কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ২২ জুন ২০২৪, ০৯:০০ এএম
অনলাইন সংস্করণ

পশ্চিমাদের শায়েস্তা করতে উত্তর কোরিয়া নিয়ে রাশিয়ার যে পরিকল্পনা

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। ছবি : সংগৃহীত
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। ছবি : সংগৃহীত

ইউক্রেনে পশ্চিমা অস্ত্র সরবরাহের প্রতিশোধ হিসেবে পরমাণুশক্তিধর দেশ উত্তর কোরিয়াকে ভয়ানক সব অস্ত্র দিতে পারে রাশিয়া। খোদ রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এই খবর জানিয়েছেন।

মার্কিন কর্মকর্তাদের ধারণা, এসব অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে- যুদ্ধবিমান, সারফেস টু এয়ার মিসাইল, সাঁজোয়া যান এবং ব্যালিস্টিক মিসাইল তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম।

উত্তর কোরিয়া সফর ও দেশটির নেতা কিম জং-উনের সঙ্গে প্রতিরক্ষা চুক্তি সইয়ের একদিন পর গত বৃহস্পতিবার ভিয়েতনামে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন পুতিন।

চলতি মাসের শুরুতে পুতিন হুমকি দিয়েছিলেন, পশ্চিমাদের সঙ্গে শত্রুতা রয়েছে, এমন সব দেশের হাতে অস্ত্র তুলে দিতে পারে মস্কো। কারণ, রাশিয়ায় আঘাত হানার জন্য ইউক্রেনকে প্রাণঘাতী সব অস্ত্র দিচ্ছে পশ্চিমা দেশগুলো।

পুতিন বলেন, শুধু উত্তর কোরিয়াতেই নয়, বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে অস্ত্র পাঠানোর অধিকার রয়েছে রাশিয়ার। এ জন্য মস্কোর সঙ্গে করা বিভিন্ন দেশের অস্ত্র চুক্তির কথাও উল্লেখ করেন পুতিন।

রাশিয়া ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে একটি সার্বিক কৌশলগত অংশীদারত্ব চুক্তি সই হয়েছে। চুক্তিতে কোনো পক্ষ আগ্রাসনের শিকার হলে পারস্পরিক সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে। পুতিনের পিয়ংইয়ং সফরকালে গত বুধবার এ প্রতিরক্ষা চুক্তি সই হয়।

এদিকে পুতিনের এমন ঘোষণায় উদ্বেগে পড়ে গেছে মার্কিন প্রশাসন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার বলেন, এমন পদক্ষেপে গোটা কোরীয় উপদ্বীপে স্থিতিশীলতা বিপন্ন হবে।

হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তার দায়িত্বপ্রাপ্ত মুখপাত্র জন কিরবি বলেন, পুতিনের এই ঘোষণার ফলে উদ্বেগ সত্ত্বেও বিস্ময়ের কোনো কারণ নেই। তার মতে, রাশিয়া মরিয়া হয়ে বৈদেশিক সহায়তার সন্ধান করছে।

কিরবি মনে করেন, মস্কোর এমন পদক্ষেপ সম্পর্কে চীনেরও উদ্বেগ বাড়তে পারে। যুক্তরাষ্ট্র বেইজিংকে উত্তর কোরিয়ার ওপর চাপ বাড়ানোর অনুরোধ করে আসছে। কিন্তু রাশিয়ার ওপর নির্ভরতা বাড়লে উত্তর কোরিয়ার ওপর চীনের প্রভাব কমে যেতে পারে। বিশেষ করে উত্তর কোরিয়া আবার পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষা শুরু করলে গোটা অঞ্চলের স্থিতিশীলতা বিপন্ন হতে পারে। এতে চীনের স্বার্থ ক্ষুণ্ণ হতে পারে বলে কিরবি মনে করছেন।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন

মন্তব্য করুন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

প্যারিস অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যা থাকছে

যেভাবে দেখবেন অলিম্পিকে আর্জেন্টিনার ম্যাচ

শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত হলে খুলবে ঢাবি

স্থানীয় সরকারের ২২৩ পদে নির্বাচন স্থগিত

ভালো নেই মুরগি ব্যবসায়ীরা

গাজীপুরে খুলে দেওয়া হয়েছে পোশাক কারখানা

পর্যটকশূন্য কাপ্তাই পর্যটনকেন্দ্রগুলো

ফিফার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ

পেন্টাগনের ব্রিফিংয়ে বাংলাদেশ প্রসঙ্গ

৪ বিভাগে ভারি বৃষ্টির পূর্বাভাস

১০

মোবাইলে অব্যবহৃত ইন্টারনেট প্যাকেজ সম্পর্কে যা জানা গেল

১১

আর্জেন্টিনায় হতে পারে পরবর্তী কোপা

১২

ঢাকার রাস্তায় তীব্র যানজট

১৩

নেপালে যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত, প্রায় সব আরোহী নিহত 

১৪

চাকরির প্রজ্ঞাপনে যা আছে

১৫

কারফিউ বিরতিতে চলবে দূরপাল্লার বাস

১৬

অলিম্পিকে নামার আগেই স্বর্ণপদকের স্বপ্ন মাসচেরানোর

১৭

সুষ্ঠু তদন্তে দায়ীদের শাস্তির দাবি সম্পাদক পরিষদ ও নোয়াবের

১৮

আজ বিদেশি কূটনীতিকরা ধ্বংসযজ্ঞ পরিদর্শন করবেন

১৯

৩ দিনে জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল আসে সোয়া লাখেরও বেশি

২০
X