কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ১৮ মে ২০২৪, ০৭:৫৪ পিএম
আপডেট : ১৮ মে ২০২৪, ০৯:২৪ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

যে কারণে ডিবিতে এসেছিলেন মামুনুল হক

মাওলানা মামুনুল হক। পুরোনো ছবি
মাওলানা মামুনুল হক। পুরোনো ছবি

হেফাজতে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও সদ্য কারামুক্ত মাওলানা মামুনুল হক ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয়ে গিয়েছিলেন শনিবার বিকেলে। প্রায় আড়াই ঘণ্টা তিনি মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে ছিলেন। এরপর সন্ধ্যা ৭টা ৪০ মিনিটের দিকে তিনি ডিবির কার্যালয় থেকে বের হন।

বের হয়ে মামুনুল হক বলেন, জব্দ মোবাইল ফেরত নিতে তিনি ডিবি কার্যালয়ে এসেছিলেন। তবে এবিষয়ে ডিবির কর্মকর্তারা কোনো কথা বলেননি।

শনিবার বিকেলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে মামুনুল হক ডিবি কার্যালয়ে যান। ডিবি কার্যলয় থেকে বের হয় মামুনুল হক বলেন, আমাকে যখন গ্রেপ্তার করা হয়েছিল তখন মামলার আলামত হিসেবে মোবাইল ফোনটি জব্দ করা হয়েছিল। সেই মোবাইল ফোনটি নিতে আমি ডিবি কার্যালয়ে এসেছি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাকে ডিবি কর্মকর্তারা ডাকেননি এবং মামলা সংক্রান্ত কোনো বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করেনি। মামলার আলামত হিসেবে জব্দ করা আমার মোবাইল ফোনটি নিতে এসেছিলাম। মোবাইল ফোনটি ফেরত পেয়েছেন কিনা জানতে চাইলে, তিনি তার উত্তর না দিয়েই গাড়িতে উঠে যান।

গত ৩ মে মামুনুল হক কারাগার থেকে মুক্তি পান। এর আগের দিন রাতে মাওলানা মামুনুল হকের মুক্তির কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে তিনি মুক্তি পাননি। তখন কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা জানিয়েছিলেন, বৃহস্পতিবার মামুনুল হককে মুক্তি দেওয়া সম্ভব হবে না। তার জামিনের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই চলছে।

গত ১১ মার্চ মামুনুল হকের মুক্তির বিষয়ে আলোচনা করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে বৈঠক করেন হেফাজত নেতারা। ধর্মমন্ত্রী ফরিদুল হক খানসহ সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা বৈঠকে অংশ নেন।

বৈঠক শেষে গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সংগঠনটির মহাসচিব মাওলানা সাজিদুর রহমান দাবি করেন, ‘মামুনুল হকের মুক্তির বিষয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।’

গত ২৪ এপ্রিল তিন মামলায় জামিন পান মামুনুল হক। এ বিষয়ে মামুনুল হকের আইনজীবী আব্দুস সালাম হিমেল বলেন, ২০১৩ সালের মতিঝিল থানার এক মামলায় ও ২০২১ সালের পল্টন থানার দুই মামলায় জামিন পেয়েছেন মামুনুল হক। তার বিরুদ্ধে ঢাকায় ও ঢাকার বাইরে একাধিক মামলা রয়েছে। ওইসব মামলায় জামিন পেলে তিনি কারামুক্ত হতে পারবেন বলে জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, ২০২১ সালের ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্টে এক নারীর সঙ্গে হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। ১৮ এপ্রিল মোহাম্মদপুরের মাদ্রাসা থেকে মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

পাখা ছাড়া ঘুমাতে পারে না জমিদার

ঈদ জামাতের জন্য প্রস্তুত শোলাকিয়া

বাজারের প্রধান আকর্ষণ কালো পাহাড়

ভাই হারালেন ডিপজল 

সংবর্ধিত হলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শুসেন চন্দ্র শীল

সিলেটে পশুর হাটে কমছে না দাম, ক্রেতাদের অপেক্ষা

জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করবেন রাষ্ট্রপতি

ধাওয়া দিয়ে মাঝ নদীতে লঞ্চ থামালেন ম্যাজিস্ট্রেট

গাজীপুরে মহাসড়কে যাত্রীদের ঢল, ভোগান্তি চরমে

সিলেটে ১১ ট্রাক চিনি জব্দ

১০

কোপায় ব্রাজিলের খেলা দেখবেন না রোনালদিনহো

১১

বসত ঘর থেকে হ্যাপি গোল্ড ও কিং ফিসার মদ উদ্ধার

১২

মেয়াদ শেষেও বিমার টাকা দিচ্ছে না প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্স!

১৩

কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে কোরবানির গরু

১৪

টঙ দোকানের আয়ে চলছে রতন বেগমের জীবনযুদ্ধ

১৫

উত্তরের মহাসড়কে গাড়ির পেছনে গাড়ি, নেই যানজট

১৬

তাসরিফের চোখে টিউমার ধরা পড়েছে

১৭

যত্রতত্র কোরবানি করে জায়গা নষ্ট না করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

১৮

বিয়ের পর হানিমুনে না গিয়ে হজে গেলেন দম্পতি

১৯

‘হেলমেট নাই, তেল নাই’

২০
X