কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ০৫ জুন ২০২৩, ১০:৪১ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

সরকারের ওপর গণতান্ত্রিক বিশ্বের চাপ বাড়ছে : মির্জা ফখরুল

সোমবার গুলশানে সেমিনারে বক্তব্য দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি : কালবেলা

ক্ষমতাসীন সরকারের দুঃশাসনের কারণেই বাংলাদেশের ওপর গণতান্ত্রিক বিশ্ব নানা ‘চাপ’ দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার (৫ জুন) বিকেলে এক সেমিনারে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন ভিসা নীতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘শুধু ক্ষমতার জন্য তারা (সরকার) দেশের মানুষের যে আকাঙ্ক্ষা ছিল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র, গণতান্ত্রিক সমাজ তার সবকিছু চুরমার করে দিয়েছে। যার ফলে কী হয়েছে আমরা সব জানি।’

রাজধানীর গুলশানে হোটেল লেকশোরে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪২তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপির উদ্যোগে ‘বাংলাদেশে বহুদলীয় প্রবর্তক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান’ শীর্ষক এ সেমিনার হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে যুক্তরাষ্ট্র ভিসা নীতি দেয়, নিষেধাজ্ঞা দেয়-এটা আমাদের জন্য খুব আনন্দের কথা নয়, লজ্জার কথা।’

তিনি বলেন, স্বাধীন সার্বভৌম একটি রাষ্ট্রে আরেকটা দেশ নিষেধাজ্ঞা দেয়। শুধু আওয়ামী লীগের অবৈধ সরকারের দুঃশাসনের কারণে, দুর্বৃত্তায়নের কারণে, তাদের লুটের কারণে। এ ধরনের ব্যবস্থা ছাড়া গণতন্ত্রে ফিরে আসার আর কোনো পথ গণতান্ত্রিক বিশ্ব দেখছে না।

সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, এখন একটাই মাত্র পথ; আবার জনগণকে জাগিয়ে তুলতে হবে, যেভাবে জিয়াউর রহমান জাগিয়ে তুলেছিলেন মানুষকে যুদ্ধের জন্য; যেভাবে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে অনুপ্রাণিত করেছিলেন। যেভাবে খালেদা জিয়া গ্রামেগঞ্জে চারণ কবির মতো গান গেয়ে মানুষকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে নামিয়েছিলেন। আজকে সেই একইভাবে আমাদের নেতা তারেক রহমান বিদেশ থেকে ১০ দফা দিয়েছেন, ২৭ দফা দিয়েছেন রাষ্ট্র সংস্কারের জন্য। সেই দাবিগুলো নিয়ে, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সমস্ত রাজনৈতিক দল ও শক্তিগুলোকে সংগঠিত করে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে হবে। সেজন্য ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াই-সংগ্রাম করতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব আরও বলেন, ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সত্যিকার অর্থে গণতান্ত্রিক সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে, আজকে এটাই হোক শপথ।

জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি স্বপ্ন দেখেছিলেন যে বাংলাদেশকে সত্যিকার অর্থে একটা গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত করবেন এবং সেজন্য শত শত মানুষ প্রাণ দিয়েছে। আজকে শত মানুষ গুম হয়ে গেছে, ৪০ লাখ মানুষ মিথ্যা মামলায় ভুগছে। আজকে সবার স্বার্থে আমাদের ত্যাগ স্বীকার করে গণতন্ত্র ফেরানোর যুদ্ধে, এই সংগ্রামে জয়ী হতে হবে।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. কামরুল আহসান। সঞ্চালনা করেন দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সেমিনার কমিটির আহ্বায়ক ইসমাইল জবিউল্লাহর সভাপতিত্বে এবং সদস্যসচিব শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি। বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান ওমর, এনপিপির ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক আনোয়ার উল্লাহ চৌধুরী, অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলাম, অধ্যাপক নুরুল আমিন বেপারী, অধ্যাপক লুৎফর রহমান।

উপস্থিত ছিলেন আলতাফ হোসেন চৌধুরী, বরকত উল্লাহ বুলু, আবদুল আউয়াল মিন্টু, আহমেদ আযম খান, এজেডএম জাহিদ হোসেন, নিতাই রায় চৌধুরী, মনিরুল হক চৌধুরী, ফজলুর রহমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, আবুল খায়ের ভূঁইয়া, তাহসিনা রুশদির লুনা, মজিবুর রহমান সারোয়ার, কামরুজ্জামান রতন, শিরিন সুলতানা, এবিএম মোশাররফ হোসেন, আজিজুল বারী হেলাল, জহির উদ্দিন স্বপন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, এবিএএম আশরাফ উদ্দিন নিজাম, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের কাদের গণি চৌধুরী, অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খান, অধ্যাপক মামুন আহমেদ, অধ্যাপক শামসুল আলম সেলিম, অধ্যাপক নূরুল ইসলাম, আফরোজা আব্বাস, নেওয়াজ হালিমা আর্লী, রেহানা আখতার রানু, হেলেন জেরিন খান, রিয়াজ উদ্দিন নসু, ফাহিমা নাসরিন মুন্নী, রুমিন ফারহানা, মীর হেলাল উদ্দিন, হাসান জাফির তুহিন, শহিদুল ইসলাম বাবুল, আমিরুজ্জামান শিমুল, হায়দার আলী লেলিন, আতিকুর রহমান রুমন প্রমুখ।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী

বঙ্গবন্ধুর দুঃসময়ের বন্ধু, কিংবদন্তি রাজনীতিক শওকত আলী

১৩০ টাকায় শুরু করা নার্সারির বাজারমূল্য ২০ লাখ

যশোরে ভাষা শহীদদের স্মরণে ৫২শ মোমবাতি প্রজ্বলন

শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষের ঢল

সাভারে খঞ্জনকাঠি খাল উদ্ধার করল উপজেলা প্রশাসন

শোক ও গৌরবের একুশে আজ

২১ ফেব্রুয়ারি : নামাজের সময়সূচি

ইতিহাসের এই দিনে যত ঘটনা

গ্রিজমানদের খালি হাতেই ফেরত পাঠাল ইন্টার মিলান  

১০

একটি হুইল চেয়ারের আকুতি প্রতিবন্ধী সিয়ামের

১১

ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে চবিতে ফুলের দাম বেড়েছে ৩ গুণ

১২

সীমান্তে শেষবারের মতো সরুকজানের লাশ দেখল স্বজনরা

১৩

‘উদ্যোক্তা তৈরির মাধ্যমে কর্মসংস্থান তৈরি করতে চাই’- প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

১৪

সৌদি বসে ঢাকায় ডাকাত দল চালায় ইলিয়াস

১৫

‘ডাল ভাত খেয়েও যুদ্ধ করতে পারি’

১৬

ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

১৭

কোম্পানি রিটার্নের মেয়াদ ২ মাস বাড়ানোর দাবি এফবিসিসিআইর

১৮

ন্যায্যতা সম্পর্কিত সংসদীয় ককাস / উন্নয়নমূলক পদক্ষেপে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার আহ্বান 

১৯

এমপিদের থোক বরাদ্দের আগে জবাবদিহিতা নিশ্চিতের দাবি টিআইবির

২০
X