শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০
রাবি প্রতিনিধি
প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০:২৯ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

জাবির দুই শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশ বাতিলের দাবি

রাবিতে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতি ফলকের সামনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮টি প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের মানববন্ধন। ছবি : কালবেলা
রাবিতে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতি ফলকের সামনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮টি প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের মানববন্ধন। ছবি : কালবেলা

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) বঙ্গবন্ধুর চিত্রকর্ম মুছে ধর্ষণবিরোধী দেয়ালচিত্র আঁকার অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইউনিয়নের দুই নেতাকে বহিষ্কারাদেশ বাতিলের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতি ফলকের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে এ দাবি জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮টি প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন।

মানববন্ধনে তারা, ‘অমর্ত্য-ঋদ্ধ বহিষ্কার কেন?’, ‘নীতিবহির্ভূত বহিষ্কারাদেশ বাতিল কর’, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত কর’, ‘আজ্ঞাবহ প্রশাসন চাই না’, ‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতা চাই’ ইত্যাদি সংবলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন।

কর্মসূচিতে ছাত্র ইউনিয়নের আহ্বায়ক জান্নাতুল নাইম বলেন, অমর্ত্য রায় ও ঋদ্ধ অনিন্দ্য গাঙ্গুলি সব সময় ছাত্রদের অধিকার নিয়ে কথা বলে আসছে। তারা গত কয়েকদিন আগে জাবির কলা ভবনের দেয়ালে ধর্ষণ ও স্বৈরাচার থেকে আজাদী শিরোনামে একটি দেয়ালচিত্র অঙ্কন করেন। কোনো দেয়ালচিত্রই স্থায়ী নয় এটা পরিবর্তন হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বর্তমান দালালেরা এটি মেনে নিতে পারেনি। তারা দুই ছাত্রনেতার বিরুদ্ধে বহিষ্কার আদেশ দিয়েছেন এবং থানায় মামলা করেছেন। আমরা এই বহিষ্কারাদেশ বাতিল করার দাবি জানাচ্ছি।

নাগরিক ছাত্র ঐক্যের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক মেহেদী হাসান মুন্না বলেন, একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কী পরিমাণ আজ্ঞাবহ হলে তড়িৎ গতিতে কোনো নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে দুজন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করে। তারা দুজনেই বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্ররাজনীতির সঙ্গে জড়িত। বিশ্ববিদ্যালয়ের যত অনিয়ম, উচ্ছৃঙ্খল ও ধর্ষণ এসবের বিরুদ্ধে তারা কথা বলে। বিশ্ববিদ্যালয়ে দেয়াল লিখন, এটা একদল লিখে অন্য দল সেটা মুছে ফেলে এটাই বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃতি। বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের ছাত্ররা পুরো বিশ্ববিদ্যালয়কে একটা কাল্টে পরিণত করেছে। এই কাল্ট মতপ্রকাশের বিরুদ্ধে, যাতে কেউ কথা বলতে না পারে। কণ্ঠরোধ করার জন্য যে ব্যবস্থা, সেটা এই রাষ্ট্র এই বিশ্ববিদ্যালয় করে রেখেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন শিক্ষার্থীদের ভালো মন্দ বুঝে না, তারা বুঝে শুধু লুটপাট করতে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, বিপ্লবি ছাত্রমৈত্রী, ছাত্র যুব গণমঞ্চ, নাগরিক ছাত্রঐক্য, ছাত্র ইউনিয়নের নেতারা।

উল্লেখ্য, গত ২০ ফেব্রুয়ারি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কলা ভবনের দেয়ালে ধর্ষণবিরোধী দেয়ালচিত্র আঁকায় ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি অমর্ত্য রায় ও সাধারণ সম্পাদক ঋদ্ধ অনিন্দ্য গাঙ্গুলীকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ইসরায়েলে হামলা শুরু

বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় আবারও ঢাবি, অবস্থান কত?

বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয় তালিকায় বুয়েটের অবস্থান কত?

আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

মুন্সীগঞ্জে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ২

আড্ডা দিচ্ছিলেন ছাত্রলীগ কর্মীরা, অতর্কিত হামলায় আহত ৪

চৈত্রসংক্রান্তি আজ

১৩ এপ্রিল : নামাজের সময়সূচি

দুদিন বন্ধের পর আজ থেকে মেট্রোরেল চালু 

মার্কিন ঘাঁটিতেও হামলার হুমকি ইরানের

১০

বিমান থেকে সংকেত দেখেই দ্বীপ থেকে তিন নাবিককে উদ্ধার

১১

বাস ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে দুই মাদ্রাসাছাত্র নিহত

১২

সৌদি আরবে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রাণ গেল বাংলাদেশির

১৩

এবারই প্রথম স্বস্তিতে মানুষ ট্রেন ভ্রমণ করছেন : রেলমন্ত্রী

১৪

খুলনায় ইজিবাইকের ধাক্কায় প্রাণ গেল শিশুর

১৫

দিনদুপুরে তরুণীকে নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল

১৬

ঈদে পর্যটকে মুখরিত মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত

১৭

‘বাঙালিত্বের সঙ্গে ধর্মের কোনো সংঘর্ষ নেই’

১৮

খুলনায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে আ.লীগের তিন নেতা গুরুতর আহত

১৯

সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়াল বান্দরবান প্রশাসন

২০
*/ ?>
X