উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
প্রকাশ : ২৮ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৩৫ এএম
অনলাইন সংস্করণ

তীব্র তাপপ্রবাহে পুড়ছে কুড়িগ্রামে চরাঞ্চলের পাটক্ষেত

তীব্র গরমে পুড়ছে কুড়িগ্রামে চরাঞ্চলের পাটক্ষেত। ছবি : কালবেলা
তীব্র গরমে পুড়ছে কুড়িগ্রামে চরাঞ্চলের পাটক্ষেত। ছবি : কালবেলা

কুড়িগ্রামের উলিপুরে প্রচণ্ড খরা, তীব্র তাপপ্রবাহে আর অনাবৃষ্টির কারণে পুড়ছে তিস্তার চরাঞ্চলের শত শত বিঘা জমির পাটক্ষেত। গত দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে উপজেলার তাপমাত্রা ৩৭.৭ থেকে ৩৮.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ওঠানামা করছে। জ্যৈষ্ঠের কাঠফাটা রোদ ও অনাবৃষ্টিতে পাটের ক্ষেত শুকিয়ে ফেটে যাচ্ছে। বৃষ্টির পানি ও সেচ দিতে না পারায় পাট গাছের সঠিক বৃদ্ধি হচ্ছে না ও পাট গাছ মরে যাচ্ছে। ফলে চলতি মৌসুমে চাষ করা পাট নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন চরাঞ্চলের কৃষকরা।

কৃষকরা জানান, গত বছর তিস্তা নদীতে দ্বিতীয় দফা বন্যায় ভারত থেকে পানির সঙ্গে কাদাপানি আসার ফলে তিস্তা নদীর বালু মাটিতে পলি জমেছে। ফলে এসব জমিতে বিভিন্ন ধরনের আবাদ ভালো হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন চরাঞ্চলের চাষিরা। উপজেলার বজরা, গুনাইগাছ, থেতরাই ও দলদলিয়া ইউনিয়ন তিস্তা নদী দ্বারা বেষ্টিত। গোড়াই পিয়ার, রামনিয়াশা, হোকডাঙ্গা, টিটমা, নাগড়াকুড়া, দড়িকিশোরপুর, মধ্য গোড়াই, কদমতলা, অজুর্ন, বিরহিম, সন্তোষ অভিরাম, সাদুয়া দামারহাট, কর্পূরা, খারিজা লাটশালাসহ অসংখ্য চরে সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রচণ্ড খরায় জমির মাটি ফেটে যাচ্ছে। পাট গাছ শুকিয়ে মরে যাচ্ছে। তপ্ত রোদ থেকে সোনালি আঁশ বাঁচাতে বাধ্য হয়ে জমিতে সেচ দিচ্ছেন কৃষক। সেচ দিয়েও কোনো প্রতিকার পাচ্ছেন না চরাঞ্চলের চাষিরা। কেউ পাটক্ষেতে নিড়ানি দিচ্ছেন, আবার কেউ সেচ দেওয়ার পরে জমিতে সার দিচ্ছেন। চরাঞ্চলের জমিগুলোতে কিছু কিছু পাট গাছ দেখা গেলেও বেশিরভাগ জমিতে নেই পাট গাছ। চিন্তিত হয়ে পড়েছেন এসব চাষিরা। তারা জানান, অতিরিক্ত তাপপ্রবাহের কারণে পাটক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। সেচ দিয়েও ঠেকানো যাচ্ছে না পাটক্ষেত।

তিস্তার চরাঞ্চলের চর গোড়াইপিয়ার এলাকার পাট চাষি শাহাবুদ্দিন মিয়া জানান, প্রচন্ড গরমে জমিতে সেচ দেওয়ার পরেও পাটের ক্ষেত শুকিয়ে যাচ্ছে। মাটিতে কোনো রস থাকছে না। সেচ দিতে খরচও বাড়ছে, আবার মাটি ভিজা থাকছে না। একই জমিতে দুবার পাট চাষ করেও পাটক্ষেত টিকিয়ে রাখতে পারিনি। দুবার পাট চাষ করে খরচ হয়েছে ১৬ হাজার টাকা। ঋণ করে পাট চাষ করেছি এখন ঋণ শোধ করব কীভাবে চিন্তায় পড়েছি। পরিবার-পরিজন নিয়ে কীভাবে সংসারের খরচ চালাব।

