কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ১২ জুন ২০২৪, ১১:৫৫ পিএম
আপডেট : ১২ জুন ২০২৪, ১১:৫৭ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

হরিজন কলোনিতে উচ্ছেদ বন্ধের আহ্বান বাম জোটের 

হরিজন কলোনিতে বাম জোটের পরিদর্শন। ছবি : সংগৃহীত
হরিজন কলোনিতে বাম জোটের পরিদর্শন। ছবি : সংগৃহীত

বংশালে মিরনজিল্লা হরিজন কলোনিতে উচ্ছেদ অভিযান থেকে বিরত থাকতে সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাম গণতান্ত্রিক জোট।

বুধবার (১২ জুন) কলোনিতে পরিদর্শনে গিয়ে নেতৃবৃন্দ এ আহ্বান জানান।

অসহায় হরিজনদের উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার দাবি জানিয়ে বাম নেতারা বলেন, গত ৪ শত বছর ধরে বসবাসরত হরিজনদের ভূমির অধিকার রয়েছে। মার্কেট নির্মাণের উদ্দেশ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ সম্পূর্ণ অমানবিকভাবে কলোনির ঘরবাড়ি বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দিচ্ছে।

পল্লিতে তাৎক্ষণিক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাম জোটের সমন্বয়ক ও বাসদ সাধারণ সম্পাদক কমরেড বজলুর রশীদ ফিরোজ, সিপিবি’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড রুহিন হোসেন প্রিন্স, বাসদ (মার্কসবাদী) সমন্বয়ক কমরেড মাসুদ রানা, বিপ্লবী কমিউনিস্ট লীগের নেতা কমরেড ডা. হারুন অর রশীদ, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির কমরেড শহিদুল ইসলাম সবুজ, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক পার্টির নির্বাহী সভাপতি কমরেড আব্দুল আলী।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বাসদ নেতা নিখিল দাস, খালেকুজ্জামান লিপন, সিপিবি নেতা মিহির ঘোষ, মঞ্জুর মঈন, তাসমিনা আক্তার সাথী, বাসদ (মার্কসবাদী) নেতা মানস নন্দী, সীমা দত্ত, বিপ্লবী কমিউনিস্ট লীগের নেতা ইকবাল কবীর প্রমুখ।

নেতারা বলেন, গত ৪০০ বছর ধরে হরিজনরা বংশালের মিরনজিল্লা হরিজন কলোনিতে বসবাস করে আসছে। শহর পরিষ্কার রাখতে এবং মানুষদের পরিচ্ছন্ন রাখতে তারা বংশ পরম্পরায় সেবা দিয়ে যাচ্ছে। এই কলোনি ছাড়া তাদের যাওয়ার কোনো জায়গা নেই। তারা সবসময় অবহেলার শিকার হয় এবং অমানবিক পরিবেশে ছোট ১০ ফুট বাই ১০ ফুট ঘরে স্বামী-স্ত্রী, পুত্র-কন্যা-পুত্র বধূ নিয়ে গাদাগাদি করে তাদের জীবনযাপন করতে হয়। এদের বিকল্প বাসস্থানের ব্যবস্থা না করে এই উচ্ছেদ অভিযান কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

নেতারা আরও বলেন, হরিজনদের ভূমির অধিকার দীর্ঘদিনের দাবি। সেটি তো তারা মানছেই না। উপরন্তু উচ্ছেদ অভিযানে নেমেছে। ইতিমধ্যে পরিচ্ছন্নতাকর্মী নাম করে হরিজনদের চাকরি না দিয়ে অন্যদের চাকরি ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করছে সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভাসমূহ। শুধু তাই নয়, আগে যেমন আমৃত্যু কাজ করতে পারত বর্তমানে চাকরির সীমা ৫৯ বছর করা হয়েছে। ফলে বহু হরিজনদের চাকরির ব্যবস্থা নেই। চাকরি থাকুক আর না থাকুক হরিজনদের এই কলোনিতে থাকা ছাড়া বিকল্প কোনো ব্যবস্থা নেই।

তারা বলেন, এই হরিজনরা ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ১১ জন হরিজন নেতা জীবন উৎসর্গ করেছে। মুক্তিযুদ্ধের ৫৩ বছরে আজ তারা তাদের বাসস্থান থেকে উচ্ছেদ হয়ে যাবে, এটি আশা করা যায় না। সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ এদের উচ্ছেদ করে ধনী-লুটেরাদের সুযোগ করে দিচ্ছে বলে মনে করেন বাম জোট নেতৃবৃন্দ।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

অলিম্পিকে নামার আগেই স্বর্ণপদকের স্বপ্ন মাসচেরানোর

সুষ্ঠু তদন্তে দায়ীদের শাস্তির দাবি সম্পাদক পরিষদ ও নোয়াবের

আজ বিদেশি কূটনীতিকরা ধ্বংসযজ্ঞ পরিদর্শন করবেন

৩ দিনে জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল আসে সোয়া লাখেরও বেশি

বিয়ের দাবিতে আ.লীগ নেতার বাড়িতে কলেজছাত্রী

ইথিওপিয়ায় ভয়াবহ ভূমিধস, মৃত্যু ২২৯

বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি শুরু

পদ্মা সেতুতে সর্বোচ্চ সতর্কতায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

সেমিফাইনাল নিশ্চিতের মিশনে মাঠে নামছে বাংলাদেশ

ট্রেন চলাচল নিয়ে সিদ্ধান্ত আজ

১০

আজ ব্যাংক খোলা থাকবে ৪ ঘণ্টা

১১

ঢাকাসহ কয়েকটি জেলায় ৭ ঘণ্টা কারফিউ শিথিল

১২

আজ খুলছে গার্মেন্টস, আইডি কার্ডই কারফিউ পাস

১৩

কারফিউ আরও শিথিল, অফিস খুলছে আজ

১৪

কড়া পাহারায় মোকাম থেকে চাল সরবরাহ শুরু

১৫

শিক্ষার্থীদের কর্মসূচি নেই, ক্যাম্পাস খোলার দাবি

১৬

বিএনপির মদদ ও জামায়াত-শিবিরের পরিকল্পনায় ধ্বংসংযজ্ঞ : প্রধানমন্ত্রী

১৭

পুলিশের তিন সদস্য নিহত, আহত ১১১৭ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

১৮

বাজারে নিত্যপণ্যের সংকট নেই : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

১৯

দূরপাল্লার বাস চলবে

২০
X