শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০
কালবেলা প্রতিবেদক
প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৪:৫৯ পিএম
আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৫:২০ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

বিদ্যুতের দাম কত বাড়বে জানালেন প্রতিমন্ত্রী

প্রতীকী ছবি।
প্রতীকী ছবি।

গ্রাহক পর্যায়ে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম ৩৪ থেকে ৭০ পয়সা বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, মার্চ থেকেই নতুন দর কার্যকর হবে।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, উৎপাদন খরচের চেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ বিক্রি করা হয়। ঘাটতি মেটাতে দাম সমন্বয় করা হচ্ছে। আগামী তিন বছর ধাপে ধাপে দাম সমন্বয় করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের লাইফলাইন গ্রাহক (০ থেকে ৫০ ইউনিট ব্যবহারকারী গ্রাহক) আছে ১ কোটি ৪০ লাখ। তাদের বিদ্যুতের দাম ৪ টাকা, আর উপরের দিকে এই দাম ৭ টাকা। কিন্তু উৎপাদন খরচ ১২ টাকা। এতে সরকারকে একটা বড় অংশ এই খাতে ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। এই ভর্তুকির আরও বাড়ছে কারণ ডলারের দাম বাড়ছে। এই পার্থক্যটা হঠাৎ বড় রকমের লাফ দিয়েছে গত বছর থেকে। আমরা এখন থেকে অ্যাডজাস্টমেন্টে যাচ্ছি। যা আগামী তিন বছরে মধ্যে সমন্বয় করতে হবে। তবে এটি যাতে সহনীয় পর্যায়ে হয়, সে বিষয়টি আমরা দেখছি।

যে দাম বাড়ছে, তা খুব বেশি নয় উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা এখন খুবই অল্প পরিমাণ দাম বাড়িয়েছি। প্রতি ইউনিটে গড়ে ৩৪ পয়সা মূল্য বাড়িয়েছি। এটি পরিমাণে খুবই অল্প।

বিদ্যুতের দাম মূলত উৎপাদনে ব্যবহৃত জ্বালানির দামের ওপর নির্ভর করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র করার সময় মার্কিন ডলারের দাম ৭০ থেকে ৮০ টাকা ধরে হিসাব করা হয়েছিল। এখন ডলারের দাম ৪০ টাকা বেড়ে গেছে। তাই বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ অনেক বেড়েছে। জ্বালানি খরচের ওপর ভিত্তি করে সারা বিশ্বেই দাম সমন্বয় করা হয়।

বিদ্যুতে ভর্তুকির বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই বছর আমাদের বিদ্যুতের ক্ষেত্রে ভর্তুকি দিতে হবে প্রায় ৪৩ হাজার কোটি টাকা, আর জ্বালানির ক্ষেত্রে ৬ হাজার কোটি টাকা। এগুলো আমরা কয়েক বছরে ধীরে ধীরে অ্যাডজাস্টমেন্টে যাব। আমরা এরইমধ্যে কুইক রেন্টাল থেকে বেরিয়ে এসেছি, ডিজেল থেকে বেরিয়ে এসেছি। এখন আমাদের বড় বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো (কয়লাভিত্তিক) চলে এসেছে। আগামী বছর থেকে নিউক্লিয়ার বিদ্যুৎকেন্দ্র চলে আসবে (চালু হবে)। ভারত থেকে আমরা কম রেটে বিদ্যুৎ পাচ্ছি। আগামী দুই বছরের মধ্যে ২ হাজার মেগাওয়াট সোলার থেকে বিদ্যুৎ পাব আমরা। তারপরও যে ভর্তুকিটা রয়ে যাবে, তা ডলার রেটের কারণে। এ কারণে আমাদের প্রাইস অ্যাডজাস্টমেন্ট করতে হবে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয় তালিকায় বুয়েটের অবস্থান কত?

আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১

মুন্সীগঞ্জে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ২

আড্ডা দিচ্ছিলেন ছাত্রলীগ কর্মীরা, অতর্কিত হামলায় আহত ৪

চৈত্রসংক্রান্তি আজ

১৩ এপ্রিল : নামাজের সময়সূচি

দুদিন বন্ধের পর আজ থেকে মেট্রোরেল চালু 

মার্কিন ঘাঁটিতেও হামলার হুমকি ইরানের

বিমান থেকে সংকেত দেখেই দ্বীপ থেকে তিন নাবিককে উদ্ধার

বাস ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে দুই মাদ্রাসাছাত্র নিহত

১০

সৌদি আরবে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রাণ গেল বাংলাদেশির

১১

এবারই প্রথম স্বস্তিতে মানুষ ট্রেন ভ্রমণ করছেন : রেলমন্ত্রী

১২

খুলনায় ইজিবাইকের ধাক্কায় প্রাণ গেল শিশুর

১৩

দিনদুপুরে তরুণীকে নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল

১৪

ঈদে পর্যটকে মুখরিত মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত

১৫

‘বাঙালিত্বের সঙ্গে ধর্মের কোনো সংঘর্ষ নেই’

১৬

খুলনায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে আ.লীগের তিন নেতা গুরুতর আহত

১৭

সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়াল বান্দরবান প্রশাসন

১৮

ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা চরমে, মার্কিন রণতরীর অবস্থান পরিবর্তন

১৯

দুঃসংবাদ দিল আবহাওয়া অফিস

২০
*/ ?>
X