সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশ : ২৪ জুন ২০২৪, ০৮:০৫ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

জুনে উৎপাদনে যাচ্ছে সিরাজগঞ্জ ৬৮ মেগাওয়াট সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র

সিরাজগঞ্জ ৬৮ মেগওয়াট সোলার পার্ক নির্মাণ প্রকল্পের একটি খণ্ড চিত্র। ছবি : কালবেলা
সিরাজগঞ্জ ৬৮ মেগওয়াট সোলার পার্ক নির্মাণ প্রকল্পের একটি খণ্ড চিত্র। ছবি : কালবেলা

প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই চলতি জুন মাসে উৎপাদনে যাচ্ছে সিরাজগঞ্জ ৬৮ মেগাওয়াট সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র। ৯ জুলাই ২০২৪ পর্যন্ত প্রকল্পটির মেয়াদ থাকলেও ১০ দিন আগেই বিদ্যুৎ উৎপাদনে যাচ্ছে।

আগামী ৩০ জুন এ সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্পটির সিওপিতে (কমার্শিয়াল অপারেশন ডেট) যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। এটি চালু হলে জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে ৬৮ মেগাওয়ার বিদ্যুৎ। প্রতি কিলোওয়াট ১১.২ টাকায় কিনে নেবে পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ড (পিডিবি)।

সরেজমিনে জানা যায়, বঙ্গবন্ধু সেতু ও নির্মাণাধীন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর পশ্চিম পাড়ে যমুনা নদীর অববাহিকায় বাংলাদেশ ও চীনের দুটি কোম্পানির যৌথ অর্থায়নে বিশাল এই সোলার পার্কটির নির্মাণকাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। প্রকল্প এলাকায় স্লোপ প্রটেকশন কাজ সম্পন্ন করার পর যমুনা নদীর পাড়ে পরিত্যক্ত অকৃষি জমির উপর সারিবদ্ধভাবে সাজানো হয়েছে বড় বড় আকৃতির সোলার প্যানেল। পাশেই কনস্ট্রাকশন ভবনগুলো নির্মাণের কাজও শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

বাংলাদেশের এনডব্লিউপিজিসিএল (নর্থ-ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি লি.) এবং চীনের সিএমসি (চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট কর্পোরেশন) যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। ‘সিরাজগঞ্জ ৬৮ মেগাওয়াট সোলার পার্ক’ নামে এই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৮০ মিলিয়ন ডলার অর্থাৎ ৮৮০ কোটি টাকা।

চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট কর্পোরেশনের (সিএমসি) ডেপুটি ম্যানেজার আব্দুল্লাহ আল মারুফ বলেন, যমুনাপাড়ের অব্যবহৃত কৃষি জমি বাংলাদেশ ও চীনের দুটি কোম্পানি বাংলাদেশ-চায়না রিনিউয়েবল এনার্জি কোম্পানি লি. (বিসিআরইসিএল) নামে বঙ্গবন্ধু সেতু কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ২১৪ একর জমি ২৫ বছর মেয়াদে লিজ নেয়। এরপর ৯ জানুয়ারি ২০২৩ এ বিদ্যুৎকেন্দ্রেটির পিপিএ (পাওয়ার পার্সেজ এগ্রিমেন্ট) এবং আইএ (ইমপ্লেমেন্টেশন এগ্রিমেন্ট) স্বাক্ষরিত হয়। দ্রুতগতিতে প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলে। এ প্রকল্পে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শ্রমিক মিলে প্রায় ৪ শতাধিক জনবল রাত-দিন কাজ করছে।

প্রকল্প পরিচালক তানভীর রহমান বলেন, ২০২৩ সালের ৯ জানুয়ারি আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকল্পের কাজ শুরু করি। প্রকল্প শেষ হওয়ার মেয়াদ ছিল ৯ জুলাই ২০২৪। আমরা নির্ধারিত সময়ের ১০ দিন আগেই আনুষ্ঠানিকভাবে উৎপাদনে যাচ্ছি। উৎপাদন শুরু হলে জাতীয় গ্রিডে ৬৮ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যুক্ত হবে। প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ ১০ দশমিক ২ ইউএস সেন্ট মূল্যে পিডিবির কাছে বিক্রি করা হবে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

চার্জশিট পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মোবাইল ইন্টারনেট চালুর বিষয়ে জানাল গ্রামীণফোন

‘ভিক্ষা লাগবে না একটা পত্রিকা দেন, দেশের খবর জানি’ 

প্যারিস অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যা থাকছে

যেভাবে দেখবেন অলিম্পিকে আর্জেন্টিনার ম্যাচ

শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত হলে খুলবে ঢাবি

স্থানীয় সরকারের ২২৩ পদে নির্বাচন স্থগিত

ভালো নেই মুরগি ব্যবসায়ীরা

গাজীপুরে খুলে দেওয়া হয়েছে পোশাক কারখানা

পর্যটকশূন্য কাপ্তাই পর্যটনকেন্দ্রগুলো

১০

ফিফার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ

১১

পেন্টাগনের ব্রিফিংয়ে বাংলাদেশ প্রসঙ্গ

১২

৪ বিভাগে ভারি বৃষ্টির পূর্বাভাস

১৩

মোবাইলে অব্যবহৃত ইন্টারনেট প্যাকেজ সম্পর্কে যা জানা গেল

১৪

আর্জেন্টিনায় হতে পারে পরবর্তী কোপা

১৫

ঢাকার রাস্তায় তীব্র যানজট

১৬

নেপালে যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত, প্রায় সব আরোহী নিহত 

১৭

চাকরির প্রজ্ঞাপনে যা আছে

১৮

কারফিউ বিরতিতে চলবে দূরপাল্লার বাস

১৯

অলিম্পিকে নামার আগেই স্বর্ণপদকের স্বপ্ন মাসচেরানোর

২০
X