তিস্তার চরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকার পাটচাষিদের মধ্যে রবিউল ইসলাম, বকুল মিয়া, চাঁদ মিয়া, রফিকুল ইসলাম, এমদাদুল হক, মোহাম্মদ আলী, আশরাফুল হক, আনারুল ইসলাম ও আব্দুল গনিসহ অনেকে বলেন, তিস্তার চরে জমিতে পাট লাগিয়েছি। প্রথমেই বৃষ্টিপাত না হওয়ায় প্রচণ্ড গরমে পাট গাছ উঠেনি। পরে আবারো জমি চাষ করে পাট লাগিয়েছি। এবার পাট গাছ উঠলেও বৃষ্টিপাত না হওয়ায় পাট বাড়ছে না এবং প্রচণ্ড গরমে পাট গাছ মরে যাচ্ছে। প্রতিদিন পাটক্ষেতে অনেক টাকা খরচ করে সেচ দিয়ে পানি দেওয়ার পরও পাট টিকিয়ে রাখতে পারিনি। আর্থিক ক্ষতির আশঙ্কায় দুশ্চিন্তা আর দুর্ভোগে চরাঞ্চলের কৃষকরা। শুধু পাট আবাদ নয়, বিভিন্ন জাতের সবজি চাষে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ও কৃষিবিদ মো. মোশারফ হোসেন বলেন, বর্তমান উপজেলায় তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এখন যে কোনো ফসলি জমিতে প্রচুর পরিমাণ সেচ প্রয়োগ করতে হবে। এ ছাড়া তিস্তার চরাঞ্চলের জমিগুলো বালু দ্বারা বেষ্টিত। সেচের পানি প্রয়োগ করলে সঙ্গে সঙ্গে শুকিয়ে যায়। ফলে পাট ক্ষেতের সমস্যা দেখা দিয়েছে। এজন্য চরাঞ্চলে যে কোনো ফসলি জমিতে প্রচুর পরিমাণ সেচ প্রয়োগ করতে হবে বলে জানান তিনি।

এ দিকে জেলার রাজারহাট আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, এপ্রিল মাসের শেষের দিকে তাপমাত্রা আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। কুড়িগ্রাম জেলায় ৩৮.৪ থেকে ৩৮.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ওঠানামা করছে। এ মাসে বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই বলে আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে। এদিকে এপ্রিল মাসজুড়ে উত্তপ্ত আবহাওয়ার কারণে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ট্রাম্পের নির্বাচনী সমাবেশে গুলি

কোটাবিরোধী আন্দোলন / আজ পদযাত্রা ও রাষ্ট্রপতিকে স্মারকলিপি দিবেন শিক্ষার্থীরা

কেমন থাকবে আজকের আবহাওয়া?  

কোটা ইস্যু / ঢাবির হলে হলে ছাত্রলীগের ক্যাম্পেইন

পুলিশের তাড়া খেয়ে নদীতে ঝাঁপ, অতঃপর...

ম্যানসিটি ছাড়তে চান আলভারেজ!

বিয়েলসার বিস্ফোরক মন্তব্যের পর কী বলবেন স্কালোনি?

লিবিয়ায় বাংলাদেশির আকুতি / ‘সুমন ভাই আপনি আমাদের বাঁচান’

কুয়াকাটা প্রেসক্লাবের সভাপতি আনু, সম্পাদক আমির 

সরকারি খরচে বিদেশ যেতে চান ১১০৬ কর্মকর্তা

১০

সাড়ে ২৯ হাজারে বিক্রি হল এক পাঙাশ

১১

বিপৎসীমার ওপরে পদ্মার পানি, ঘরবন্দি কয়েক হাজার মানুষ

১২

বরিশালে ‘হাইড্রোলিক হর্ন’ প্রতিরোধে রাজনৈতিক নেতাদের ঐক্যমত

১৩

কোটা আন্দোলন / সরকারকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করলে ছাড় নয় : শ ম রেজাউল করিম

১৪

ডেঙ্গুতে একজনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৭৫

১৫

নিরাপদ খাদ্যবিষয়ক প্রশাসনিক ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণে ইন্দোনেশিয়া সফরে প্রতিনিধিদল

১৬

মাছ-মাংস না থাকায় কনেপক্ষকে মারধর, ভেঙে গেল বিয়ে

১৭

নদী পার হতে গিয়ে কৃষকের মৃত্যু

১৮

খুলনা টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি বাবুল, সম্পাদক অভিজিৎ

১৯

উইম্বলডনের নতুন রানী ক্রেচিকোভা

২০
X