কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ১৬ মে ২০২৪, ০১:৫৬ পিএম
আপডেট : ১৬ মে ২০২৪, ০২:১৪ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

পুতিনপন্থি প্রধানমন্ত্রীকে গুলির নেপথ্যে আমেরিকা?

স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকোকে গুলির পর নিরাপত্তাকর্মীদের তৎপরতা। ছবি : সংগৃহীত
স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকোকে গুলির পর নিরাপত্তাকর্মীদের তৎপরতা। ছবি : সংগৃহীত

যখন কূটনীতি আর রাজনীতিতে পরাজিত হয় তখন গুপ্তহত্যার মতো ঘৃণ্য পথ বেছে নিতে দ্বিতীয়বার ভাবে না পশ্চিমা শক্তিগুলো। তারই সবশেষ নজির দেখা গেল পুতিন ঘনিষ্ঠ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য স্লোভাকিয়ায়।

পুতিনকে সমর্থন করার মূল্য হয়তো নিজ জীবন দিয়েই দিতে হবে দেশটির প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকোকে। বুধবার এক সরকারি বৈঠক শেষে বেরিয়ে আসার পর তাকে গুলি করে হত্যাচেষ্টা করা হয়। কিন্তু কেন এই হত্যাচেষ্টা?

স্লোভাকিয়ার হ্যান্ডলোভা শহরে একটি সরকারি বৈঠক থেকে বেরিয়ে আসার পর রবার্ট ফিকোকে লক্ষ্য করে গুলি করে এক বন্দুকধারী। এ সময় তাকে একাধিকবার গুলি করা হয়, বর্তমানে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসা চলছে তার।

ঘটনাস্থল থেকেই ওই বন্দুকধারীকে আটক করা হয়। ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়া ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, গুলিবিদ্ধ ফিকোকে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা একটি কালো গাড়িতে তুলে নিয়ে যাচ্ছেন। অন্যদিকে ঘটনাস্থলে একজনকে হাতকড়া পরায় পুলিশ।

বুধবার সন্ধ্যায় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রবার্ট কালিনাক জানান, গুলির ঘটনায় তিন ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে অস্ত্রোপচার করা হয়েছে ফিকোর। স্লোভাক প্রধানমন্ত্রীকে গুলির ঘটনায় আটক সন্দেহভাজনের নাম প্রকাশ করেনি পুলিশ।

তবে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে তাকে ৭১ বছর বয়সী একজন লেখক হিসেবে পরিচয় দেওয়া হয়েছে। সন্দেহভাজন ওই লেখকের ছেলে স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, বাবা কী চিন্তা করছিলেন, তিনি কী পরিকল্পনা করেছিলেন এবং কেন এটা ঘটল, সেসব বিষয়ে সত্যিকারে আমার কোনো ধারণা নেই।

গেল সেপ্টেম্বরে স্লোভাকিয়ায় জাতীয় নির্বাচনে জয় পায় ফিকোর দল স্মের–এসডি। এ নিয়ে চতুর্থবারের মতো দেশটির প্রধানমন্ত্রী হন ফিকো। তারপরই জানুয়ারিতে তিনি ইউক্রেনে সামরিক সহায়তা বন্ধ করে দেন।

এ ছাড়া তিনি রাশিয়ার ওপর আরোপিত পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার ঘোর বিরোধিতা করে আসছিলেন স্লোভাক এ রাজনীতিবিদ। শুধু তাই নয় ভবিষ্যতে ইউক্রেনকে ন্যাটোর সদস্য পদের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হলে তাতেও বিরোধিতা করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি। ফিকোর এমন মস্কোপন্থি অবস্থানের কট্টর সমালোচনা করে আসছিল পশ্চিমারা।

ফিকোর ওপর এমন ন্যক্কারজনক হামলার নিন্দা জানিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ক্রেমলিনের এ অধিপতি জানান, এই বর্বরোচিত অপরাধের পক্ষে কোনো যুক্তি থাকতে পারে না। এ সময় স্লোভাক প্রধানমন্ত্রীকে একজন সাহসী এবং শক্ত মানুষ হিসেবে বর্ণনা করেন তিনি।

হামলার নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এবং ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট চার্লস মিশেল ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

অবৈধ অভিবাসীদের বড় সুখবর দিল আমেরিকা

সৌদি যুবরাজের রাজকীয় সংবর্ধনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী

কোটালীপাড়া থেকে রাজৈর হয়ে ঢাকায় বাস চলাচলের দাবিতে মানববন্ধন

বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস-বাস মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১

সোনারগাঁয়ের চরাঞ্চলে প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ, ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা

অজি পেসারের কথায় আতঙ্কিত হন ইংলিশরা

কোচ সংকটে দুর্ভোগ রেলপথে

উত্তর কোরিয়ায় কোথায় থাকছেন পুতিন?

মন্তিয়েলের সেই পেনাল্টির সময় মেসি কী ভাবছিলেন?

সমুদ্র বন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

১০

মেসির মন্তব্য / নেইমারকে ছাড়াই কোপা জেতার ক্ষমতা রয়েছে ব্রাজিলের

১১

এসএসসি পাসে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

১২

নওগাঁয় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫

১৩

ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে পাকিস্তানেও

১৪

এক অর্ধশতকে র‌্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি সাকিবের

১৫

ইউজিসি সদস্য হিসেবে অধ্যাপক জাকির হোসেনের যোগদান 

১৬

পাহাড়ধসের ঝুঁকিতে দেড় সহস্রাধিক রোহিঙ্গা পরিবার

১৭

৩৩৮ পদে বাংলাদেশ রেলওয়েতে বড় নিয়োগ

১৮

চীনকে সতর্ক করল যুক্তরাষ্ট্র

১৯

৪৮ ঘণ্টা পার হলেও এখনো অপসারণ হয়নি কোরবানির বর্জ্য 

২০
X