট তাকে ছুঁতে না পারলেও ক্ষোভে শরীর ঘামছিল বারবার।

ক্ষোভের কারণ জানতে চাইলে আবেগতাড়িত হয়ে এই ইউপি সদস্য বলেন, জাইকার মাধ্যমে এলাকায় বাঁধের সংস্কারের প্রকল্প এসেছে কয়েক মাস আগে। এতবার অনুরোধ করলাম, এখানের একশ মিটার মাত্র এই বাঁধটি আগে সংস্কার করতে, কোনো কথা শুনল না। ফলে রিমাল শেষ করে দিল সবকিছু। স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যানরা আসছেন এসে কী করবেন, সময়মতো কাজ না করলে এই এলাকা নদীতে বিলীন হতে আর সময় লাগবে না। তাই অস্তিত্ব রক্ষায় এলাকার মানুষ নিজেরাই বাঁধ মেরামতের দায়িত্ব কাঁধে নিয়েছেন।

সরেজমিন তিলডাঙ্গা ইউনিয়নে দেখা যায়, কয়েকশ’ স্থানীয় মানুষ বাঁধ মেরামতের কাজ করছেন। বটবুনিয়া বাজার, কামনিবাসিয়ায় ঢাকি নদীর তীরে, পানখালি-খালসি এলাকায় পশুর নদের তীরসহ আশপাশে কয়েকটি স্থানে বাঁধ ভেঙে প্রায় ২০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

শুধু দাকোপ নয়, ঘূর্ণিঝড় রিমালের আঘাতে খুলনার দাকোপ, পাইকগাছা ও কয়রার ৫৫ পয়েন্টে বাঁধে ভাঙন ও বাঁধ উপচে পানি প্রবেশ করেছে লোকালয়ে। লবণাক্ত পানিতে প্লাবিত হয়েছে বিস্তীর্ণ এলাকা। ভেঙে গেছে ঘর-বাড়ি, ভেসে গেছে ফসলের মাঠ ও মাছের ঘের-পুকুর।

খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. নাজমুল হুসেইন খাঁন জানান, ঘূর্ণিঝড় রেমাল তাণ্ডবে খুলনার উপকূলীয় এলাকায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। খুলনার ৫৫টি পয়েন্টে বাঁধ ভেঙে ও উপচে প্লাবিত হয়েছে অসংখ্য গ্রাম। এর মধ্যে ৩২টি পয়েন্টে ১ দশমিক ৭০৫ কিলোমিটার বাঁধ ভেঙে গেছে। আর ২৩টি পয়েন্টের ৩ দশমিক ৬৮৮ কিলোমিটার বাঁধ ওভারফ্লো হয়েছে। ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সাড়ে ৪ লাখ মানুষ। ১২ হাজার ৭১৫ দশমিক ৫ হেক্টর জমির ধান, পাট, তরমুজ ও সবজি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ ছাড়াও ৭ হাজার ২৮৩ হেক্টর জমির ৫ হাজার ৫৭৫টি মাছের ঘের এবং ৩০৭ হেক্টর জমির ৩ হাজার ৩০০টি পুকুরের মাছ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কয়রা, পাইকগাছা ও দাকোপ উপজেলায় পানি প্রবেশ করে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

জানা গেছে, রোববার রাতে জোয়ারের চাপে কয়রা উপজেলার মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের সিংহেরকোণা, মহারাজপুর ইউনিয়নের দশহালিয়া ও উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের তিনটি স্থানে বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে লবণ পানি প্রবেশ করেছে।

এই এলাকায় সরেজমিন দেখা যায়, রাত থেকেই স্থানীয়রা নিজেরাই ঝুঁকিতে ঝড় মাথায় নিয়ে অস্তিত্ব রক্ষায় প্রাণান্তর চেষ্টা করেছে বাঁধ রক্ষার, কিন্তু এরপরও শেষ রক্ষা হয়নি।

খুলনার পাইকগাছায় ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ৬টি ইউনিয়নের অন্তত ২০টি স্থানে নদীর বাঁধ ভেঙে গেছে। এতে প্লাবিত হয়েছে অর্ধ শতাধিক গ্রাম। যাতে চিংড়ি ঘেরসহ ফসলি জমির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন উপজেলার প্রায় এক লাখ মানুষ। ৩০ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে পুরো উপজেলা বিদ্যুৎহীন রয়েছে। প্রত্যেকটি বাঁধই স্থানীয়রা নিজেরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে মেরামত করেছে কোনোরকম, পূর্ণ জোয়ারের পানিতে ভেসে যাওয়ার শতভাগ সম্ভাবনা।

এ বিষয়ে পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহেরা নাজনীন জানান, উপজেলায় প্রায় দেড় লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ২১টি স্থানে বাঁধ ভেঙেছে।

খুলনা জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফিন কালবেলাকে বলেন, উপকূলীয় তিন উপজেলার ৫২টি ওয়ার্ডেও প্রায় ৭৭ হাজার ঘড়বাড়ি আংশিক ও সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে চার লাখের বেশি মানুষ সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ ছাড়া খুলনার ৫৫টি পয়েন্টে বাঁধ ভেঙে ও উপচে প্লাবিত হয়েছে অসংখ্য গ্রাম। এর মধ্যে ৩২টি পয়েন্টে ১ দশমিক ৭০৫ কিলোমিটার বাঁধ ভেঙে গেছে। আর ২৩টি পয়েন্টের ৩ দশমিক ৬৮৮ কিলোমিটার বাঁধ ওভারফ্লো হয়েছে। ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সাড়ে ৪ লাখ মানুষ। ১২ হাজার ৭১৫ দশমিক ৫ হেক্টর জমির ধান, পাট, তরমুজ ও সবজি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

ঘটনাপ্রবাহ: ঘূর্ণিঝড় রিমাল
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

খোঁজ মিলল বিলাসী ভেড়ার, দাম ৮০ লাখ

ছেলেকে বাঁচাতে যাওয়ায় বাবাকে পানিতে চুবিয়ে হত্যা

ইসরায়েলের স্পর্শকাতর লক্ষ্যবস্তুর ফুটেজ প্রকাশ করল লেবাননের প্রতিরোধ যোদ্ধারা

খুলে দেওয়া হলো তাহিরপুরের পর্যটন স্পট

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান

এসিআইয়ে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ, কর্মস্থল ঢাকা

আ.লীগ মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করে : এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী

ছাত্রলীগ নেত্রীর অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল

খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনায় মোহাম্মদপুরে দোয়া মাহফিল 

খালেদা জিয়া এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে : ফখরুল

১০

মতিউরের দুর্নীতি তদন্তে দুদকের ৩ সদস্যের টিম গঠন

১১

থানচি ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

১২

হোটেলে নারী পুলিশের সঙ্গে ধরা, ডেপুটি সুপার হলেন কনস্টেবল

১৩

বিশ্বকাপে আফগানদের জয় আর অঘটন নয়, সাধনার ফল!

১৪

হাসপাতালে যাওয়ার পথে ট্রাকচাপায় বৃদ্ধের মৃত্যু

১৫

স্নাতক পাসে ব্র্যাক ব্যাংকে চাকরি

১৬

বিএনপি স্বাধীনতাবিরোধীদের তোষণ না করলে দেশ আরও এগিয়ে যেত : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

১৭

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ ও ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ২ পরীক্ষা স্থগিত

১৮

বুয়েটে কেন্দ্রীয় মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

১৯

অর্জনে পরিপূর্ণ আওয়ামী লীগের ৭৫ বছর

২০
X