কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০:৪৫ পিএম
আপডেট : ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৬:২৯ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

আত্মঘাতী জঙ্গি গ্রেপ্তার করে সর্বোচ্চ পদক র‌্যাব-১৪ অধিনায়কের ঝুলিতে

মহিবুল ইসলাম খান। ছবি : সংগৃহীত
মহিবুল ইসলাম খান। ছবি : সংগৃহীত

অতিরিক্ত ডিআইজি মহিবুল ইসলাম খান পুলিশ সুপার থাকার সময়ে দায়িত্ব পালন করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটে। তখন চালিয়েছেন জঙ্গিবিরোধী বড় অভিযান। ভূমিকা রেখেছিলেন জঙ্গিবাদ দমনে। পদোন্নতির পর দায়িত্ব পান র‌্যাব-১৪ এর অধিনায়কের। পুরোনো অভিজ্ঞতায় সেখানেও জঙ্গি দমনে রাখছেন ভূমিকা। তার অসীম বীরত্ব এবং সাহসিকতাপূর্ণ কাজের স্বীকৃতিও মিলেছে এবারের পুলিশ সপ্তাহে, ভূষিত হয়েছেন পুলিশের সর্বোচ্চ পদক ‘বাংলাদেশ পুলিশ মেডেলে (বিপিএম)।

এবার র‌্যাব কর্মকর্তা মহিবুল ইসলাম খানসহ ৩৫ জন পান সর্বোচ্চ পদক বিপিএম। গত মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে পুলিশ সপ্তাহ-২০২৪ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পদকপ্রাপ্তদের তা পরিয়ে দেন।

মহিবুল ইসলাম খানের পদক প্রাপ্তির কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, এই কর্মকর্তা জঙ্গি দমন ও জঙ্গি তৎপরতা নিরসনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে আসছেন। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সারা দেশে সিরিজ বোমা হামলা চালিয়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবির ময়মনসিংহ অঞ্চলের প্রধান সংগঠক মো. আজিজুল হক ওরফে গোলাপ পালিয়ে ছিলেন নির্বিঘ্নে। দীর্ঘ ১৮ বছর পর এই দুর্ধর্ষ জঙ্গিকে গ্রেপ্তারে সফল হন র‌্যাব অধিনায়ক মহিবুল ইসলাম খান। এ ছাড়াও এই কর্মকর্তা দুটি পৃথক জঙ্গি মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি জেমবি জঙ্গি মো. মোস্তফা ওরফে মোস্ত ওরফে শামীম এবং ৭ বছর ধরে পলাতক নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহরীরের সূরা সদস্য মো. আ. কাইয়ুমকে গ্রেপ্তারেও সফলতা দেখান। তাদের মধ্যে মোস্তফা জেএমবির আত্মঘাতী দলের সদস্য ছিল।

জঙ্গি দমনে সফলতার পাশাপাশি মানবতাবিরোধী অপরাধে ট্রাইব্যুনালের দণ্ড পাওয়া যুদ্ধাপরাধীদের গ্রেপ্তারেও সফলতা দেখান তিনি। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে একাত্তরে গণহত্যা, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া যুদ্ধাপরাধী সুলতান মাহমুদ ফকিরকে গ্রেপ্তার করেন তিনি। ওই বছরের জুনে ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক যুদ্ধাপরাধী মো. মোখলেছুর রহমান ওরফে তারাকে গ্রেপ্তারেও সফলতা দেখান তিনি।

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থেকে একটি মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানির কর্মকর্তাসহ ৩ জনকে র‌্যাব পরিচয়ে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি করা হয়। অভিযোগ পেয়েই র‌্যাব-১৪ এর অধিনায়ক মহিবুল ইসলাম খান ওই ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটন করেন এবং র‌্যাব পরিচয় দেওয়া অপহরণকারীদের গ্রেপ্তার ও অপহৃতদের উদ্ধার করেন।

মহিবুল ইসলাম খান এর আগেও সাহসিকতা, কর্মদক্ষতা ও প্রশংসনীয় কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ বিপিএম পদক পেয়েছিলেন। তিনি ২০০৫ সালে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেন। পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটে দায়িত্ব পালন করে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে র‍্যাব-১৪ তে অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পান।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ঢাকার ভবন মালিকদের হুঁশিয়ারি দিলেন মেয়র তাপস

এফডিসিতে হামলার প্রতিবাদে সাংবাদিকদের মানববন্ধন 

সেই নারী কাউন্সিলর চামেলীকে দল থেকে বহিষ্কার

তীব্র গরমে বিশ্বজুড়ে বছরে ১৮৯৭০ শ্রমিকের মৃত্যু

আপিল বিভাগে তিন বিচারপতি নিয়োগ

যুদ্ধের মধ্যেই মন্ত্রীকে আটক করলেন পুতিন

সকালে ইসতিসকার নামাজ আদায়, রাতে নামল স্বস্তির বৃষ্টি

তাপমাত্রা আরও বাড়ার শঙ্কা

অফিসার নিয়োগ দেবে কাজী ফার্ম, আবেদন করুন দ্রুত

হিট স্ট্রোকে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকের মৃত্যু

১০

অন্তঃসত্ত্বা নারীর চিকিৎসা করলেন না ডাক্তার, সমালোচনার ঝড়

১১

টাইগারদের সঙ্গে সিরিজের জন্য জিম্বাবুয়ে দল ঘোষণা

১২

থাইল্যান্ড পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

১৩

চাকরি দিচ্ছে কাজী ফার্মস, নেই বয়সসীমা

১৪

কালবেলায় প্রতিবেদন প্রকাশ / ভূমিদস্যু কামরুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ১০ আইনজীবীর আবেদন 

১৫

আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণে বাংলাদেশকে সহায়তা করতে চায় ভারত

১৬

ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনার মধ্যে / হঠাৎ ইরান সফরে উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধি দল

১৭

ল্যাবএইড হাসপাতালে চাকরির সুযোগ, ৪৫ বছরেও আবেদন

১৮

ইয়াবাসহ ইউপি চেয়ারম্যানের ভাই গ্রেপ্তার

১৯

৪ বছরের ছেলেকে ৪১ বার ছুরিকাঘাত করেন মা

২০
*/ ?>
X