কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ১৩ জুন ২০২৪, ০৬:৪৭ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

কালো টাকা সাদার সুযোগে দুর্নীতিবাজরা উৎসাহিত হবে : ফয়জুল করীম

মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম শায়খে চরমোনাই। পুরোনো ছবি
মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম শায়খে চরমোনাই। পুরোনো ছবি

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম শায়খে চরমোনাই বলেছেন, দেশ ভয়াবহ সংকটে নিপতিত। এমন এক সময়ে সংসদে ঘোষিত ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে ১৫ শতাংশ কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার বিধান রাখার কারণে দুর্নীতিবাজরা আরও উৎসাহিত হবে।

সরকারের উদ্দেশ্য যদি এটাই হতো যে বৈধ প্রক্রিয়ায় অর্জিত অর্থ যা প্রদর্শিত হয়নি, তা বৈধ করার সুযোগ দেওয়া, তাহলে এ ক্ষেত্রে অর্থের উৎস প্রদর্শনের শর্ত থাকত। কিন্তু এই শর্ত না থাকায় প্রমাণ করে সরকার অবৈধ অর্থ উপার্জনকে উৎসাহিত করছে এবং তাদের বিশেষ সুযোগ দিচ্ছে। এভাবে দেশ আরও দুর্নীতিগ্রস্ত দেশে পরিণত হবে। যা জাতি হিসেবে আমাদের ভাবিয়ে তুলেছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেলে রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ আইএবির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিভিন্ন পর্যায়ের দায়িত্বশীলদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম আতিকুর রহমান, কেন্দ্রীয় প্রচার ও দাওয়াহ সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ুম, দপ্তর সম্পাদক মাওলানা লোকমান হোসাইন জাফরী, আলহাজ আব্দুর রহমান, মুফতি মোস্তফা কামাল।

মুফতি ফয়জুল করিম বলেন, ঋণ করে ঋণ পরিশোধ করার পরিকল্পনাকে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের বড় দুর্বলতা মনে করে ঋণ করে মেগা প্রকল্প চালু এবং দফায় দফায় তার খরচ বাড়িয়ে দেশকে ঋণগ্রস্ত করে ফেলেছে সরকার। এবারের বাজেটের সবচেয়ে বড় খাত হচ্ছে ওই ঋণের সুদ পরিশোধের খাত। ঋণনির্ভর বাজেটের সর্বোচ্চ বরাদ্দ ঋণের সুদ প্রদানেই চলে যাবে। অর্থাৎ এ বছর আগের ১২ বিলিয়ন ডলারের আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ পরিশোধ করতে হবে, যা মোট রাজস্ব আয়ের প্রায় এক তৃতীয়াংশ।

তিনি বলেন, দেশ যে একটা বড় ধরনের অর্থনৈতিক সংকটের মুখে, তা প্রস্তাবিত বাজেটে সরকার প্রথমবারের মতো স্বীকার করেছে। এ সংকট আসলে এ বছর বা এক দিনে তৈরি হয়নি, বহুদিন থেকেই এ সংকট তৈরি হচ্ছে। সেই সংকট অস্বীকার করে যেভাবে অর্থনীতি চালানো হয়েছে, তার পরিণামে সংকট আরও গভীর হয়েছে।

মুফতি ফয়জুল করিম আরও বলেন, অর্থনৈতিক সঙ্কোচনের কথা বলে ছোট ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের ঋণপত্র খোলায় যত বিধিনিষেধ আরোপ করা হচ্ছে, তাতে অর্থনীতির গতি কমবে। আর সরকার যে হারে ব্যাংকগুলো থেকে ঋণ করার পরিকল্পনা করেছে, তাতে বেসরকারি খাত, বিশেষ করে ক্ষুদ্র-মাঝারি উদ্যোক্তারা ঋণ পাবে না। সরকার বিদেশ থেকে ঋণ করে যেভাবে রিজার্ভ সংকট কাটানোর চেষ্টা করছে, তা নতুন ঋণের ফাঁদে ফেলে দেশকে আরও গভীর সংকটের দিকে নিয়ে যাবে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

শেষ মিনিটের গোলে ইজ্জত রক্ষা আর্জেন্টিনার

জামায়াতপন্থি উপদেষ্টায় প্রভাবিত হয়ে মমতার বক্তব্য

খোঁজ মিলল তিন সমন্বয়কের

চলমান সংকটের রাজনৈতিক সমাধান হতে হবে : মির্জা ফখরুল

অলিম্পিক ভিলেজে করোনার হানা

কারাগার থেকে পালানো আসামি শ্বশুরবাড়ি থেকে গ্রেপ্তার

মুশফিক-মুমিনুলদের দুই দিনের ম্যাচ আগামীকাল

কালবেলার নামে ভুয়া খবর থেকে সতর্ক থাকুন

ব্যাটিং ধারাবাহিকতায় খুশি জ্যোতি

নারায়ণগঞ্জে সরকারি ৮টি-বেসরকারি অর্ধশতাধিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংসস্তূপ

১০

প্যারিস অলিম্পিকে গুপ্তরচবৃত্তি

১১

৬ জনের মৃত্যুর বিষয়ে তদন্ত করবে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশন

১২

আপাতত বন্ধই থাকবে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে

১৩

পিছিয়ে পড়েও ভুটানের বিপক্ষে বড় জয় বাংলাদেশের

১৪

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক

১৫

বিদ্যুৎ লাইন মেরামত করতে গিয়ে প্রাণ গেল যুবকের

১৬

আমীর খসরুসহ কারাগারে ৩৯৬, রিমান্ডে ৩৩

১৭

সরকারি স্থাপনায় ভাঙচুর / সিসিটিভি ফুটেজ দেখে জড়িতদের ধরা হচ্ছে : হারুন

১৮

ঢাকা ছেড়ে পিটার হাসের আবেগঘন পোস্ট

১৯

‘পশ্চিমা সাংবাদিকরা কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে অপপ্রচার চালিয়েছে’

২০
X