তালতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি
প্রকাশ : ২৮ মে ২০২৪, ০৫:২৭ পিএম
অনলাইন সংস্করণ
ঘূর্ণিঝড় রিমাল

বিদ্যুৎহীন তালতলী, মোবাইলে চার্জ দিতে জেনারেটরের দোকানে ভিড়

জেনারেটরের দোকানে বন্ধ মোবাইল চার্জ দিতে স্থানীয়দের ভিড়। ছবি : কালবেলা
জেনারেটরের দোকানে বন্ধ মোবাইল চার্জ দিতে স্থানীয়দের ভিড়। ছবি : কালবেলা

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বরগুনার তালতলীর উপকূলীয় এলাকা। এখনো পানিবন্দি কয়েক হাজার মানুষ। এ সময় বিধ্বস্ত হয়েছে ঘরবাড়ি, উপড়ে পড়েছে গাছপালা, ভেসে গেছে গবাদিপশু ও ঘরের আসবাবপত্র।

অতীতের বড় বড় ঝড়-বন্যায় নিজেদের জানমাল রক্ষায় মানুষজন ব্যস্ত হয়ে পড়লেও এবারের ঝড় পরবর্তী চিত্র কিছুটা ভিন্ন। বন্যার পানি যখন সব ভাসিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, তখনো অসংখ্য মানুষকে জেনারেটরের দোকানে বন্ধ মোবাইল নিয়ে ছোটাছুটি করতে দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, প্রবল বন্যার কারণে তালতলী উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। দুই দিন ধরে বিদ্যুৎ বন্ধ পুরো এলাকায়। লোকজনকে মোবাইল ফোন ও টর্চ লাইট চার্জ করতে স্থানীয়ভাবে চালু করা কিছু জেনারেটরের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে। লম্বা লাইনে অপেক্ষমাণ থেকে ২০ থেকে ৩০ টাকার বিনিময়ে চার্জ করছেন তারা।

উপজেলার ৫নং বড়বগী ইউনিয়নে মালিপাড়া এলাকায় ঘুরে ঘুরে একই ব্যবসা করছেন মাসুম। তিনি বলেন, আমি দেখলাম টাকা নিলেও মানুষের উপকার হচ্ছে। তাই জেনারেটর ভাড়া করে সকলের চার্জের ব্যবস্থা করছি। আমি চার্জ প্রতি ৫০, ৩০ ও ২০ টাকা যার কাছ থেকে যা নেওয়া যায় নিচ্ছি। এতে এলাকার মানুষও খুশি।

মোবাইল চার্জ দিতে আসা ইমরান হোসেন বলেন, টাকা লাগছে এতে কোনো সমস্যা নেই। মোবাইল, টর্চ লাইট ও চার্জার লাইট চার্জ দিতে পেরেছি, এতেই আমরা খুশি। তা ছাড়া তাদেরও জেনারেটর খরচ আছে। তাদের কারণে আমাদের উপকার হচ্ছে।

তালতলী উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন বলেন, ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডব আর দমকা হাওয়ায় উপকূলের বিভিন্ন নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ভেসে গেছে গবাদিপশু। মাথা গোঁজার ঠাঁই হারিয়েছেন কয়েক হাজার পরিবার। এমন অবস্থায় উপকূলবাসী খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অন্যদিকে খাবার সংকটের পাশাপাশি পানিবন্দি অবস্থায় আছে অনেক পরিবার। এমন পরিস্থিতিতে দ্রুত ত্রাণ কার্যক্রমসহ জনপ্রতিনিধি ও সুশীল সমাজকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সিফাত আনোয়ার তুমপা বলেন, তালতলীর বিভিন্ন এলাকার মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কয়েক হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে, পাশাপাশি এখনো ১০ হাজার ৩০০ পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় আছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ইসরায়েলের স্পর্শকাতর লক্ষ্যবস্তুর ফুটেজ প্রকাশ করল লেবাননের প্রতিরোধ যোদ্ধারা

খুলে দেওয়া হলো তাহিরপুরের পর্যটন স্পট

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান

এসিআইয়ে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ, কর্মস্থল ঢাকা

আ.লীগ মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করে : এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী

ছাত্রলীগ নেত্রীর অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল

খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনায় মোহাম্মদপুরে দোয়া মাহফিল 

খালেদা জিয়া এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে : ফখরুল

মতিউরের দুর্নীতি তদন্তে দুদকের ৩ সদস্যের টিম গঠন

থানচি ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা শিথিল

১০

হোটেলে নারী পুলিশের সঙ্গে ধরা, ডেপুটি সুপার হলেন কনস্টেবল

১১

বিশ্বকাপে আফগানদের জয় আর অঘটন নয়, সাধনার ফল!

১২

হাসপাতালে যাওয়ার পথে ট্রাকচাপায় বৃদ্ধের মৃত্যু

১৩

স্নাতক পাসে ব্র্যাক ব্যাংকে চাকরি

১৪

বিএনপি স্বাধীনতাবিরোধীদের তোষণ না করলে দেশ আরও এগিয়ে যেত : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

১৫

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ ও ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ২ পরীক্ষা স্থগিত

১৬

বুয়েটে কেন্দ্রীয় মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

১৭

অর্জনে পরিপূর্ণ আওয়ামী লীগের ৭৫ বছর

১৮

প্রধানমন্ত্রীর জন্য আনারস পাঠালেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী

১৯

‘আওয়ামী লীগের সফল এবং গৌরবময় পথচলার ৭৫ বছর’

২০
X